এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া :

মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত চকরিয়া-পেকুয়া (কক্সবাজার-১) আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলমকে মালয়েশিয়াস্থ কক্সবাজার জেলা প্রবাসিদের উদ্যোগে উৎসবমুখর পরিবেশে সংবর্ধনা দেওয়া হয়েছে। রোববার রাতে স্থানীয় একটি অভিজাত হোটেলে অনুষ্ঠিত সংবর্ধনায় মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত চকরিয়া-পেকুয়া উপজেলা এবং কক্সবাজার জেলার হাজারো প্রবাসি এবং আওয়ামীলীগের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

সংবর্ধনা পরবর্তী সংগঠনের সভাপতি কামরুল হাসান হানিফের সভাপতিত্বে ও কুয়ালালামপুর মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ন সাধারন সম্পাদক আসিবুল হাসনাত রাফির সঞ্চালনায় সংবর্ধনা ও আলোচনা সভা অনুষ্টিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন সংবর্ধিত অতিথি মালয়েশিয়ায় অবস্থানরত চকরিয়া-পেকুয়া (কক্সবাজার-১) আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব জাফর আলম।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন মালয়েশিয়া আওয়ামীলীগের আহবায়ক এম রেজাউল করিম রেজা, যুগ্ম আহবায়ক অহিদুর রহমান অহিদ, যুগ্ন আহবায়ক রাশেদ বাদল ও কক্সবাজার জেলা সমিতির সভাপতি মাশাল পাভেল আরও উপস্থিত ছিলেন আহবায়ক কমিটির সদস্য সফিকুর রহমান চৌধুরী, হুমায়ুন কবির, কবি আলমগীর হোসেন, প্রদীপ কুমার, নুর মোহাম্মদ ভুইয়া, হুমায়ুন কবীর আমির, সাখাওয়াত হোসেন, মালয়েশিয়া আওয়ামী যুবলীগের সাবেক আহবায়ক এ কামাল হোসেন, চৌধুরী, মালয়েশিয়া ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সহ-সভাপতি ও সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি তারেকুল আলম চৌধুরী (অভি), কুয়ালালামপুর মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারন সম্পাদক মালেক মিয়া, যুগ্ম সাধারন সম্পাদক সালমান খান ও মহানগর ছাত্রলীগ নেতা মাসুম বিল্লাহ সহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে এমপি জাফর আলমকে ক্রেস্ট উপহার দিয়ে সম্মান প্রদান করেন মালয়েশিয়া ছাত্রলীগের সাবেক সহ-সভাপতি তারেকুল আলম চৌধুরী ও কুয়ালালামপুর মহানগের সাবেক যুগ্ম সাধারন সম্পাদক আসিবুল হাসনাত রাফি। অনুষ্ঠানের সাব্রিক তত্ত্বাবধানে ছিলেন নাহিয়ান ইসলাম সোমেল, আবদুল আল মামুন, হোসাইন মোহাম্মদ আরিফ, কফিল শিকদার।

প্রবাসিদের সংবর্ধনার জবাবে এমপি জাফর আলম বলেছেন, প্রবাসীরা বাংলাদেশের সম্পদ। শত কষ্টের মাঝেও তাঁরা পরিবার পরিজন ফেলে বিদেশ বিভুইয়ে অবস্থান করে পরিশ্রমের মাধ্যমে আয় রোজগার করছেন। নিজেরা আর্থিকভাবে স্বচ্ছল হচ্ছেন, পরিবারে ফিরাচ্ছেন নতুন দিনের দিশা। পাশাপাশি তাঁরা বাংলাদেশকে দিচ্ছেন বছরে হাজার কোটি টাকার রেমিডেন্স।

তিনি বলেন, সারাদেশের মতো প্রবাসী ভাইয়েরা প্রতিকুল পরিস্থিতি অতিক্রম করে আজ সফলতার দ্বারপ্রান্তে পৌছেছেন। অনেকে নানাবিধ সমস্যায়ও রয়েছে। তারপরও কক্সবাজার জেলার প্রবাসী ভাইদের অর্জন দেখে আমি অভিভুত। তাঁরা আজ কক্সবাজারবাসির জন্য অর্থনীতির চাকা সচল রেখেছেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ভিশনের আলোকে তাঁরা কক্সবাজার জেলার অগ্রগতি উন্নয়নের সারথী হয়েছেন। তাদের পাঠানো টাকায় আজ এলাকায় উন্নয়নে নতুন মেরকরুন হচ্ছে। আমি মনে করি চকরিয়া-পেকুয়া কক্সবাজারকে অর্থনৈতিকভাবে এগিয়ে নিতে প্রবাসিভাইদের অবদান অবিস্বরণীয়। ##