ইমাম খাইর, সিবিএন:

গত কয়েক দিনের টানা বর্ষণে প্লাবিত হয়েছে চকরিয়া উপজেলার লক্ষ্যারচর ইউনিয়নের প্রায় ৫০০০ পরিবার। অধিকাংশ ঘরবাড়ি এখনও পানিতে নিমজ্জিত। বন্যা কবলিতদের জন্য পৌঁছেনি সরকারি-বেসরকারি ত্রাণ সহায়তা। খাবার ও পানীয় জলের সংকট দেখা দিয়েছে কবলিত এলাকায়।

এদিকে, দুর্গতদের জন্য নিজস্ব অর্থায়নে তৈরি করা খাবার নিয়ে ছুটে গেলেন চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা কাইছার।

শুক্রবার (১২ জুলাই) সকাল থেকে এসব দুর্গত মানুষের ঘরে ঘরে তিনি নিজেই খাবার পৌঁছিয়ে দেন।

স্থানীয় বাসিন্দারা জানিয়েছেন, গত তিন দিনের টানা বর্ষণে ইউনিয়নের প্রায় ঘর বাড়িতে পানি উঠেছে। স্তব্ধ জীবন যাত্রা, বন্ধ হয়ে গেছে রান্নাবান্না। দুর্গতদের করুণ দশা দেখে চোখে ঘুম নেই সাবেক ছাত্রনেতা কাইছারের। সরকারিভাবে কোনো ত্রাণ সহায়তা না পেলেও বসে থাকেননি। খাবার ঔষধপত্র দিয়েছেন অনেক পরিবারকে।
জানতে চাইলে চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা কাইছার বলেন, গত কয়েক দিনের বর্ষণে আমার পুরো ইউনিয়ন পানিতে নিমজ্জিত। অধিকাংশ পরিবারে রান্নাবান্না বন্ধ হয়ে গেছে। অবর্ণনীয় দুর্ভোগের রয়েছে এখানকার মানুষজন। খাবারের অভাবে অনেক গরীব অসহায় মানুষ হাহাকার করছে।

চেয়ারম্যান কাইছার বলেন, দুর্গত মানুষদের জন্য এখনো সরকারী সাহায্য বা বরাদ্দ আসেনি। খাবার ও পানীয় নিয়ে মানুষ খুবই কষ্টে আছে। দ্রুত ব্যবস্থা নিতে মাননীয় এমপি জাফর আলমসহ প্রশাসনের সর্বস্তরের কাছে আকুল আবেদন করছি।