cbn  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
নেকাব বা বোরকার মাধ্যমে চেহারা ঢাকার ফলে মুসলিম নারীকে যদি শনাক্ত করা না যায় তাহলেই জরিমানা গুনতে হবে। এমন ঘোষণা দিয়ে বেশ জোরেশোরে মাঠে নেমেছে অস্ট্রেলিয়া সরকার। আগামী ১ অক্টোবর থেকে দেশটিতে পাকাপাকিভাবে চালু হবে এই আইন।

সংবাদমাধ্যম দি ইনডিপেনডেন্টের প্রতিবেদন অনুযায়ী, নতুন এই আইনে বলা হয়, চেহারা ঢেকে যায়- এমন যেকোনো ধরনের পোশাক পরে জনসম্মুখে এলে তাঁকে এক হাজার ৫০০ টাকা (১৫০ ইউরো) জরিমানা করা হতে পারে। এ ছাড়া পুলিশ চাইলে সন্দেহজনক ব্যক্তির ঘটনাস্থলেই ওই ধরনের পোশাক খুলে ফেলতে হবে। এতে বাধা দিলে তাদের থানায় নিয়ে যাওয়া হবে।

চলতি বছরের মে মাসে নতুন এই আইন পাস করে অস্ট্রেলিয়ার সংসদ। এ সময় মুসলিমদের বিভিন্ন সংগঠন, বিরোধী দলের আইনজীবী, এমনকি দেশটির প্রেসিডেন্টও আইনটির বিরোধিতা করেন। আইনটি পাস হওয়ার ফলে নারীরা আদালত, স্কুল ও যানবাহনসহ বিভিন্ন জনাকীর্ণ স্থানে চেহারা ঢেকে চলাচল করতে পারবেন না। আইনটি অস্ট্রেলিয়ার পর্যটকদের জন্যও প্রযোজ্য।

মুখ ঢেকে যায় এমন কোনো জিনিসই জনসম্মুখে পরা যাবে না বলে জানিয়েছে সংসদ। হিজাব, নেকাব, বোরকাসহ এর আওতায় রয়েছে সার্জিক্যাল মাস্ক, সৌখিন পোশাক এবং মুখঢাকা টুপিও।

এ আইনের বিরোধিতা করে অস্ট্রেলিয়ার প্রেসিডেন্ট আলেক্সজান্ডার ভ্যান ডার বেলেন বলেন, নারীরা কে কী পোশাক পরবে সেটা তাঁর ব্যক্তিগত অধিকার। এ ছাড়া চলতি বছরের শুরুর দিকে সংসদের এ সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করে রাস্তায় নামে বিভিন্ন দল ও সংগঠন। তারা জানায়, নারীরা কী পরবে এটা তাদের একান্ত ব্যক্তিগত অধিকার।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •