মেরিন ড্রাইভ সড়কের জমির টাকা উত্তোলনে অনিয়ম

আব্দুল আলীম নোবেল:

কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ সড়কে অধিগ্রহণের টাকা উত্তোলন নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ ওঠেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রকৃত জমি মালিকরা। খোদ প্রধানমন্ত্রী গত ৬ মে মেরিন ড্রাইভ সড়ক উদ্ধোধন করে গেলেও এখন জমি অধিগ্রহনের টাকা পায়নি শত শত জমির ওয়ারিশ। এর মাঝে একজনের জমি অন্যজনের নামে,ভুল নোটিশ প্রধান,জমির শ্রেণী পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সমস্যা,জমি থাকা সত্বেও কোন নোটিশ না পাওয়া,ফাইল জটিলতা, জমির সঠিক পরিমান না আসা, কিছু ক্ষেত্রে জমি অধিগ্রহণ হয়েও কোন কাগজ পত্র না পাওয়া, দালাল চক্রের অপতপরতা, অফিসের কার্মচারিদের অনিয়ম ও দুরব্যবহারসহ নানাভাবে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে প্রকৃত জমি মালিকারা। কিছু আসাধু সার্ভেয়াও ও কানগোসহ বেশ কিছু দালাল চক্রের কারণে এমনটি হচ্ছে বলে সূত্রে জানাগেছে।

টেকনাফ উপজেলা বড়ডেইল মৌজার মারিশবনিয়া এলাকার বাসিন্দা জমি মালিক মো. শামসুল আলম জানান,বি.এস খতিয়ান নং-১৬ বি.এস ২০০১ নং দাগের আন্দর০.০৭২৭ একর জমির ওয়ারিশ সূত্রে প্রকৃত মালিক হওয়া সত্বেও ওয়ারিশের নামে কোন ধারার নোটিশ হয়নি তাদের। অতচ সম্পূর্ণ দাগ খতিয়ান,টেস্য ম্যাপ মুলে মেরিন ড্রাইভ সড়কে উপর তাদের জমি পড়েছে। অপর দিকে রোয়েদাদ নং-১৩৮.যার এল এ মামলা নং-০৮/২০১৪-২০১৫. যে খানে তাদের ওয়ারিশের নামে নোটিশ হওয়ার কথা সেখানে কথিত আজিজুর রহমান,ছৈয়দুর রহমা,ছবর মিয়া,নুরুল ইসলাম,রহিমা খাতুন,কালা ভানু, ফরিদ ভানুর নামে এই পর্যন্ত ৭ ধারার নোটিশ জারি করা হয়েছে। কি করে এত বড় অনিয়ম হয় এমন প্রশ্ন ভোক্তভোগিদের। এঘটনায় জমি মালিক মো.শামসুল আলম ও আব্দুল হামিদ স্বাক্ষরিত কক্সবাজার ভুমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা বরাবরে গত ২৭ আগষ্ট একটি লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছে। এর পরেও রহস্যজনক কারণে এটির কোন সুরহা হয়নি। উল্টো ওই চক্রের লোকজনের সহযোগিতায় গত শনিবার জমি সার্ভে করতে যায় ওই এলাকায়। ওই সময় প্রকৃত মালিক পক্ষের লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে সটকে পড়ে জমি সার্ভে করতে যাওয়া লোকজন।

এই বিষয়ে কক্সবাজার ভুমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা (এলও) আবু আসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, যারা কাগজে পত্রে জমির মালিক তারাই মুলত জমি পাবে। অন্য কেউ এই জমির মালিক হতে পারে না।

বড়ডেইল মৌজার দায়িত্বে থাকা কানুনগো আব্দুল বাতেনের সাথে কথা বলে তিনি জানান, এই বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তাহলে এই কানুনগোর কাজ কি এমন প্রশ্ন অনেকের। বিষয়টি রহস্যজনক কোনভাবে এই কানুনগো দায় এড়াতে পারে না। অপর দিকে সার্ভেয়ার এমদাদুল হকের সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোহ করে ফোন রিসিভ করেননি তিনি।

মহেশখালী কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের টাকা উত্তোলনের বিষয়ে দুর্নীতি করায় কক্সবাজারের সাবেক ডিসি,এডিসিসহ আরো বেশ কয়েক জন কর্মকর্তা জেলে গেলেও এখনও গাপটি মেরে বসে আছে আরেক দুর্নীতিবাজ চক্র। এক্ষেত্রে অনিয়ম ঠেকাতে জেলা প্রশাসক কঠোর হলেও এখনও হয়রানির শিকার হচ্ছে প্রকৃত জমি মালিকরা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক জমি মালিক জানান, নানা জটিলা দেখিয়ে দিনের পর দিন ঘুর ঘুর করতে হয় নিরহ ও সাধরণও জমি মালিকদের। দালাল চক্রের সাথে আতাত করলেও কাজ হয়ে যায় খুব দ্রুত। এমন অনিয়ম ঠেকাতে আরো জোরালো ভুমিকা কামনা করছেন সচেতন জমির ওয়ারিশগণ।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

রোববার থেকে বিএনপির সাক্ষাৎকার শুরু

মিয়ানমারে শতাধিক রোহিঙ্গা গ্রেফতার

বিএনপি নেতা আবু সুফিয়ান (চট্টগ্রাম-৮) আসনে মনোনয়নপত্র নিলেন

কক্সবাজার-২ আসনে কারাবন্দী আবুবকরের পক্ষে মনোনয়ন ফরম জমা

ঈদগাঁওতে ইউনিক পরিবহন ও টমটমের মুখোমুখি সংঘর্ষে আহত ৪

চবির ‘প্রফেসর’ পদোন্নতি পেলেন কক্সবাজারের হাসমত আলী

খুটাখালীর মহাসড়ক কিনারায় অবৈধ ভাসমান দোকানপাট উচ্ছেদ

চবিতে গণিত বিভাগের ২দিন ব্যাপী সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠান শুরু

১৯দিন ব্যাপী চুনতির সীরত মাহফিল ১৯ নভেম্বর

ভারত থেকে বাংলাদেশে প্রবেশের সময় শিশুসহ ৪১ জন আটক

গর্জনিয়ার জমিদার ফরুক আহমদ শিকদারের সহধর্মিনীর ইন্তেকাল

মালিকবিহীন ৪০ হাজার ইয়াবা উদ্ধার

আকিদা ঠিক করেন, সব ঠিক হয়ে যাবে -শাহ আহমদ শফি

গাজাসহ ডিআরসি কর্মকর্তা আটক

কক্সবাজার-৩ আসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের চূড়ান্ত প্রার্থী আলহাজ্ব ডাঃ মুহাম্মদ আমীন

চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে আধুনিক সিটি স্ক্যান মেশিন

খাশোগি হত্যায় ৫ সৌদি কর্মকর্তার ফাঁসির আদেশ

কেন শুরু হলো না রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন?

মেরিন ড্রাইভ সড়কে যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ

জুমার দিনের দোয়া: নাজিমরা ফিরে আসুক কল্যাণের পথে