৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ছবি নিয়ে মিয়ানমারে মিথ্যা প্রচারণা

যমুনা,টিভি :

রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার রাষ্ট্রের বর্বরতা চালানোর মধ্যে চলছে বাংলাদেশ বিরোধী প্রচারণা। রোহিঙ্গাদেরকে বেশ আগে থেকেই মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী ‘বাঙালি’ বলে অভিহিত করে থাকে। যদিও ইতিহাসবিদরা বলেন ভিন্ন কথা। রোহিঙ্গাদের ভাষার সাথে বাংলা ভাষার কিছুটা মিল থাকলেও তারা কোনোভাবেই বাঙালি নয়।

গত ২৫ আগস্ট ৩০টি পুলিশ চেকপোস্টে বিদ্রোহীদের হামলার পর থেকে রোহিঙ্গাদের ওপর নতুন করে বর্বরতা শুরু পর বাংলাদেশবিরোধী নোংরা প্রচারণা নতুন মাত্রা পেয়েছে। এবার মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদেরকে ‘বাঙালি’ বলার পরিবর্তে ‘বাঙালি সন্ত্রাসী’ বলা শুরু করে।

তবে সরকারিভাবে এই প্রচারণা শুরু পরপরই মিয়ানমারের ঢাকাস্থ ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত অং মিন্টকে ডেকে এ বিষয়ে হুশিয়ার করে দেয়ার পর ‘বাঙালি সন্ত্রাসী’ শব্দের ব্যবহার বন্ধে নির্দেশনা জারি করেছে সুচি সরকার।

কিন্তু আনুষ্ঠানিক সরকারি প্রচারণায় এ ধরনের শব্দের ব্যবহার নিষিদ্ধ হলেও সরকার সমর্থক রাজনীতিক ও কর্মীরা অনলাইনে বাংলাদেশবিরোধী নানা প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বিভিন্ন ভুয়া ছবি ব্যবহার করে সেগুলোকে ‘বাঙালি সন্ত্রাসীদের কাণ্ড’ বলে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।

এমনকি ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশি মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণের ছবিকেও ‘মিয়ানমারে বাঙালি সন্ত্রাসীদের হামলা’ বলে প্রচার করছেন সরকারপন্থিরা। উপরে যে ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে বন্দুক হাতে মাটিতে ক্রলিং করে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন বেশ কিছু যুবক, সেটি ৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণের ছবি। এই ছবিটি ‘গেটি ইমেজ’ এর আর্কাইভে গেলে পাওয়া যাবে।

ছবিটির সাথে ইচ্ছা মতো ক্যাপশন জুড়ে দিয়ে সেটিকে বর্তমানে ‘মিয়ানমারে সাধারণ নাগরিকদের ওপর বাঙালি সন্ত্রাসীদের হামলা’ ছবি বলে প্রচার চালানো হচ্ছে।

                                        ভুয়া ছবি ব্যবহার করে এভাবেই চলছে বাংলাদেশবিরোধী প্রচারণা

অবশ্য বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার সরকারের বয়ানের পক্ষে যেমন মিথ্যাচার চলছে তেমনি রোহিঙ্গাদের প্রতি সমবেদনা দেখাতে গিয়ে অনেকে ভুল ছবির আশ্রয় নিচ্ছে। হত্যা ও নির্যাতনের ভয়াবহ অনেক ছবি ব্যবহার করছেন যেগুলো বাস্তবে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপিড়নের ঘটনার ছবি নয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দুইপক্ষে মিথ্যা ও ভুল ছবি-ভিডিওয়ের এত ছড়াছড়ি যে, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থা সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিজেদের সূত্রের তোলা ছবি বা ভিডিও ছাড়া কোনো কিছুকেই তারা প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করছে না। অবশ্য নিজেদের তোলা ছবি ও ফুটেজসহ বিভিন্ন প্রমাণের প্রেক্ষিতে জাতিসংঘ মনে করছে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো বর্বরতা ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধে’র শামিল।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

একটি পোপা মাছের দাম কেন ৮ লাখ টাকা?

ডায়াবেটিস কী? কেন হয়?

এস.এস.সি ফরম পূরণে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের অভিযোগ

পাল্টে যেতে পারে সব হিসাব

ভোট কেন্দ্র থেকে সরাসরি সংবাদ সম্প্রচার নিষিদ্ধ

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন স্থগিতের আহ্বান জাতিসঙ্ঘের

শীতে পাহাড় ও সমুদ্রের হাতছানি

মহেশখালীর উত্তর নলবিলায় হাসান আরিফের নেতৃত্বে ভয়ংকর পাহাড় কর্তন

সমুদ্রবন্দরে ২ নম্বর দূরবর্তী হুঁশিয়ারি

মাওলানা আনোয়ারের জানাজা বুধবার সাড়ে ৪টায় মরিচ্যা হাইস্কুল মাঠে

খালেদা জিয়ার প্রার্থিতা নিশ্চিত করতে আপিলে যাচ্ছে বিএনপি

৩৪ কেজি’র পোয়া মাছ বিক্রি হলো ৮ লাখ টাকায়

উখিয়া কেন্দ্রীয় জামে মসজিদের খতিব হাফেজ আনোয়ার আর নেই

আরব আমিরাতে উখিয়া প্রবাসীদের মিলনমেলা উপলক্ষে আলোচনা সভা

আ’লীগ জনগনের সংগঠন, নির্বাচনের বিধি মেনে কাজ করুন : মেয়র নাছির

গায়েবি মামলা প্রত্যাহার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর কাছে তালিকা দিল বিএনপি

রোহিঙ্গা সংকট নিয়ে সু চিকে ভর্ৎসনা মাহাথিরের

হালদা নদীকে দুষণমুক্ত করতে সবার সহযোগিতা চাইলেন ইউএনও রুহুল আমিন

সুব্রত চৌধুরীকে দিয়ে অলির রাজত্ব খতম করতে চায় গণফোরাম

দলীয় পরিচয় বহাল রেখে অন্যের প্রতীকে ভোট নয় অনিবন্ধিতদের