জাহেদুল ইসলাম, লোহাগাড়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধিঃ

চট্টগ্রামের লোহাগাড়ার পুটিবিলায় স্থানীয় জনতার হাতে ১০ সেপ্টেম্বর সকালে মুহাম্মদ শহীদুল্লাহ (২৮) নামের এক যুবককে আটক হয়েছে বলে সংবাদ পাওয়া গেছে। সে পুটিবিলা পহরচাঁন্দা এলকার জাফর আহমদের পুত্র বলে জানা গেছে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, পুটিবিলা পহরচাঁন্দা এলাকার রহিমের দোকান এলাকায় প্রকাশ্যে দিবালোকে অস্ত্রনিয়ে চলাচল করলে স্থানীয়রা শহীদকে কারণ জানতে চাইলে ক্ষেপে ওঠেন। সেখানেই গণধোলায়ে শিকার হন। পরে স্থানীয়রা পুলিশে খবর দিলে পুলিশ ঘটনাস্থল হতে একটি দেসীয় তৈরী অস্ত্র, ৪টি তাজা কার্তুজ ও চুরিসহ শহীদকে আটক করে থানায় নিয়ে আসে।

পুটিবিলা ইউপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান কাজল বড়ুয়া বলেন, একটি সালিসী বৈঠকে ঘটনার সময় সকালে শহীদুল্লাহ অস্ত্র নিয়ে প্রকাশ্যভাবে এলাকার লোকজনকে হুমকি-ধমকি প্রদান করেন। এ সময় স্থানীয় জনতা তার হাতে অস্ত্র দেখতে পেলে গণধোলাই দিয়ে আটক করে। আটক শহীদুল্লাহ এলাকার দুর্ধর্ষ সন্ত্রাসী এবং বিভিন্ন অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত বলেও জানান।

আটক শহীদুল্লাহ জানান, এলাকার ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ নেতা আবুল বশরের পুত্র আবদুস শুক্কুরকে হত্যা করার জন্য আবদুস সালাম আমাকে ৫০ হাজার টাকা দিবে বলেন। সে আমাকে এলজি বন্দুক ও ৪রাউন্ড তাজা গুলিসহ ১০হাজার টাকা প্রদান করে এবং তাকে হত্যা করতে পারলে বাকী ৪০ হাজার টাকা দিবে বলেও  জানান।
খবর পেয়ে লোহাগাড়া থানার ওসি মুহাম্মদ শাহজাহান পিপিএম(বার)’র নির্দেশে লোহাগাড়া থানার এসআই লিটন চন্দ্র সিংহ ও এসআই মুফিজুল ইসলামের নেতৃত্বে একটি পুলিশেরর দল ঘটনাস্থলে পৌছে হাতে নাতে দেশীয় তৈরী ১টি এলজি,৪রাউন্ড তাজা গুলিসহ তাকে উদ্ধার করা হয়। থানা পুলিশের হেফাজতে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে তাকে প্রাথমিক চিকিৎসার পর থানার হেফাজতে নিয়ে আসে।
লোহাগাড়া থানার ওসি শাহজাহান পিপিএম(বার) জানান, আটককৃতকে স্থানীয়দের সহায়তায় আটক করতে সক্ষম হয়েছি। আটককৃত সহীদের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে এবং জড়িতদেরও আইনের আওতায় আনা হবে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •