-আবু নাঈম মাসুম
হে ঈশ্বর, তুমি বড় আনাড়ি,
আরেকটু ফ্যাশনেবল কি পারো না হতে?
যখন তুমি গড়ো নারী;
রংটা দুধে আলতা দিলেই হতো কেল্লাফতে।
ঘুরাতে পারতাম পুরুষ -সারি সারি।।
ঠোঁট টা ও কেমন যেন অ্যাঁশ কালার;
মধু ঘষি,লেবু ঘষি,ঘষি শসা বাটা,
এতো ঘষি, পিংকিশ হয় না শালার!
বিউটিশিয়ান বলে,লাগাও গোলানো আটা
হে, ঈশ্বর ! এ তোমার কেমন বিচার?
নখটা আরেকটু লম্বা হতো যদি ইশ্-
পাঁচ নখ রাংগাতাম, লাল-নীল পলিশে।
সেই রকম হতো, ওহ্ গড্! ওহ্ জগদীশ!
কম হতাম কিসে নাচে যারা মহল মজলিসে?
তাও ভালো,খাটো তো বানাও নি,ভাগ্যিস!
তবু কেন বারবার এ্যানিকে মনে পড়ে?
দীঘল চুল যেন কালো ঝরনার পানি।
চুল দুলিয়ে কত যে ভাব! একটু পরে পরে।
চোখ দু’টা যদি হতো ডাগর আরেকটু খানি
মোল্লারাও দেখতো আমায় মাথা উঁচু করে।
হাত, পা, নাক, কান সবই আছে ঠিকঠাক,
তবু যেন কিসের অভাব, মন করে তুকতাক।
ঈশ্বরে ডেকে পাইনা সাড়া,এসো হে প্রসাধনী!
মেকি সাজে সাজাও,ঈশ্বরে পূজে লাভ কি?
শানে নূযলঃ সুস্থ, স্বাভাবিক সে সকল নারীদের যারা প্রসাধনীতে বাতিকগ্রস্ত কিন্ত সুস্থতার জন্য কোন শুকরিয়া বোধ নাই।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •