রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দিন , তবে স্থায়ী বসবাসের সুযোগ নয়

হুমায়ূন কবির আজাদ :

আমাদের কক্সবাজারের সীমান্তবর্তী দেশ রাখাইন শাষিত মায়ানমার,আর ঐ দেশের শাষক হল শান্তিতে নোবেল বিজয়ী অং চান সুচি। তবে জনাবা কোন শান্তির জন্য নোবেল পেয়েছিল তা এখন বোঝাও মুশকিল। বৌদ্ধ বাণীতে বলা আছে অহিংসা পরম ধর্ম তবে রাখাইন রাজ্যে হিংসাত্নক কর্মকান্ড প্রতিনিয়ত চলতেই থাকে ঐ দেশের সংখ্যালঘু জাতি তথা রোহিঙ্গাদের উপর, তারই ধারাবাহিকথায় সদ্য সৃষ্টি হওয়া নির্যাতন তথা হত্যাযজ্ঞ ধর্ষণ রাহাজানি থেকে বাঁচতে স্বদেশের মায়া ত্যাগ করে দীর্ঘ দিন অর্ধাহারে অনাহারে থেকে কোন রকম জীবন নিয়ে পালিয়ে বিভিন্ন সীমান্ত দিয়ে অবৈধ অনুপ্রবেশ বৃদ্ধি করেই যাচ্ছে। যা আজ গুটিকয়েক করে আসতে আসতে ৬/৭ লক্ষ্যাধিক হয়ে দাড়িয়েছে, এই বিষয়ে কেউ কি একবার ভেবে দেখেছেন এর ভবিৎষত কি হতে পারে? আমরা আবেগ প্রবণ জাতি, রাখাইন রাজ্যে হওয়া এই বর্বরতাকে আমরা কত সুনিপুণ ভাবেইনা বিশ্বের দর্বারে পৌঁছে দিয়েছি। ত্রাণ দিয়ে বসবাসের স্থান দিয়ে আমরা কতবড় মানবিকতার পরিচয় দিয়েছি তা আজ বিশ্ববাসীর দৃষ্টিগোচর। মানবিকতার দ্বায়ে সুদূর তুরস্ক থেকে ছুটে এসেছিলেন তুরস্কের পার্সট লেডি এমেনি এরদোগান। সীমান্তে ছুটে এসেছেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী। ছুটে এসেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাসের নেতৃত্বে বিশেষ ত্রাণ টিম প্রথম পর্যায়ে প্রশাসনিক বাধাবিপত্তির মূখে পড়লেও পরর্বতীতে প্রশাসনিক বাধা অতিক্রম করে ত্রাণ দিয়ে ফিরেন। এতে করে রোহিঙ্গারা যেমন সাময়িক সুবিধা পাচ্ছে তেমনি করে অনেকের রাজনৈতিক সুবিধাও চোখে পড়ার মত। আবার সারজমিনে জানাযায় বিভিন্ন সীমন্তে অনেক অসাধু ব্যাক্তিরা নির্যাতিতদের কাছ থেকে টাকা পয়সা নিয়ে বণ বিভাগের আওতাধীন পাহাড় পর্বতে বসতি গড়ে দিতে ব্যাস্ত। যার খেসারত আগামীতে স্থানীয়দের দিতে হবে। এমনিতে এই সমুদ্র জনপথ অনেক বেশী জর্জরিত অতিথে পালিয়ে আসা রোহিঙ্গাদের অপরাধের মারপ্যাঁচে পড়ে।কক্সবাজারে সর্বসময় সংগঠিত হওয়া অপরাধ গুলো তাদের ধারাই সৃষ্টি, ইয়াবা আজ বিশ্বের কাছে মরণ নেশা হিসেবে পরিচিত যার অবৈধ অনুপ্রবেশ কিন্তু তাদের ধারাই হয়েছিল। চুরি ছিনতাই খুন রাহজানি সব ধরনের অপরাধে কিন্তু তাদের ভুমিকা চোখে পড়ার মত, তারা আবার বর্তমান সময়ে বিভিন্ন ভাবে বিভিন্ন রাজনৈতিক সংগঠনের নেতৃত্বেও চলে এসেছে যার কারণে স্থানীয়রা আজ বিভিন্নভাবে কোনটাসা। এখনো যদি এভাবে চলতে থাকে তাহলে আগামীতে স্থানীয়দের দূর্দশার শেষ থাকবে না। সুতরাং সর্বসাধারণের উদেশ্যে বলছি রোহিঙ্গাদের ত্রাণ দিন তবে স্থায়ী ভাবে বসবাসের সুযোগ নয়।

সর্বশেষ সংবাদ

চকরিয়ায় পুলিশের হাতে ইয়াবাসহ ২ পাচারকারী আটক

বদলে গেলো কক্সবাজার সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসা পদ্ধতি

‘নতুন যুগে’ প্রবেশ করলো কক্সবাজার সদর হাসপাতাল

ইসলামপুরে ৫ ট্রাক লবণ জব্দ, আমদানিকারক ও মিল মালিক সমিতি মুখোমুখি

কক্সবাজারে উন্নয়নের মহাযজ্ঞ বাস্তবায়ন করছে সরকার : সাংবাদিকদের ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া

উখিয়া সংবাদকর্মীর উপর ইয়াবা ব্যবসায়ীর হামলা

ট্রাম্পের কাছে করা অভিযোগের সাথে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটের কোন সম্পর্ক নেই : ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া

দৈনিক হিমছড়ি আয়োজিত বিশ্বকাপ কুইজের পুরষ্কার বিতরণ

রাজপথে নামুন, বিজয় সুনিশ্চিত ইনশাল্লাহ : নেতা-কর্মীদের উদ্দেশ্যে কাজল

উৎসব মুখর পরিবেশে কক্সভিশন লিমিটেডের এজিএম সম্পন্ন

‘পালংখালীতে নিরীহ লোকজনকে নির্যাতন ও বাড়ি ভাংচুর চালাচ্ছে কতিপয় বিজিবি সদস্য’

সাতকানিয়ায় বন্যা দুর্গত এলাকায় ত্রাণ সহায়তা দিলো লোহাগাড়ার হিলফুল ফুযুল

যেখানে বিএনপি, সেখানেই মৃত্যূঞ্জয়ী সালাহউদ্দিন

যুবকের উপর হামলা, মহেশখালী পৌরসভার সন্ত্রাসী জয়নালের বিরুদ্ধে মামলা

লায়ন মোহাম্মদ রিয়াজ উদ্দিন তারেককে পুষ্পিত অভিনন্দন

‘ছেলেধরা সন্দেহ হলে গণপিটুনি না দিয়ে পুলিশের হাতে দিন’

‘ইসকন’ নিষিদ্ধের দাবিতে কক্সবাজার ইসলামী যুবসেনা ও ছাত্রসেনার মানব বন্ধন

সুপারিশ কমিটির হাতে শাহপরীরদ্বীপের ৫ কিলোমিটার ভাঙ্গা সড়কটির কাজ

মুক্তিযোদ্ধা সুনিল দাশ ও আরতি ধরের মৃত্যুতে জেলা পূজা কমিটির শোক

চট্টগ্রামে ভোলাইয়া গ্রুপের অজ্ঞান পার্টির চার সদস্য গ্রেফতার