‘গুলিবিদ্ধ’ নূর বাঁচলেও হারিয়েছেন পরিবারের সাতজনকে

বাংলাট্রিবিউন:
সৈয়দ নূর (২২), মংডুর সাহেববাজার এলাকায় পরিবারের সঙ্গেই থাকতেন। ২৫ আগস্ট রাতে তাদের বাড়িতে হঠাৎ আগুন দেয় সেনাবাহিনী। আগুনের সঙ্গে সঙ্গে চারপাশ দিয়ে অবিরাম গুলিও চালানো হয়। অধিকাংশই তখন ঘর থেকে বের হতে পারেনি। আগুনে পুড়ে ও সেনাবাহিনীর গুলিতে সেদিন রাতে তার পরিবারের সাতজন মারা যায়। দৌড়ে পালানোর সময় তিনিও গুলিবিদ্ধ হন।

পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারবিবার ভোরে উখিয়ার বালুখালীর ঢাল পাহাড়ে বাংলা ট্রিবিউন প্রতিবেদকের কথা হয় তার সঙ্গে। নূরের বর্ণনায় পাওয়া যায় ২৫ আগস্টের সেই ভয়াল রাতে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর নৃশংসতা, নিষ্ঠুরতা ও বর্বরতার পরিচয়।
নূর হোসেন বলেন, ‘আমি অন্যের জমিতে কৃষিকাজ করি। সারাদিন কাজ করার পর ক্লান্ত শরীরে ঘুমিয়েছিলাম। হঠাৎ আগুন, বাইরে থেকে গুলি। দৌড়ে পালানোর চেষ্টা করে সবাই, কিন্তু বের হয়ে অনেকেই গুলিবিদ্ধ হয়। সেখানে আমার পরিবারের সাতজন মারা গেছে।’

নূরের ভাই আব্বিরিয়া, সৈয়দ, মো. ইউনূচ, ওছি, রামুয়া সবাই গুলিতে মারা যায় ওইদিন রাতে। এছাড়াও তার মা-বাবা মারা যায়। তিনি স্ত্রী ও দুই ছেলে-মেয়ে নিয়ে বের হয়ে আসেন। তার স্ত্রী হাসেনা বেগম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ঘর থেকে যখন আমরা বাচ্চা নিয়ে দৌড় দেই তখন গুলি করে। হাতে গুলি লাগে তারপরও দৌড়ে পালাই।’

নূর হোসেনের সঙ্গে কথা বলার সময় তার পাশেই ছিলেন আরেক নারী রাবেয়া খাতুন। মংডুর বলিবাজার এলাকায় তিনি স্বামী ও পরিবার নিয়েই থাকতেন। স্বামী হারুণ আমিন কৃষি কাজ করতেন। তাকেও ২৫ আগস্ট রাতে গুলি করে মিয়ানমার সেনাবাহিনী হত্যা করেছে, বলে জানান রাবেয়া।

গুলিবিদ্ধ নূররাবেয়া খাতুন বলেন, ‘আমরা দুই বোন বাচ্চাদের নিয়ে এখানে পালিয়ে এসেছি। সবাই যেদিকে হাঁটছে সেদিকে হেঁটে হেঁটে বাংলাদেশে আসছি। নদী, পাহাড় সব পার হয়ে চলে আসছি।’ রাবেয়ার বোন মাবিয়া খাতুন। তিনিও বলিবাজার এলাকায় থাকতেন। তার স্বামীর নাম নজরুল ইসলাম। তাকেও গুলি করে হত্যা করা হয়েছে।

নুরুল আমিন (৩২)। মিয়ানমারের মংডুর বলিবাজারের তুলাতলী এলাকায় থাকতেন। তার তিন সন্তান, স্ত্রী রমিজা খাতুন মারা গেছেন। তিনি একা বাংলাদেশে আসছেন।

রাখাইন রাজ্যের বুচিদং এলাকার একটি প্রাইমারি স্কুলের শিক্ষক মো. রাশেদ (২৬)। গত ৬ সেপ্টেম্বর লম্বাবিল সীমান্ত দিয়ে টেকনাফে প্রবেশ করেন। বর্তমানে উনচি প্রাং নতুন ক্যাম্পে আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘ঘর-বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি গুলিও করেছে। এতে অনেক মানুষ মারা গেছে। মানুষ যখন দৌড়ায় তখন সেনাবাহিনী গুলি করতে থাকে। আর কাছে পেলে হাত-পা বেঁধে মাটিতে ফেলে জবাই করে অথবা বুকে বন্দুক ঠেকিয়ে গুলি করে।’

প্রসঙ্গত, মিয়ানমার সেনাবাহিনী গত ২৫ অক্টোবর থেকে রাখাইনে গণহত্যা শুরু করলে টেকনাফ সীমান্ত দিয়ে বাংলাদেশে আসা শুরু করে রোহিঙ্গারা। এর আগে গত ২৪ আগস্ট থেকে মিয়ানমার সেনাবাহিনী রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর অমানুষিক নির্যাতন চালায় বলে অভিযোগ করেন পালিয়ে আসা রোহিঙ্গারা।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

প্রিন্স সালমানই খাশোগিকে হত্যার নির্দেশ দিয়েছিলেন : সিআইএ

শতভাগ সুষ্ঠু নির্বাচন হবে না: কবিতা খানম

নির্যাতিত হয়ে সৌদি আরব থেকে ফেরত আসলেন ২৪ নারী কর্মী

মিয়ানমারের মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্ত করবে জাতিসংঘ

চট্টগ্রামের প্রয়াত চারনেতার বিশেষত্ব ছিল এরা দুঃসময়ে সাহসী : নাছির

বদরখালীতে কিশোরের জুতার ভেতর থেকে ইয়াবা উদ্ধার

জাতীয়করণ হলো টেকনাফ এজাহার বালিকা উচ্চবিদ্যালয়

৪ বছরের শিশু নিহানকে বাঁচাতে এগিয়ে আসুন

অপরাধ দমনে চট্টগ্রামে আইপি ক্যামেরা বসাচ্ছে সিএমপি পুলিশ 

বিশ্ব ইজতেমা স্থগিত হয়নি: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়

রামুতে ৩৮ হাজার ইয়াবার ট্রাক সহ আটক ২

খুরুস্কুল বাসীকে কাঁদিয়ে চির বিদায় নিল মেধাবী ছাত্র মিশুক

টেকনাফে অভিযানেও থামছে না ৩ ভাইয়ের ইয়াবা বানিজ্য

পেকুয়ায় চাঁদার দাবীতে দোকান সংস্কারে বাধা ও ভাংচুর

গণমাধ্যম ও সাংবাদিকদের সহযোগিতা চেয়েছেন মেয়র মুজিবুর রহমান

চকরিয়ায় সুরাজপুর আলোকশিখা পাঠাগার’র চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা পুরস্কার বিতরণ ও গুণীশিক্ষক সংবর্ধনা

কক্সবাজার ক্রীড়া লেখক সমিতির কমিটি গঠিত

সাংবাদিক বশিরের মাতার জানাযা সম্পন্ন বিভিন্নমহলের শোক

বিজিবি ক্যাম্প এলাকায় সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রামান্য চিত্র প্রদর্শন

টেকনাফ সাংবাদিক ফোরাম’র আহবায়ক কমিটি গঠিত