কক্সবাজার মডেল হাই স্কুলের এডহক কমিটি প্রতিহতের ঘোষণা

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :

ঐতিহ্যবাহী কক্সবাজার মডেল হাই স্কুলের নির্বাচিত কমিঠি অনুমদন না দিয়ে উল্টো সেটাকে পাসকাটিয়ে চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড কতৃক কমিটি বাতিল করে এডহক কমিঠি গঠন করা সম্পূর্ন আইন বহির্ভূত তাই এই এডহক কমিটিকে সর্বাত্মক ভাবে প্রতিহত করার ঘোষণা দিয়েছে স্কুল পরিচালনা কমিটি।  বুধবার এক সংবাদ সম্মেলনে এ দাবী করেন নেতৃবৃন্দ। বিকাল ৫ টায় স্কুল মিলনাতনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন কক্সবাজার জেলা আওমীলীগের সাবেক সভাপতি একেএম মোজাম্মেল হকের ছেলে কক্সবাজার মডেল হাই স্কুল পরিচালান কমিটির নির্বাচিত সদস্য শাহীনুল হক মার্শাল। এ সময় বক্তারা বলেন এই বিদ্যালয় ইতি মধ্যে কক্সবাজারের একটি অন্যতম শ্রেষ্ঠ শিক্ষা প্রতিস্টানে পরিণত হয়েছে। এর আগেও পর্যন্ত ৩ দফাই এডহক কমিঠি করে এই বিদ্যালয়েকে একটি মহল বানিজ্যিক প্রতিষ্টানে পরিনত করেছিল। লেখাপড়ার মান শুন্যের কোটায় নিয়ে গিয়েছিল। পরে আবারো একটি বিশেষ কমিটির নামে বিদ্যালয়কে একটি ব্যাক্তিগত প্রতিষ্টানে পরিনত করেছিল একটি মহল। পরে এলাকার সর্বস্থরের মানুষ ও অভিভাবক মিলে ২০১৩ সালে বিদ্যালয়ের প্রতিষ্টাতা আলহাজ কবির আহাম্মদ সওদাগরের নেতৃত্বে সুষ্ঠ নির্বাচনের মাধ্যমে কমিঠি গঠন করে, সেই থেকে এ পর্যন্ত স্কুলের শিক্ষার মান থেকে শুরু করে অবকাঠামো গত বিশাল উন্নয়ন সাধন করে, ১ জুলাই/১৭ স্কুল কমিঠির মেয়াদ শেষ হলে। ৮১ দিন আগে নিয়ম অনুযায়ী খসড়া ভোটার তালিকা করে ২২ এপ্রিল চুড়ান্ত ভোটার তালিকা করে ২ মে জাকজমক পূর্ন পরিবেশে নির্বাচন সম্পন্ন করে। আর সব কিছু তত্তাবধান করেন কক্সবাজার সদর উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মোঃ সেলিম। উনার সভাপতিত্বে কমিটির প্রথম সভা করে প্রধান শিক্ষকের মাধ্যমে ৪ জুন চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ডের বিদ্যালয় পরিদর্শকের কাছে কমিটি অনুমোদনের জন্য পাঠাই। কিন্তু চট্টগ্রাম শিক্ষা বোর্ড সেই নির্বাচিত কমিটি অনুমোদন না করে উল্টো কমিটিকে পাস কাটিয়ে কমিটি বাতিল করে একটি এডহক কমিটি করার জন্য চিঠি দেয়। যা নিয়ম বহিভূত। এছাড়া বিদ্যালয়ের সম্পূর্ন বেসরকারী নীতিমালায় পরিচালিত  কে.জি স্কুলের ২ জন শিক্ষককে অব্যাহতি দেওয়া বিষয়কে নিয়ে কিছু ষড়যন্ত্রকারীরা স্কুলকে তাদের স্বার্থ হাসিলের মাধ্যম হিসাবে ব্যবহার করছে বলেও অভিযোগ করেন কমিটির নেতৃবৃন্দ। এছাড়া সম্প্রতি বিভিন্ন পত্র পত্রিকায় মডেল হাই স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ রমজান আলীকে নিয়ে যে সমস্ত সংবাদ প্রকাশ হয়েছে তা সম্পূর্ন মিথ্যা ও ভিত্তিহীন । কে.জি স্কুলের শিক্ষক নিয়োগ এবং অব্যাহতি বিষয়ে প্রধান শিক্ষক রমজান আলীর কোন ভূমিকা নেই। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বিদ্যালয় পরিচালনা কমিটির সদস্য মেহেরুজ্জামান, আব্বাস উদ্দিন, মোশারফ হোসেন দুলাল।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

টেকনাফ উপজেলা যুবদলের সম্মেলনকে ঘিরে প্রাণচাঞ্চল্য : চাপিয়ে দেয়া কমিটি মানবে না!

 বিচার শুরুর অপেক্ষায় খালেদা জিয়ার আরও ৭ মামলা

অক্টোবর থেকে সেন্টমার্টিনে জাহাজ চলাচল শুরু

প্রধানমন্ত্রীকে আল্লামা শফীর অভিনন্দন

রাত ১০-১১টার পর ফেসবুক বন্ধ চান রওশন এরশাদ

আফগানদের কাছে বাংলাদেশের শোচনীয় পরাজয়

আজ পবিত্র আশুরা

দেশের স্বার্থেই ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন : প্রধানমন্ত্রী

সরকারের শেষ সময়ে আইন পাসের রেকর্ড

রাঙ্গামাটিতে ঘুম থেকে তুলে দু’জনকে গুলি করে হত্যা

শেখ হাসিনার গুডবুক ও দলীয় হাই কমান্ডের তরুণ তালিকায় যারা

মালয়েশিয়ার শ্রমবাজার নিয়ে ‘ধোঁয়াশা’ কাটবে এ মাসেই

বিষাদময় কারবালার ইতিহাস

পবিত্র আশুরা : সত্যের এক অনির্বাণ শিখা

নবাগত জেলা জজ দায়িত্ব গ্রহন করে কোর্ট পরিচালনা করলেন

নজিব আমার রাজনৈতিক বাগানের প্রথম ফুটন্ত ফুল- মেয়র মুজিবুর রহমান

কক্সবাজার ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে  “শুদ্ধ উচ্চারণ, আবৃত্তি, সংবাদপাঠ ও সাংবাদিকতা” বিষয়ক প্রশিক্ষণ কর্মশালা 

রামুর কচ্ছপিয়াতে রুমির বাল্য বিবাহের আয়োজন

সরকার শিক্ষাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়েছে- এমপি কমল

আইসক্রিমের নামে শিশুরা কী খাচ্ছে?