এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া :

চকরিয়ায় জালিয়াতির মাধ্যমে ভিসা বিক্রির ভূঁয়া চুক্তিপত্র তৈরির অভিযোগে আদালত বাদশা মিয়া নামের এক আদম ব্যবসায়ীকে কারাগারে পাঠিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার উপজেলা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের বিচারক মামলার শুনানী শেষে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। বাদশা মিয়া উপজেলার বদরখালী ইউনিয়নের ২নম্বর ব্লকের পশ্চিম নতুনঘোনা এলাকার মৃত এজাহার আহমদের ছেলে। তার বিরুদ্ধে ইতোপুর্বে আদালতে মামলাটি করেন প্রতারণার শিকার উপজেলার ফাসিয়াখালী ৩নম্বর ওয়ার্ডের উচিতারবিল এলাকার সাহের মোহাম্মদের ছেলে মিজানুর রহমান।

মামলার আর্জিতে বাদি মিজানুর রহমান জানান, আরব আমিরাতের একটি ভিসা দেয়ার নামে অভিযুক্ত বাদশা মিয়া তাঁর কাছ থেকে টাকা নিয়ে স্টাম্পের মাধ্যমে একটি চুক্তিপত্র করেন। পরে আজকাল করে ভিসা দেবে বলে প্রতারণা করে আসছেন। এরই প্রেক্ষিতে গতবছরের ১৩ ডিসেম্বর অভিযুক্ত বাদশা মিয়াসহ চারজনকে আসামি করে আদালতে মামলা দায়ের করেন ভুক্তভোগী মিজান।

আদালতের বিচারক বাদির নালিশী মামলাটি আমলে নিয়ে এব্যাপারে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য চকরিয়া থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন। পরে থানার এসআই আনোয়ার হোসেন তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরে একই আদালতে মিজানুর রহমান বাদী হয়ে আরো একটি মামলা (সি আর ৫২৪/১৭) দায়ের করেন বিবাদিদের বিরুদ্ধে।

সর্বশেষ মামলাটি তদন্তের জন্য আদালত উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেন। এরই প্রেক্ষিতে উপজেলা হিসাব রক্ষন কর্মকর্তা আখতার আহমদ সরেজমিন তদন্ত করে আদালতে প্রতিবেদন দাখিল করেন।

মামলার বাদি মিজানুর রহমান জানান, আদালতে সর্বশেষ প্রতিবেদনটি দাখিলের পর আদালতের বিচারক আসামি বাদশা মিয়াকে স্ব-শরীরে হাজির হতে নির্দেশ দেন। গতকাল মঙ্গলবার (৩ অক্টোবর) মামলার ধার্য্য তারিখে আসামি বাদশা মিয়া আদালতে হাজির হলে মামলার শুনানী শেষে আদালতের বিচারক তাকে (বাদশা মিয়া) জেলহাজতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলার আসামি বাদশা মিয়াকে কারাগারে পাঠানোর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন চকরিয়া উপজেলা সিনিয়র জুড়িসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতের সিএসআই মো. নাজমুল হক কামাল।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •