ইমাম খাইর, সিবিএনঃ
কক্সবাজার সদরের ঈদগাঁও বাসস্টেন্ড ও খোদাইবাড়ি এলাকায় তদারকি অভিযান চালিয়েছে জাতীয় ভোক্তা-অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর।

বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) এর অভিযানে ইটভাটাসহ পাঁচটি প্রতিষ্ঠানকে ২০ হাজার টাকা জরিমানা করেন কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ ইমরান হোসাইন।

দণ্ডপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠানগুলো হলো- ইটের পরিমাপের ক্ষেত্রে BDS 208: 2009 অনুসরণ না করে পরিমাপে কারচুপি করার অপরাধে খোদাইবাড়ি এলাকার দিবা ব্রীকফিল্ড ১০ হাজার, অতিরিক্ত মূল্যে গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি, অগ্নিনির্বাপক সিলিন্ডার না থাকা, মেয়াদোত্তীর্ণ বিস্ফোরক সনদ রাখার অপরাধে জসিম ট্রেডার্স ২,৫০০, মূল্য তালিকা না রাখা, পন্য ক্রয়ের ভাউচার সংরক্ষণ না করা, অতিরিক্ত মূল্যে খেজুর বিক্রি করার অপরাধে ঈদগাঁও বাসস্টেন্ডের সুজন স্টোর ৩,০০০, মূল্য তালিকা না রাখা, পন্য ক্রয়ের ভাউচার সংরক্ষণ না করা, অতিরিক্ত মূল্যে ছোলা ও চিনি বিক্রি করার অপরাধে ইসলাম স্টোর ৩,০০০ এবং মূল্য তালিকা না রাখার অপরাধে সাঈদ স্টোরকে ১,৫০০ টাকা জরিমানা  করা হয়।

এসময় খোদাইবাড়ি এবং ঈদগাঁও বাসস্টেন্ড এলাকার বিভিন্ন ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করে ব্যবসায়িদের মাঝে ভোক্তা অধিকার আইন এবং করোনাকালীন সময়ে স্বাস্থ্যবিধি প্রতিপালন সম্পর্কে প্রচারনা করা হয়।

অভিযানকালে ব্যবসায়িদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা, মূল্য বেশি না রাখা, অমুমোদনবিহীন পন্য বিক্রি না করার পরামর্শ দেওয়া হয়।

অভিযানে সার্বিক নিরাপত্তা প্রদান করেন ঈদগাঁও থানার এক দল চৌকস সদস্য।

জনস্বার্থে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর কক্সবাজার জেলা কার্যালয়ের বাজার তদারকি অব্যাহত থাকবে বলে জানান ভোক্তা-অধিকার জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক মোঃ ইমরান হোসাইন।

এদিকে, খোঁজ নিতে জানা গেছে, সদরের জালালাবাদ ইউনিয়নের পূর্ব ফরাজী পাড়ায় টিকে ব্রিক ফিল্ডেও ইট তৈরীর ক্ষেত্রে সরকার নির্ধারিত BDS 208: 2009 অনুসরণ না করে কম পরিমাপের ইট তৈরী ও বিক্রি করা হচ্ছে। এতে প্রতারিত হচ্ছে ক্রেতারা।

পরিবেশ আইন অমান্য করে লোকালয়ে স্থাপিত ইটভাটাসমূহে প্রথম শ্রেণির ইট বিক্রির কথা বলে দ্বিতীয় ও তৃতীয় শ্রেণির ইট বিক্রি করা হচ্ছে। তাতে ঠকছে ভোক্তারা।