বার্তা পরিবেশক
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও ইসলামাবাদ হাসেরদিঘি এলাকায় কোটি টাকা মূল্যের ফলজ, বনজ গাছের জমি ও বসতঘর দখলে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। ইসমাঈল নামের এক রোহিঙ্গাকে দখলবাজিতে পুলিশ সহায়তা করছে বলে জানান অসহায় নেয়ামত উল্লাহর পরিবার।
বসতবাড়ি ফেরত ও আইনী প্রতিকার পেতে ১৬ জুন পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসনের কাছে অভিযোগ করা হয়েছে।
ভুক্তভোগী নেয়ামত উল্লাহ ঈদগাঁও ইসলামাবাদ হাসের দিঘি এলাকার মোহাম্মদ শফি উল্লাহ ছেলে।
অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, নেয়ামত উল্লাহ দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত হাসেরদিঘি এলাকায় ৯৯ শকত জমি নিয়ে বিভিন্ন প্রকার ফলজ,বনজ,নার্সারী পুকুর সহ টিনসেড সেমিপাকা ঘর নিয়ে পরিবার পরিজন সহ বসাবাস করে আসছিল। সেখানে বেশ কিছুদিন থেকে লুলোপ দৃস্টি পড়ে পূর্বে আসা রোহিঙ্গা নাগরিক মোহাম্মদ শফির ছেলে মোহাম্মদ ইসমাইলের এর মধ্যে বেশ কয়েক বার উক্ত মূল্যবান জমি দখলের সন্ত্রাসী হামলা চালালোও সফল হতে না পেরে সর্বশেষ ১৫ জুন রাত ২ টার সময় একদল সন্ত্রাসী সহ বাড়িতে হামলা করে এ সময় আমি নেয়ামত উল্লাহ ঘরে না থাকায় আমার স্ত্রীকে ৯৯৯ এর কল করে পুলিশের সহায়তা নিতে বলায় আমার স্ত্রী ৯৯৯ কল করে পুলিশের সহায়তা চাইলে ঈদগাঁও থানা থেকে পুলিশ এসে উল্টো আমার স্ত্রী ছেলেমেয়েকে ঘর থেকে বের করে দিয়ে প্রতিপক্ষ ইসমাইল প্রকাশ বার্মাইয়া ইসমাইলদের ঘরে ঢুকিয়ে দেয়। পুলিশ প্রথমে স্থানীয় মেম্বারকে ঘরের চাবি দিতে চাইলেও পরে অদৃশ্য ফোনে সরাসরি ইসামাইলের হাতে ঘরের চাবি দিয়ে আমার পরিবারকে বের করে দিয়ে সম্পূর্ন কোটি টাকার জমি দখল করতে সহায়তা করে। বর্তমানে ছেলেমেয়ে নিয়ে রাস্তায় বসে আছি। তাই বিষয়টি দ্রুত আইন সহায়তা পেতে আমি উর্ধতন কর্তৃপক্ষের সহায়তা কামনা করছি।
এ ব্যাপারে ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মেম্বার আবদু শুক্কুর বলেন, রাত আড়াইটার সময় পুলিশের ফোন পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে গিয়েছিলাম। প্রথমে ঘরের চাবি আমার হাতে দিলেও পরে পুলিশের পক্ষ থেকে চাবি ইসমাইলের হাতে দেওয়া হয়েছে। তবে ইসমাইল এবং নেয়াতম উল্লাহ সম্ভবত ব্যবসায়িকভাবে পার্টনার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •