class="post-template-default single single-post postid-96234 single-format-standard custom-background">

রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী

90e4509daf85d6a8944569a3ce552eba-5836c68595ebf.jpg

ডেস্ক নিউজ:

পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলীরোহিঙ্গা শরণার্থীদের অবস্থা সরেজমিনে দেখাতে বাংলাদেশে অবস্থিত বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) কক্সবাজারে যাচ্ছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এএইচ মাহমুদ আলী। সেখানে এক বা একাধিক রোহিঙ্গা শরণার্থী শিবির পরিদর্শন করবেন তারা। বুধবার সকালে একটি চার্টার্ড প্লেনে করে তারা কক্সবাজারের উদ্দেশ্যে রওনা হয়ে বিকালে আবার ঢাকায় ফেরত আসবেন।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ৪০টির বেশি দেশের রাষ্ট্রদূত অথবা ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত এবং জাতিসংঘের কয়েকটি সংস্থার প্রধানরা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে কক্সবাজারে যাচ্ছেন।

তিনি বলেন,রাষ্ট্রদূতরা কুতুপালং ক্যাম্পসহ আরও কয়েকটি ক্যাম্প পরিদর্শন করতে পারেন।

এর আগে রবিবার বিদেশি রাষ্ট্রদূতদের রোহিঙ্গা ইস্যুতে এক ব্রিফিং শেষে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী সাংবাদিকদের বলেন, তিনি রোহিঙ্গা শরণার্থীদের অবস্থা সরেজমিনে দেখাতে রাষ্ট্রদূতদের নিয়ে কক্সবাজারে যাবেন।

গত ২৫ আগস্ট রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমারের সামরিক বাহিনীর হামলা শুরু হলে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থার হিসাব অনুযায়ী মঙ্গলবার পর্যন্ত ৩ লাখ ৭০ হাজার রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয়ের জন্য এসেছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একজন কর্মকর্তা বলেন,রোহিঙ্গা সমস্যা নিয়ে আমরা আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে নিবিড় যোগাযোগ রাখছি।রবি ও সোমবার আমরা ঢাকায় অবস্থিত সব রাষ্ট্রদূত ও জাতিসংঘের সাহায্য সংস্থার প্রধানদের রোহিঙ্গা ইস্যুটি ব্রিফ করেছি এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় আমাদের সহায়তার প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

জাতিসংঘের রোহিঙ্গা ইস্যু

জাতিসংঘের ৭২তম অধিবেশনে রোহিঙ্গা ইস্যু জোরালোভাবে উপস্থাপন করবে বাংলাদেশ।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আরেক কর্মকর্তা জানান,সাধারণ অধিবেশন আজ মঙ্গলবার শুরু হলেও উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক শুরু হবে ১৯ সেপ্টেম্বর থেকে।

নিউইয়র্কে ওআইসির কনট্যাক্ট গ্রুপের উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক আগামী সপ্তাহে হবে বলেও ওই কর্মকর্তা জানান।

এছাড়া জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে এ সপ্তাহে রুদ্ধদ্বার বৈঠক হবে বলেও আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে।

এর আগে আগস্টের ৩০ তারিখে নিরাপত্তা পরিষদে যুক্তরাজ্যের আগ্রহের পরিপ্রেক্ষিতে রোহিঙ্গা ইস্যুতে একটি আলোচনা হয় এবং সেখানে চলমান সহিংসতা নিয়ে আলোচনা হয়।

Top