১ থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহণ, মজুদ ও বিক্রয় বন্ধ

এম.এ আজিজ রাসেল :

প্রধান প্রজনন মৌসুম মা-ইলিশ সংরক্ষণ কার্যক্রম-২০১৭ উপলক্ষে প্রস্তুতি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। জেলা মৎস্য কর্মকর্তা আবদুল আলীমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) আনোয়ারুল নাসের। বক্তব্য রাখেন জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও কক্সবাজার ফিশিংবোট মালিক সমিতির সভাপতি মুজিবুর রহমান চেয়ারম্যান, সহকারী পুলিশ (উখিয়া-টেকনাফ সার্কেল) চালাউ মারমা, মহেশখালী উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা আবুল কালাম, কোস্ট গার্ডের অধিনায়ক খলিলুর রহমান, বিএফডিসির ব্যবস্থাপক মোঃ শরীফুল ইসলাম ও বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের উর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. শফিকুর রহমান। বক্তারা বলেন, আর্শ্বিন মাসের ভরা পূর্নিমা তিথি ইলিশ মাছের ডিম ছাড়ার প্রধান মৌসুম। এসময়ে একটি পূর্ণ বয়স্ক বা পরিপক্ক ইলিশ মাছ থেকে এক মৌসুমে ২৫ লক্ষ ডিম পাওয়া যায়। তাই দেশের ইলিশ উৎপাদন বৃদ্ধিতে১ থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহণ, মজুদ ও বিক্রয় বন্ধ করে মা ইলিশকে ডিম ছাড়ার সুযোগ করে দিতে হবে। এ জন্য সকলের সম্মিলিত সহযোগিতা প্রয়োজন।

সভায় ২২ দিন ইলিশ আহরণ বন্ধে ১৫টি সিদ্ধান্তের খসড়া প্রস্তাবনা তুলে ধরা হয়। প্রস্তাবনা সমূহ হলো- ১/ হাট বাজার, মৎস্য অবতরণকেন্দ্র ও আড়তে উল্লেখিত তারিখে ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহণ, মজুদ ও বিক্রয় বন্ধ রাখা। এসব স্থানে নিয়মিত মনিটরিং করা হবে। ২/ হিমাগারে ২২ দিন পর্যন্ত মাছ ক্রয়, মজুদ ও বিক্রয় না করা। ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে হিমাগারের সর্বশেষ মজুদকৃত ইলিশের সংখ্যা জেলা মৎস্য কর্মকর্তাকে অবহিত করা। ৩/ পরিবহন গুলোতে ইলিশ মাছ পরিবহন ও বরফ নেয়া বন্ধ রাখা। ২২ দিন পর্যন্ত সড়ক ও নৌ-পথে অভিযান পরিচলনা করা হবে। ৫/ ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে সাগর থেকে সকল ফিশিংবোট ফিরে আসতে হবে। এ ব্যাপারে জেলা ফিশিংবোট মালিক সমিতি প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিবে। ৬/ ১ থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত সাগরে কোষ্ট গার্ড ও নৌ বাহিনীর টহল জোরদার করা হবে। ৭/ ১ থেকে ২২ অক্টোবর পর্যন্ত সকল বোট মালিক ও মাঝিদের নজরদারিতে রাখবে পুলিশ। এছাড়া বেধে দেয়া সময়ের মধ্যে সাগরে গেলে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। ৮/ ২২দিন পর্যন্ত মহেশখালী, কুতুবদিয়া, সদর, সাগরের গন্ডামারা ইলিশ প্রজনন ক্ষেত্রে নৌ-বাহিনীর টহল জাহাজ মোতায়েন করা। এছাড়া বিদেশী ট্রলারের উপর নজরদারি বাড়ানো। ৯/ মৎস্য আহরণ প্রতিরোধে বিজিবির চেক পোষ্টে সতর্ক থাকা। ১০/ ৩০ সেপ্টেম্বরের মধ্যে ফেরত আসা ফিশিংবোটের তালিকা জমা দেয়া। ১১/ ফিশিংবোটে জ্বালানী তেল না দেয়া। ১২/ সাগরে যাওয়ার জন্য কোন বোট মালিককে বরফ সরবরাহ না করা। শুধুমাত্র বাকঁখালীর অভ্যন্তরে থাকা বোটকে বরফ দেয়া যাবে। ১৩/ ১ থেকে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত মোবাইল কোট পরিচালনা করা। এ জন্য মাঠে থাকবে র‌্যাব, বিজিবি, পুলিশ, কোস্ট গার্ড ও নৌ-বাহিনী। ১৪/ ইলিশ মাছ আহরণ, পরিবহণ, মজুদ ও বিক্রয় বন্ধে ব্যাপক প্রচারণা চালানো। সর্বশেষ ১৫/ জেলা-উপজেলা পর্যায়ে এ ব্যাপারে সমন্বয় সভার ব্যবস্থা করা।

সর্বশেষ সংবাদ

ওসি মোয়াজ্জেম আদালতে

ভুঁয়া ফেসবুক আইডিতে অপপ্রচারকারী প্রতারককে ধরিয়ে দিন -লায়ন মুজিব

সিবিএন’র রেকর্ড: ২৪ ঘন্টায় এক প্রতিবেদন লক্ষাধিক শেয়ার!

ইতালিতে আন্তর্জাতিক ব্যাংকার সম্মেলনে শাহজাহান মনির

স্কুলে পাকা সিঁড়ি না থাকায় ঘটছে দুর্ঘটনা

ওসির দায়িত্ব পাচ্ছেন অ্যাডিশনাল এসপি

ট্রাম্পের নামে ইসরায়েলের অবৈধ বসতির উদ্বোধন

প্রথমবারের মতো মিয়ানমারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থানে জাতিসংঘ

ব্যক্তির অপকর্মের দায় কেন নেবে ইসলামিক ফাউন্ডেশন

আজ নির্বিঘ্নেই হবে বাংলাদেশের ম্যাচ!

ওসি মোয়াজ্জেমকে ফেনী পুলিশের কাছে হস্তান্তর

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের মাসিক সমন্বয় সভা

আমেরিকা-বাংলাদেশ প্রেসক্লাবের আজীবন সম্মাননা পেলেন নায়িকা মৌসুমী

পেটের দায়ে রিকশা চালাচ্ছে রুমানা!

৪৭ বছরের অন্ধকার থেকে মুক্ত হলো ৪৮ হাজার মানুষ

পুলিশের অভিযানে ১৭ আসামী গ্রেফতার

স্থানীয়দের নির্মাণকৌশল, ব্যবসায় দক্ষতা বিষয়ে প্রশিক্ষণ

উপাচার্যের দুর্নীতির অভিযোগ: দুদককে তথ্য দিচ্ছে চবি

চকরিয়ায় স্ত্রীর মামলায় সাজাপ্রাপ্ত স্বামী গ্রেফতার

৭ বছরের শিশু ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামী গ্রেফতার