মেরিন ড্রাইভ সড়কের জমির টাকা উত্তোলনে অনিয়ম

আব্দুল আলীম নোবেল:

কক্সবাজার মেরিন ড্রাইভ সড়কে অধিগ্রহণের টাকা উত্তোলন নিয়ে অনিয়মের অভিযোগ ওঠেছে। এতে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে প্রকৃত জমি মালিকরা। খোদ প্রধানমন্ত্রী গত ৬ মে মেরিন ড্রাইভ সড়ক উদ্ধোধন করে গেলেও এখন জমি অধিগ্রহনের টাকা পায়নি শত শত জমির ওয়ারিশ। এর মাঝে একজনের জমি অন্যজনের নামে,ভুল নোটিশ প্রধান,জমির শ্রেণী পরিবর্তনের ক্ষেত্রে সমস্যা,জমি থাকা সত্বেও কোন নোটিশ না পাওয়া,ফাইল জটিলতা, জমির সঠিক পরিমান না আসা, কিছু ক্ষেত্রে জমি অধিগ্রহণ হয়েও কোন কাগজ পত্র না পাওয়া, দালাল চক্রের অপতপরতা, অফিসের কার্মচারিদের অনিয়ম ও দুরব্যবহারসহ নানাভাবে ভোগান্তির শিকার হচ্ছে প্রকৃত জমি মালিকারা। কিছু আসাধু সার্ভেয়াও ও কানগোসহ বেশ কিছু দালাল চক্রের কারণে এমনটি হচ্ছে বলে সূত্রে জানাগেছে।

টেকনাফ উপজেলা বড়ডেইল মৌজার মারিশবনিয়া এলাকার বাসিন্দা জমি মালিক মো. শামসুল আলম জানান,বি.এস খতিয়ান নং-১৬ বি.এস ২০০১ নং দাগের আন্দর০.০৭২৭ একর জমির ওয়ারিশ সূত্রে প্রকৃত মালিক হওয়া সত্বেও ওয়ারিশের নামে কোন ধারার নোটিশ হয়নি তাদের। অতচ সম্পূর্ণ দাগ খতিয়ান,টেস্য ম্যাপ মুলে মেরিন ড্রাইভ সড়কে উপর তাদের জমি পড়েছে। অপর দিকে রোয়েদাদ নং-১৩৮.যার এল এ মামলা নং-০৮/২০১৪-২০১৫. যে খানে তাদের ওয়ারিশের নামে নোটিশ হওয়ার কথা সেখানে কথিত আজিজুর রহমান,ছৈয়দুর রহমা,ছবর মিয়া,নুরুল ইসলাম,রহিমা খাতুন,কালা ভানু, ফরিদ ভানুর নামে এই পর্যন্ত ৭ ধারার নোটিশ জারি করা হয়েছে। কি করে এত বড় অনিয়ম হয় এমন প্রশ্ন ভোক্তভোগিদের। এঘটনায় জমি মালিক মো.শামসুল আলম ও আব্দুল হামিদ স্বাক্ষরিত কক্সবাজার ভুমি অধিগ্রহন কর্মকর্তা বরাবরে গত ২৭ আগষ্ট একটি লিখিত অভিযোগও দায়ের করেছে। এর পরেও রহস্যজনক কারণে এটির কোন সুরহা হয়নি। উল্টো ওই চক্রের লোকজনের সহযোগিতায় গত শনিবার জমি সার্ভে করতে যায় ওই এলাকায়। ওই সময় প্রকৃত মালিক পক্ষের লোকজনের উপস্থিতি টের পেয়ে সটকে পড়ে জমি সার্ভে করতে যাওয়া লোকজন।

এই বিষয়ে কক্সবাজার ভুমি অধিগ্রহণ কর্মকর্তা (এলও) আবু আসলামের সাথে কথা বললে তিনি জানান, যারা কাগজে পত্রে জমির মালিক তারাই মুলত জমি পাবে। অন্য কেউ এই জমির মালিক হতে পারে না।

বড়ডেইল মৌজার দায়িত্বে থাকা কানুনগো আব্দুল বাতেনের সাথে কথা বলে তিনি জানান, এই বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। তাহলে এই কানুনগোর কাজ কি এমন প্রশ্ন অনেকের। বিষয়টি রহস্যজনক কোনভাবে এই কানুনগো দায় এড়াতে পারে না। অপর দিকে সার্ভেয়ার এমদাদুল হকের সাথে একাধিকবার মোবাইলে যোগাযোহ করে ফোন রিসিভ করেননি তিনি।

মহেশখালী কয়লা বিদ্যুৎ প্রকল্পের টাকা উত্তোলনের বিষয়ে দুর্নীতি করায় কক্সবাজারের সাবেক ডিসি,এডিসিসহ আরো বেশ কয়েক জন কর্মকর্তা জেলে গেলেও এখনও গাপটি মেরে বসে আছে আরেক দুর্নীতিবাজ চক্র। এক্ষেত্রে অনিয়ম ঠেকাতে জেলা প্রশাসক কঠোর হলেও এখনও হয়রানির শিকার হচ্ছে প্রকৃত জমি মালিকরা। নাম প্রকাশ না করার শর্তে এক জমি মালিক জানান, নানা জটিলা দেখিয়ে দিনের পর দিন ঘুর ঘুর করতে হয় নিরহ ও সাধরণও জমি মালিকদের। দালাল চক্রের সাথে আতাত করলেও কাজ হয়ে যায় খুব দ্রুত। এমন অনিয়ম ঠেকাতে আরো জোরালো ভুমিকা কামনা করছেন সচেতন জমির ওয়ারিশগণ।

সর্বশেষ সংবাদ

কাশ্মিরের বিশেষ মর্যাদা বাতিলের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে চ্যালেঞ্জ সাবেক সেনা কর্মকর্তার

‘ডেঙ্গু মোকাবিলায় আগামী সপ্তাহটা চ্যালেঞ্জিং’

বৃহস্পতিবার থেকে বন্ধ হচ্ছে ফেসবুক গ্রুপ চ্যাট

কাশ্মীর নিয়ে মোদির চতুর্মুখী নীলনকশা

খালেদার মুক্তিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছে যাবে বিএনপি

কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলন: পদ প্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ

হাজিদের প্রথম ফিরতি ফ্লাইটে ৪১৮ যাত্রী দেশে পৌঁছেছে

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে প্রস্তুত কেরণতলী ঘাট

নয়া জমানার নয়া হেয়ার স্টাইল !

টেকপাড়ায় সরকারী কর্মকর্তার বসতবাড়িতে হামলার অভিযোগ

লুৎফুর রহমানের মৃত্যুতে ব্লাড ডোনার’স সোসাইটির প্রতিষ্ঠাতা সফি উল করিমের শোক

ইসলামপুরের যুবলীগ কর্মী লুৎফুর রহমান আর বেঁচে নেই, সকাল ১০ টায় জানাজা

মক্কায় জসিম উদ্দীন মিয়াজী স্মরণে দোয়া মাহফিল

মার্শাল চেয়ারম্যান ও তোফায়েল বে অফ বেঙ্গল ক্রুজ লাইন এসোসিয়েট এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক নির্বাচিত

সৌদিআরবে সড়ক দুর্ঘটনায় বাংলাদেশি নিহত

সৌদি তেলক্ষেত্রে ড্রোন হামলা

মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নির্যাতন তদন্ত দল ঢাকায়

ভারুয়াখালী ছোট চৌধুরীপাড়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদ ও সমাজ পরিচালনা কমিটি গঠিত

মহেশখালীতে জমি দখলকে কেন্দ্র করে যুবক আহত

ইসলামী ব্যাংকের পল্লী উন্নয়ন প্রকল্পের দ্বি-বার্ষিক সম্মেলন