বিশেষ প্রতিনিধি: জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে কক্সবাজারে অর্ধ লক্ষাধিক মানুষকে গরুর মেজবানি খাবার খাওয়ানো হয়েছে। করোনাকালীন সময়ে কর্মহীন ও দুস্থ লোকজনদের জন্যই আয়োজন ছিল খাবারের এরকম বিশাল আয়োজনটি।

বৃহত্তর চট্টগ্রামের জনপ্রিয় মেজবানি খাবারের জন্য কক্সবাজার শহর ও শহরতলির ২১টি পৃথক স্থানে জবাই করা হয় ২১টি বড় সাইজের গরু। কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের উদ্যোগে করা হয় ব্যতিক্রমী এমন আয়োজন।

কক্সবাজার জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র মুজিবুর রহমান এ প্রসঙ্গে জানান, সেই ১৯৭৬ সালের ১৫ আগস্ট থেকেই ফি বছর কক্সবাজারে কাঙালি ভোজের আয়োজন চলে আসছে। তবে এবার সেই আয়োজনটা একটু বড়সড়ভাবে করা হয়েছে।

তিনি বলেন, ‘দীর্ঘকালীন সময়ে করোনা লকডাউনের কারণে বেশির ভাগ মানুষই খাবার-দাবারে কষ্ট পেয়েছেন। এজন্য আমাদের চাটগাঁর ঐতিহ্যবাহী মেজবানির আয়োজনের মাধ্যমে বেশিসংখ্যক মানুষের খাবারের ব্যবস্থা করা হয়েছে।’

জানা গেছে, কক্সবাজার পৌর এলাকার ১২টি ওয়ার্ড ছাড়াও ঝিলংজা ইউনিয়ন এবং খুরুশকুল ইউনিয়নের আশ্রয়ণ প্রকল্পেও মেজবানি খাবারের আয়োজন করা হয়। এসব স্থানে অর্ধ লাখেরও বেশি লোকজন খাবার খেয়েছেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •