সিবিএন ডেস্ক:
প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। গাজীপুরের কাশিমপুর মহিলা কেন্দ্রীয় কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় তিনি সাংবাদিকতা চালিয়ে যাওয়ার কথা বলেন।

আজ রোববার বিকেল সোয়া ৪টার দিকে কারাগার থেকে মুক্তি পান সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। জামিনে মুক্তির আশায় সকাল থেকে সেখানে গণমাধ্যমকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। রোজিনাকে বাসায় নিতে কারাগারে গিয়েছিলেন তাঁর পরিবারও।

রোজিনা ইসলাম যখন কারাগার থেকে বের হন, তখন সাংবাদিকরা তাঁকে ঘিরে ধরেন। জানতে চান তাঁর অনুভূতি। সে সময় রোজিনা ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, ‘সাংবাদিকতা চালিয়ে যাব। সাংবাদিকসহ যারা পাশে ছিলেন, সবাইকে ধন্যবাদ।’

সে সময় কারাগারের বাইরে গণমাধ্যমকর্মী, সহকর্মী ও স্বজনরা রোজিনাকে ফুলেল শুভেচ্ছা জানান। পরে একটি মাইক্রোবাসে করে তাঁকে সেখান থেকে নিয়ে যান স্বজনরা। গাড়ির সামনের চালকের পাশের সিটে বসে থাকা রোজিনাকে এ সময় বিধ্বস্ত লাগছিল।

এর আগে সকালে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট বাকী বিল্লাহ আদালত রোজিনা ইসলামের জামিন মঞ্জুর করেন। আদালত পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকায় জামিন মঞ্জুর করেন এবং পাসপোর্ট জমা দেওয়ার নির্দেশ দেন।

সেই জামিনাদেশ কেরাণীগঞ্জের ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগার হয়ে কাশিমপুরে কারাগারে পৌঁছে। আদেশ পাওয়ার পর পরই মুক্তি মিলে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামের। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের করা দণ্ডবিধি ও অফিশিয়াল সিক্রেটস অ্যাক্টের মামলায় গ্রেপ্তার হয়ে কারাগারে ছিলেন রোজিনা। পাঁচ হাজার টাকা মুচলেকা ও পাসপোর্ট জমা দেওয়ার শর্তে তিনি জামিন পান।

গত ১৭ মে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় সচিবালয়ে প্রায় ছয় ঘণ্টা আটকে রাখা হয় সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে। এ সময় তাঁকে হেনস্তা করা হয়। পরে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন। স্বজনদের দাবি, শারীরিক ও মানসিকভাবে তাঁকে নির্যাতন করা হয়েছে।

পরে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নেওয়ার কথা বলে রোজিনা ইসলামকে শাহবাগ থানায় নেওয়া হয়। রাত সাড়ে ৮টার দিকে তাঁকে সচিবালয় থেকে শাহবাগ থানা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পৌনে ৯টার দিকে তাঁকে থানায় আনা হয়। গভীর রাতে রোজিনা ইসলামের বিরুদ্ধে সরকারি গোপনীয় নথি চুরির মাধ্যমে সংগ্রহ এবং ওই নথি দ্বারা বহির্বিশ্বের সঙ্গে বাংলাদেশের রাষ্ট্রীয় সম্পর্ক নষ্ট করার অপচেষ্টার অভিযোগ আনা হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •