সিবিএন :

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. শিরীণ আখতারের স্বামী মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব.) মো: লতিফুল আলম চৌধুরী আর নেই। তিনি ২৯ জুলাই রাত ১.১৫মিনিটে চট্টগ্রাম সিএমএইচে শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেছেন।

বিষয়টি কক্সবাজার জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরী তাঁর  ফেসবুক  স্ট্যাটাসে  নিশ্চিত করেছেন।

তিনি আরো জানান, চট্টগ্রাম সেনানিবাসে আজ জানাজা  ও বাদ জোহর গরীবুল্লাহ শাহ মাজার প্রাঙ্গনে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় মরহুমকে দাফন করা হবে।

জানা যায়, ভিসি ড. শিরীণ আখতার, তাঁর স্বামী মেজর (অব.) মো. লতিফুল আলম চৌধুরী, উপাচার্যের মেয়ে ও তিন নাতি-নাতনী সহ উপাচার্যের পরিবারের একই সাথে মোট ৬ সদস্য গত ১১ জুলাই করোনা আক্রান্ত হন। একইসঙ্গে আক্রান্ত হন উপাচার্যের বাংলোর দুই কর্মচারীও। পরদিন ১২ জুলাই থেকে তারা সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে ভর্তি হয়ে সেখানে চিকিৎসা নেন।

গত ২০ জুলাই সিএমএইচে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় চবি উপাচার্য প্রফেসর ড. শিরীণ আখতার, তাঁর স্বামী মেজর (অব.) মো. লতিফুল আলম চৌধুরী
ও তার পরিবারের অন্য ৪ সদস্যের ফলোআপ টেস্ট রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ আসে। পরিবারের অন্য ৪ সদস্যকে নিয়ে ২১ জুলাই উপাচার্যের বাসভবনে উপাচার্য ড. শিরীণ আখতার ফিরে আসেন। তবে তাঁর স্বামী মো. লতিফুল আলম চৌধুরী করোনা ‘নেগেটিভ’ হলেও তাঁর শরীরে অক্সিজেন লেভেল ক্রমাগতভাবে কমতে থাকায় তাকে হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়েছিলো। রোববার ২৬ জুলাই মো. লতিফুল আলম চৌধুরীর স্বাস্থ্যের আরো অবনতি ঘটায় তাঁকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালের লাইভ সাপোর্ট নেওয়া হয়। সেখানে আজ রাতে মৃত্যু বরণ করেন।

এদিকে, বীর মুক্তিযোদ্ধা মেজর (অব.) মো. লতিফুল আলম চৌধুরীর মৃত্যুতে জেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক নাজনীন সরওয়ার কাবেরী শোক প্রকাশ করে বলেন,আমার বিবাহ পরবর্তী জীবনে তিনি ও আপা ছিলেন আমার অভিভাবক। তাই তাঁকে আমি বলতাম ‘আব্বা দুলাভাই’।সমস্ত সুখ দুখের অংশিদারিত্বে পরম মমতায় আমাকে বুকে আগলে রেখেছিলেন। স্নেহ ভালবাসায় যতটুকু আমাকে সিক্ত রেখেছিলেন ততটুকু প্রতিদান মহান আল্লাহ তাঁকে দান করুন।