আমার উপর রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের বিরূপ প্রভাব

-সাদ্দাম হোসাইন

অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গাদের বিরূপ প্রভাব সীমান্তে বসবাসরত বাঙ্গালীরা কোন না কোন সময়ে ভোগ করে থাকেন। ইদানীং অনুপ্রবেশকারী রোহিঙ্গাদের কারণে আমার জীবনে ক্ষুদ্র এক প্রভাব নাভিশ্বাস তুলেছে। আগামীতে এই জাতীয় ঘটনারোধে প্রশাসনের হস্তক্ষেপ প্রয়োজন।

৮সেপ্টেম্বর সকালে শাহপরীর দ্বীপ এক আতœীয়ের বাড়ি হতে ঈদের বেড়ানো শেষ করে যানবাহনের অভাবে প্রায় ২কিলোমিটার হেটে হেটে নৌকা ধরার জন্য ঘাটে পৌঁছলাম। দেখি অসংখ্য রোহিঙ্গা ঘাটে জড়ো হয়ে রয়েছে। শাহপরীর দ্বীপের ভাঙ্গায় এসে আমরা দাদা-দাদী,বোনসহ নৌকার অপেক্ষায় রয়েছি। প্রতিটি নৌকায় কোন জায়গা খালি নেই। বেশী টাকা দিয়ে রোহিঙ্গারা নৌকা ভাড়া করে ফেলায় আমরা খুব অসহায় হয়ে পড়লাম। আমি কিভাবে পার হবো এই চিন্তায় এক থেকে দেড় ঘন্টা দাঁড়িয়ে রইলাম। এক নৌকার মাঝিকে বললাম ভাই আমাকে নিয়ে যাবেন? উত্তরে নৌকার মাঝি বলেন ভাই রিজার্ভ যেতে হবে । আমিও বলি ঠিক আছে রিজার্ভ যাব কত দিতে হবে বল? মাঝি আমার কাছ থেকে ১ হাজার টাকা দাবী করে বসে। তখন আমি নিরুপায় হয়ে অনেক মিনতি করে ৮শত টাকায় রাজি করলাম। কোন মতে ভাঙ্গা বেড়িবাঁধ পার হয়ে দেখি এখানেও রোহিঙ্গাদের একই অবস্থা। তা দেখে ভয়ে আস্তে আস্তে রাস্তার উপর দাঁঁড়িয়ে সিএনজির কাছে গিয়ে চালককে জিজ্ঞাসা করলাম। ভাই হ্নীলায় যাবেন? চালক বলে যাব কিন্তু ২ হাজার টাকা লাগবে। তখন আমি আরো কয়েকটি সিএনজির কাছে গেলে অন্য সিএনজি চালকেরা বলে আড়াই থেকে ৩হাজার টাকা দিতে হবে। এবার আমি চিন্তা করলাম এখানে রোহিঙ্গাদের কারণে পকেট খালি হলেও চড়া দামে বাধ্য হয়ে যেতে হবে। কোন প্রকারে ৮শ টাকায় টেকনাফ পৌর এলাকায় পৌঁছলাম। এখানে এসে দেখি যানবাহন সংকট আরো চরম এবং ভাড়া আরো বেশী। এই পৌর শহরে ২ঘন্টা চরম ভোগান্তি পোহানোর পর হ্নীলায় আসার জন্য একটি সিএনজির দেখা হয়। সিএনজি চালক ১হাজার টাকা ভাড়া হাকলেও শেষ পর্যন্ত ৮শত টাকায় হ্নীলায় আসতে বাধ্য হয়।

উল্লেখ্য,আগে শাহপরীর দ্বীপ ভাঙ্গা পার হতে রিজার্ভ নৌকা ২শ টাকা ও ভাঙ্গা থেকে টেকনাফ আসতে সিএনজি ভাড়া দেড়শ থেকে ২শ টাকা এবং টেকনাফ থেকে হ্নীলায় আসতে রিজার্ভ ২শ টাকা লাগত। এখন রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের কারণে যানবাহনের প্রতি সংশ্লিষ্টদের নিয়ন্ত্রণ না থাকায় এরা দিনের পর দিন বেপরোয়া হয়ে জনজীবনকে বিষিয়ে তুলেছে। রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশের বিরূপ প্রভাব এই প্রথম আমার জীবনে আসল। না জানি আমার মতো হাজার হাজার ভূক্তভোগীর করুণ পরিণতি কে লাঘব করবে? এই ব্যাপারে উপজেলা প্রশাসন ও আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কঠোর হস্তক্ষেপ দরকার বলে ভূক্তভোগীরা মনে করেন।

সংবাদ কর্মী , হ্নীলা , টেকনাফ।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

গাজাসহ ডিআরসি কর্মকর্তা আটক

কক্সবাজার-৩ আসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের চূড়ান্ত প্রার্থী আলহাজ্ব ডাঃ মুহাম্মদ আমীন

চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে আধুনিক সিটি স্ক্যান মেশিন

খাশোগি হত্যায় ৫ সৌদি কর্মকর্তার ফাঁসির আদেশ

কেন শুরু হলো না রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন?

মেরিন ড্রাইভ সড়কে যুবকের গুলিবিদ্ধ লাশ

পৌর কাউন্সিলর ইয়াসমিন আক্তার অসুস্থ : ফেসবুকে স্ট্যাটাস

জুমার দিনের দোয়া: নাজিমরা ফিরে আসুক কল্যাণের পথে

রোহিঙ্গাদের নিরাপত্তা-নজরদারিতে এবার আর্মড পুলিশের নতুন ব্যাটালিয়ন

তাবলিগ জামাতের দুই পক্ষের দ্বন্দ্ব, হচ্ছেনা বিশ্ব ইজতেমা

ঈদগাঁওতে পিএসপি পরীক্ষার্থীদের বিদায় সংবর্ধনা

দেশপ্রেমিক আদর্শ জনগোষ্ঠী তৈরী করছে কওমি মাদ্রাসা -আহমদ শফী

১৯৯০ ব্যাচের ছাত্র নুর রহিমের মায়ের মৃত্যু, ঈদগাহ আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র পরিষদের শোক

ভোট আর পেছাচ্ছে না

নির্বাচন বানচালের ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে ঈদগাঁওতে ছাত্রলীগের বিক্ষোভ মিছিল

চকরিয়া পৌর যুবলীগ নেতা ফরহাদ আর নেই, জানাজা সম্পন্ন

বেবী নাজনীন ছাড়া পেয়েছেন, নিপুনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে

চকরিয়ায় উগ্রবাদ ও সহিংসতা প্রতিরোধে কর্মশালা সম্পন্ন

চকরিয়ার সাংবাদিক বশির আল মামুনের মাতার ইন্তেকাল

শহীদ জিয়া স্মৃতি মেধা বৃত্তি পরীক্ষার চকরিয়া কেন্দ্রের স্থান পরিবর্তন