চীফ রিপোর্টার, সিবিএন:

শহরের পাহাড়তলীর ইসলামপুর থেকে কানিজ ফাতেমা (১৮) নামের এক নারীর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার ভোরে মৃতদেহটি উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হয়। নিহত নারী একই এলাকার ফারুকের স্ত্রী। নিহতের শ্বশুর বাড়ির লোকজন বলছেন তিনি আত্নহত্যা করেছেন। তবে নিহতের বাবার বাড়ির লোকজন মানতে নারাজ আত্নহত্যার বিষয়টি। আর পুলিশ বলছে বিষয়টি রহস্যজনক।

পুলিশ সূত্র জানায়, মঙ্গলবার ভোরে মৃতদেহটি বাথরুমের ভেন্টলিটরের সাথে ওড়না দিয়ে প্যাচানো অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

নিহতের শ্বাশুড়ি আনোয়ারা বেগম জানান, ১০/১৫ দিন আগে ফারুক ও তার বড় ভাই রুবেলের মধ্যে ঝগড়া বাধে। এ সময় ফারুককে আলাদা করে দেওয়া হয়। সেসময় ফারুক তার পাওনা চাইতে গিয়ে বড় ভাইয়ের সাথে ঝগড়া করে। ওই সময় ফারুকের স্ত্রীকে নিয়ে অনেক কটু কথা বলে রুবেল ও তার স্ত্রী। একারনেই কানিজ আত্নহত্যা করেছে বলে ধারনা করছে।

তবে নিহতের বাবা মোস্তফা সওদাগর বলেন, তিনি স্বপরিবারে চট্টগ্রামে থাকেন। তিনি জানেন না কি হয়েছে। মেয়ের মৃত্যুর খবর শুনে তিনি কক্সবাজার এসেছেন। এসময় তিনি বলেন , এমন তুচ্ছ ঘটনা নিয়ে তার মেয়ে আত্নহত্যা করতে পারে না।

এদিকে পুলিশ ঘটনার কারন জানতে নিহতের শ্বাশুড়িকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক করেছে ‍পুলিশ।

কক্সবাজার সদর থানার ওসি রনজিৎ বড়ুয়া জানান, ঘটনাটি রহস্যজনক । আপাতত এটি অপমৃত্যুর মামলা হিসেবে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার এটি হত্যা না আত্নহত্যা জানা যাবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •