আব্দুর রশিদ, বাইশারী:
বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম-তুমব্রো সীমান্তের পর এবার উপজেলার সদর ইউনিয়নের আসারতলী সীমান্তে স্থল মাইন বিষ্ফোরণে মোক্তার আহমদ (৪০) নামের এক রোহিঙ্গা নাগরিকের মৃত্যু হয়েছে। মাইন বিস্ফোরণে তার ডান পায়ের তালু উড়ে যায় এবং বাম পা ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়।
১১ সেপ্টেম্বর সোমবার দিবাগত রাত ১১টা ৩০ মিনিটের দিকে বাংলাদেশ-মিয়ানমার সীমান্তের ৪৬নং পিলারের কাছে এ ঘটনা ঘটে। নিহত মোক্তার আহমদ মিয়ানমারের বুসিডং জেলার ফকিরাবাজার গ্রামের আবদু সালামের পুত্র।
ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার সদর ইউপি চেয়ারম্যান তসলিম ইকবাল চৌধুরী জানান, স্থল মাইন বিষ্ফোরণে ওই ব্যক্তির ডান পায়ের তালু উড়ে যায় এবং বাম পা ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। তাকে গুরুতর আশংঙ্কাজনক অবস্থায় রাত একটার দিকে নাইক্ষ্যংছড়ি স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পাঠানো হয়েছে।
স্থানীয়রা জানান, ১১ সেপ্টেম্বর সোমবার গভীর রাতে মিয়ানমার থেকে পালিয়ে পরিবারের অন্যান্য সদস্যদের নিয়ে আশ্রয় নিতে সীমান্তের আসারতলী এলাকায় প্রবেশ পথের জিরো পয়েন্টে পুঁতে রাখা মিয়ানমার সেনাবাহিনীর স্থল মাইন বিষ্ফোরণে মোক্তার আহমদের ডান পায়ের তালু উড়ে যায় এবং বাম পা ছিন্নভিন্ন হয়ে যায়। পরে আত্মীয় স্বজনরা উদ্ধার পূর্বক গুরুতর আশংঙ্কাজনক অবস্থায় নাইক্ষ্যংছড়ি সদর স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।
১১ সেপ্টেম্বর সোমবার দিবাগত রাত ১টা ৩০ মিনিটের সময় নাইক্ষ্যংছড়ি সদর হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডাক্তার সালমান করিম খাঁন মোক্তার আহমদের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
উক্ত ঘটনায় রোহিঙ্গ্যা সহ সীমান্তে বসবাসকারীদের মাঝে আতংক বিরাজ করেছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •