অনুমোদনহীন ব্লু ড্রিংকস বাজারজাত করায় ‘রাফসান দ্য ছোট ভাই’ খ্যাত জনপ্রিয় ইউটিউবার ইফতেখার রাফসানের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) বিকেলে তার বিরুদ্ধে এই পরোয়ানা জারি করা হয়।

গেলো মাসে নোংরা পরিবেশে কারখানায় ড্রিংকস ব্লু (BLU) তৈরির অভিযোগ ওঠে। যদিও পরে ‘ব্লু’ এর অফিশিয়াল পেজে পণ্যটি প্রসঙ্গে প্রয়োজনীয় তথ্য তুলে ধরেন।

এর আগে বাবা-মাকে বিলাসবহুল গাড়ি উপহার দিয়ে আলোচনায় আসেন এই ইউটিউবার। সে সময় একটি গণমাধ্যমে খবর প্রকাশিত হয় রাফসানের বাবা-মা ঋণখেলাপি। বাবা মায়ের ঋণ পরিশোধ না করে তিনি তাদের গাড়ি উপহার দিয়েছেন।

সে সময় বিষয়টি নিয়ে সামাজিকমাধ্যমে বেশ আলোচনা-সমালোচনার সৃষ্টি হয়। পরে ফেসবুক লাইভে বিষয়টি নিয়ে কথা বলেন তিনি। প্রায় ৫ মিনিটের ওই লাইভে রাফসান বলেন, ‘আমার গাড়ি কেনা নিয়ে যে তথ্য ছড়িয়ে পড়েছে তা ভুল। খোঁজ নিয়ে দেখেন আমার গাড়ির দাম মোটেও ২ কোটি টাকা নয়।

রাফসান আরও বলেন, ‘আমার বাবা, মার একটি কোম্পানি আছে। ওই কোম্পানি লোনও নিয়েছিল। ব্যাংক থেকে লোন নিতে হলে সম্পত্তি মরগেজ দিয়ে টাকা নিতে হয়। আমরা আমাদের ১০ গুণ জমির দামে ১ টাকা লোন নিয়েছি ধরেন। এখন ব্যাংক চাচ্ছে, পুরো জমিটি হাতিয়ে নিতে। এজন্য আদালতে মামলা চলছে।’

এ সময় রাফসান আফসোস করে বলেন, ‘মামলায় দুই পক্ষের কথাই আদালত শুনবেন। তবে এখনও পর্যন্ত কোর্টে সিদ্ধান্ত হয়নি আমরা ব্যাংককে কত টাকা ফেরত দেব। তাই ঋণ পরিশোধের বিষয়টি এখানে কীভাবে আসে?’

রাফসান আরও বলেন, ‘আমি বাবা-মায়ের সুসন্তান। অথচ সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই আমাকে শেখাচ্ছে, বাবা, মায়ের ঋণ পরিশোধ না করার, গাড়ি না কেনার। আমি বলতে চাই, আমার ভাই সামর্থ্য আছে গাড়ি কিনেও আমার বাবা মায়ের ঋণ পরিশোধ করার। সবাইকে বলে রাখা ভালো, কোভিডের সময় যখন আমার বাবা-মায়ের ব্যবসা ডাউন হয় ওই সময় থেকেই আমি আমার বাবা, মাকে সাপোর্ট করা শুরু করেছি। তাই ব্যাংকের ঋণ পরিশোধ করছি না- বিষয়টি অদ্ভুত। আমাদের ব্যাংক ঋণের টাকাটা আগে আদালত জানাবে, তারপর আমরা তা পরিশোধ করব।’

সবশেষে রাফসান বলেন, ‘স্টোরির একদিক শুনে কখনও বিচার করা উচিত নয়। তাই আমি আমার ও আমার পরিবারের নামে যে ভুল তথ্য ছড়ানো হচ্ছে, দ্রুত সে বিষয়ে আইনি ব্যবস্থা নেব।’