পেকুয়া প্রতিনিধি:

পেকুয়ায় বালতির পানিতে ডুবে দেলোয়ার মোহাম্মদ নবাব নামে ১৫ মাস বয়সী এক শিশুর মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। রবিবার (২৩ জুন) সকাল ৯টার দিকে পেকুয়া সদর ইউনিয়নের পূর্ব গোঁয়াখালী গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত শিশু নবাব দৈনিক ভোরের কাগজ ও কক্সবাজারের স্থানীয় দৈনিক রূপসী গ্রামের পেকুয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি সাংবাদিক শাখাওয়াত হোসেন সুজনের ছেলে। রবিবার বিকালে নিহত সাংবাদিক পুত্র শিশু নবাবের জানাযা শেষে তাকে পারিবারিক কবরস্থানে দাফন করা হয়।

পুত্র শোকে মুহ্যুমান সাংবাদিক শাখাওয়াত হোসেন সুজন বলেন, সকালে আমি গোসল করার জন্য টিউবওয়েল থেকে বালতিতে পানি ভর্তি করি। ওই সময় আমার ছেলে নবাবও টিউবওয়েলে আসে। পরে আমি বাড়ির শ্রমিকদের কাজ তদারকি করার জন্য সেখানে গেলে হঠাৎ আমার শিশুপুত্র নবাব সবার অগোচরে ওই পানিভর্তি বালতিতে পড়ে যায়। ঘটনার পরপরই নবাবকে উদ্ধার করে স্থাণীয় চিকিৎসকের কাছে নিয়ে যাওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

নবাবের চাচা সাংবাদিক ইমরান হোসাইন বলেন, সাংবাদিক সুজন দুই মেয়ে এক ছেলের জনক। তার এ সন্তানদের মধ্যে ছেলে নবাব সবার ছোট এবং পরিবারের একমাত্র পুত্র সন্তান। তাই সে সবার কাছে আদর ভালোবাসা পাত্র ছিল। শিশু নবাবের অকাল মৃত্যু আমাদের পুরো পরিবারসহ সাংবাদিক মহলে শোকের ছায়া নেমে আসে।

সাংবাদিক শাখাওয়াত হোসেন সুজনের শিশুপুত্র দেলোয়ার মোহাম্মদ নবাবের মর্মান্তিক মৃত্যুর ঘটনায় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আবেগঘন ষ্ট্যাটার্স দিয়েছেন প্রথম আলো পত্রিকার চকরিয়া (কক্সবাজার) প্রতিনিধি ও পেকুয়া রিপোর্টার্স ইউনিটির প্রধান উপদেষ্টা সাংবাদিক এস এম হানিফ। তিনি তার ষ্ট্যাটার্সে লিখেন, ছোট্ট নবাব একটু আগে পানিতে পড়ে মারা গেছে। (ইন্না লিল্লাহি ওয়াইন্না ইলাহি রাজিউন)। গত রাতে (শনিবার) নবাবের সাথে কত খুনসুটি খেলেছি। পুরো ঘর মাতিয়ে রাখতো সে। সাংবাদিক সুজন ভাইয়ের বাবা মারা যাওয়ার পর এই নবাবের জন্ম। নবাবের চেহেরায় খুঁজে নিতেন বাবার স্মৃতি। আহা জীবন কত ছোট ! আল্লাহ এই নিষ্পাপ শিশুটিকে জান্নাতবাসী করুন।

এদিকে সাংবাদিক পুত্র নবাবের অকাল মৃত্যুতে পেকুয়া রিপোর্টার্স ইউনিটির প্রধান উপদেষ্টা সাংবাদিক এস এম হানিফ, সভাপতি মোহাম্মদ ফারুক, সহ-সভাপতি জালাল উদ্দিন, সাধারণ সম্পাদক ইমরান হোসাইন, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন, কোষাধ্যক্ষ মোহাম্মদ হিজবুল্লাহসহ সংগঠনের নেতৃবৃন্দ, পেকুয়ায় কর্মরত সাংবাদিক, রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ ও সরকারি-বেসকারী কর্মকর্তারাগন গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।