হাবিবুর রহমান সোহেল, গর্জনিয়া থেকে:
রামুর গর্জনিয়া সিকদার পাড়া পশ্চিম বোবাংখীল বিলে সবুজের সমারোহ ধানের সাথে এই কেমন নিষ্ঠুরতা করলো এই প্রশ্ন
এখন এলাকার হাজারও মানুষের।
৭ অক্টোবর সোমবার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, পেইজে বুকের একটি পেইজে  “গর্জনিয়াতে সবুজ ধান কেটে নদীতে ফেলে দিয়েছে” এরকম একটি ভিডিও ভাইরাল হলে একদল সাংবাদিক সোমবার বিকেলে ঘটনার সত্যতা যাচাই করতে গেলে উঠে আসে পিলে চমকানো সব তথ্য।
সিকদার পাড়া এলাকার বাবু সিকদারসহ তার স্বজনরা জানান, একই এলাকার রাজা মিয়ার ছেলে, আবদুল্লাহ, নজরুল ইসলাম, আজিজ ও ছিদ্দিক আহম্মদের ছেলে, নুরুর নেতৃত্বে ৭/৮ জন সন্ত্রাসী বাহিনী ৫ অক্টোবর শনিবার রাতের আধারে তাদের (বাবু সিকাদারের) সবুজ ধান কেটে সাবাড় করে পার্শ্ববর্তী নদীতে পেলে দিয়েছে বলে অভিযোগ করেন।
কি কারনে এমন ভাবে ধানের সাথে নিষ্ঠুরতা প্রদর্শন করলো জানতে চাইলে বাবু সিকদারসহ স্থানীয়রা জানান, আবদুল্লাহরা এলাকায় প্রভাব বিস্তার করে বাবু সিকদারদের পূর্ব পুরুষের জমি দখলে নিতে মরিয়া হয়েছে। এর আগেও ওই আবদুল্লাহ তাদের ক্ষেত খামার গুড়িয়ে দিয়েছিলো বলে অভিযোগ করেন জাহানগীর সিকদার। এ ঘটনায় তারা সংশ্লিষ্ট প্রশাসন সহ সকলের সহযোগিতা কামানা করেন।
এই ব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত আজিজের মোবাইল ফোন ০১৮২৩৯৬৯৩৩৭তে, কথা বলা হলে, তিনি অভিযোগ স্বীকার করে বলেন, যে জমি থেকে ধান কেটে ফেলা হয়েছে ওই জমিটি তাদের নামে কাগজ পত্র।
এক প্রশ্নের জবাবে আজিজ জানান, তাদের জমিতে ধান রোপন করছে  তাই তারা ওই ধান কেটে দিয়েছেন।
এক পর্যায়ে তিনি প্রতিবেদককে বিচারটি ফায়সালা করে দেওয়ার কথা বলেন।
এই ব্যাপারে রামু থানার ওসি তদন্ত মিজানুর রহমান জানান, অভিযোগ পেলে পুলিশ দতন্ত করে ব্যবস্থা নিবেন।