প্রেস বিজ্ঞপ্তি:

সম্মানিত পাঠক ও শুভান্যুধায়ীবৃন্দ আপনারা যারা দীর্ঘদিন যাবৎ জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার’র কার্যক্রম পরিলক্ষিত করছেন এবং সার্বিক সহযোগিতা করেছেন সবাই জেনে খুশি হবেন যে, জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার পুঃননির্মাণের কাজ শীগ্রই শুরু হতে যাচ্ছে। বর্তমানের পাঠাগার বহু পুরানো বাঁশের বেড়া ও কাঠ দিয়ে তৈরি যা বর্তমানে প্রায় ভেঙে যাওয়ার উপক্রম। যদিও পাঠাগার পুঃননির্মানের কাজ আরো আগে শুরু হওয়ার কথা বৈশ্বিক করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে তা সম্ভব হয়ে উঠেনি। বর্তমানে পাঠাগার’র এমন অবস্থা যেকোন মুহুর্তে ভেঙে পড়ে যেতে পারে এবং চুরি হয়ে যেতে পারে। সুতরাং এমন অবস্থায় পাঠাগার সংস্কার ও পুঃননির্মাণ জরুরী।

জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার’র অন্যতম শুভান্যুধায়ী স্থাপত্যশিল্পী পরাগ চৌধুরীর তত্ত্বাবধানে ক্লাউডি ওয়ার্কশপ সেচ্ছাসেবায় জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার’র প্রাথমিক নকশা প্রণয়ন করেছেন এবং বাস্তবায়নে এই টিম স্বশরীরে অংশগ্রহণ করবেন বলে আমাদের জানান। স্থাপত্যশিল্পী পরাগ চৌধুরী জানান, আমি এবং আমার টিম কক্সবাজারের অন্যতম সচল একটি সামাজিক পাঠাগার’র সাথে যুক্ত হতে পেরে আনন্দিতবোধ করছি। সমাজ সংস্কার ও মানুষের মনুষত্ব বিকাশের অন্যতম একটি মাধ্যম পাঠাগার, রাজারকুলের প্রাণোচ্ছল একঝাঁক তরুণ এই লাইব্ররীর সাথে সংযুক্ত যারা স্বপ্ন দেখেন সমাজ বিনির্মানের, আজ থেকেও আমি তাদের সহযাত্রী হলাম। আমাদের প্রণীত এই নকশা আধুনিক এবং টেকসই, প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি প্রায় ৫,০০,০০০/= (পাঁচ লক্ষ টাকা) ব্যয় হতে পারে এই লাইব্রেরী পুঃননির্মাণে।

২০১৭ সালের ১৫ই এপ্রিল কক্সবাজার জেলার রামু উপজেলার প্রত্যন্ত গ্রাম পূর্ব রাজারকুলে গড়ে উঠা এই পাঠাগা’র অর্জন আকাশ ছোয়া। সরকারি স্বীকৃতি অর্জনের মাধ্যমে গত ১ জুলাই সংস্কৃতি মন্ত্রনালয় থেকে ৪২,০০০/= টাকা অনুদান পান পাঠাগার। গ্রামের দরিদ্র ছাত্র-ছাত্রীদের ফ্রিতে খাতা-কলমসহ নিয়মিত শিক্ষা উপকরণ বিতরণ করে থাকে পাঠাগার। তাছাড়া মরনব্যাধীতে আক্রান্ত ৩ জন ব্যক্তির চিকিৎসা খরচ মেঠাতে কাজ করেছে এই পাঠাগার। দৈনিক গড়ে ১০ জন পাঠক বই ধার নেন এবং ফেরত দেন। ১০০০ টির বেশি বই এবং ৫০০ টির বেশি বহু পুরানো ম্যাগাজিন রয়েছে লাইব্রেরীটিতে।

জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার’র সাধারণ সম্পাদক অসীম বড়ুয়া বলেন, আমাদের অনেক স্বপ্ন এই লাইব্রেরীটি ঘিরে। স্বপ্নের পাঠাগার পুঃননির্মাণের কাজ আমরা শুরু করতে যাচ্ছি এটা আমাদের জন্য চ্যালেন্জ হয়ে দাঁড়ালো কারণ প্রায় ৫ লক্ষ টাকা দরকার, পাঠাগার নির্মানের ভুমি ট্রাস্ট প্রোপার্টি হিসেবে দান করছেন ভূমির মালিক। আমরা আগে অনেকবার সাধারণ মানুষের দ্বারে গিয়েছি, কেউ কখনো ফিরিয়ে দেননি বরং হাসিমুখে সহযোগিতা করে গেছেন। আমি আশা করি সবার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় খুব দ্রুত জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার মাথা উচু করে দাঁড়াবে। আমাদের পাঠাগার’র নামে ব্যাংক হিসাব এবং মোবাইল ব্যাংক হিসাব রয়েছে যাতে আপনারা সহযোগিতা করতে পারবেন এবং আমাদের কার্যকরী পরিষদ থেকে আমরা আপনাদের দেওয়া আর্থিক সহযোগিতার সম্পূর্ণ হিসাব এবং খরচ নিয়মিত প্রকাশ করবো। জবাবদিহিতা আমাদের পাথেয়। সবাইকে অগ্রিম ধন্যবাদ জানাই।

সহযোগিতা পাঠানোর ঠিকানা:

হিসাবের নাম : জ্ঞানান্বেষণ পাঠাগার
সঞ্চয়ী হিসাব নং : ০১০০১৩৯৭০৪৮১৩
রাউটিং নাম্বার : ১৩৫২২০৮৫০
জনতা ব্যাংক লিমিটেড, রামু শাখা।

বিকাশ, নগদ (পারসোনাল একাউন্ট) ০১৮৭৩-১৮৮১৩৮