৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের ছবি নিয়ে মিয়ানমারে মিথ্যা প্রচারণা

যমুনা,টিভি :

রোহিঙ্গাদের ওপর মিয়ানমার রাষ্ট্রের বর্বরতা চালানোর মধ্যে চলছে বাংলাদেশ বিরোধী প্রচারণা। রোহিঙ্গাদেরকে বেশ আগে থেকেই মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী ‘বাঙালি’ বলে অভিহিত করে থাকে। যদিও ইতিহাসবিদরা বলেন ভিন্ন কথা। রোহিঙ্গাদের ভাষার সাথে বাংলা ভাষার কিছুটা মিল থাকলেও তারা কোনোভাবেই বাঙালি নয়।

গত ২৫ আগস্ট ৩০টি পুলিশ চেকপোস্টে বিদ্রোহীদের হামলার পর থেকে রোহিঙ্গাদের ওপর নতুন করে বর্বরতা শুরু পর বাংলাদেশবিরোধী নোংরা প্রচারণা নতুন মাত্রা পেয়েছে। এবার মিয়ানমার সেনাবাহিনী রোহিঙ্গাদেরকে ‘বাঙালি’ বলার পরিবর্তে ‘বাঙালি সন্ত্রাসী’ বলা শুরু করে।

তবে সরকারিভাবে এই প্রচারণা শুরু পরপরই মিয়ানমারের ঢাকাস্থ ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত অং মিন্টকে ডেকে এ বিষয়ে হুশিয়ার করে দেয়ার পর ‘বাঙালি সন্ত্রাসী’ শব্দের ব্যবহার বন্ধে নির্দেশনা জারি করেছে সুচি সরকার।

কিন্তু আনুষ্ঠানিক সরকারি প্রচারণায় এ ধরনের শব্দের ব্যবহার নিষিদ্ধ হলেও সরকার সমর্থক রাজনীতিক ও কর্মীরা অনলাইনে বাংলাদেশবিরোধী নানা প্রচারণা অব্যাহত রেখেছেন। বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানানো হয়েছে, বিভিন্ন ভুয়া ছবি ব্যবহার করে সেগুলোকে ‘বাঙালি সন্ত্রাসীদের কাণ্ড’ বলে ছড়িয়ে দেয়া হচ্ছে।

এমনকি ৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশি মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণের ছবিকেও ‘মিয়ানমারে বাঙালি সন্ত্রাসীদের হামলা’ বলে প্রচার করছেন সরকারপন্থিরা। উপরে যে ছবিটিতে দেখা যাচ্ছে বন্দুক হাতে মাটিতে ক্রলিং করে প্রশিক্ষণ নিচ্ছেন বেশ কিছু যুবক, সেটি ৭১ সালে মুক্তিযোদ্ধাদের প্রশিক্ষণের ছবি। এই ছবিটি ‘গেটি ইমেজ’ এর আর্কাইভে গেলে পাওয়া যাবে।

ছবিটির সাথে ইচ্ছা মতো ক্যাপশন জুড়ে দিয়ে সেটিকে বর্তমানে ‘মিয়ানমারে সাধারণ নাগরিকদের ওপর বাঙালি সন্ত্রাসীদের হামলা’ ছবি বলে প্রচার চালানো হচ্ছে।

                                        ভুয়া ছবি ব্যবহার করে এভাবেই চলছে বাংলাদেশবিরোধী প্রচারণা

অবশ্য বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গা ইস্যুতে মিয়ানমার সরকারের বয়ানের পক্ষে যেমন মিথ্যাচার চলছে তেমনি রোহিঙ্গাদের প্রতি সমবেদনা দেখাতে গিয়ে অনেকে ভুল ছবির আশ্রয় নিচ্ছে। হত্যা ও নির্যাতনের ভয়াবহ অনেক ছবি ব্যবহার করছেন যেগুলো বাস্তবে রোহিঙ্গাদের ওপর নিপিড়নের ঘটনার ছবি নয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, দুইপক্ষে মিথ্যা ও ভুল ছবি-ভিডিওয়ের এত ছড়াছড়ি যে, জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক সংস্থা সিদ্ধান্ত নিয়েছে নিজেদের সূত্রের তোলা ছবি বা ভিডিও ছাড়া কোনো কিছুকেই তারা প্রমাণ হিসেবে গ্রহণ করছে না। অবশ্য নিজেদের তোলা ছবি ও ফুটেজসহ বিভিন্ন প্রমাণের প্রেক্ষিতে জাতিসংঘ মনে করছে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো বর্বরতা ‘মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধে’র শামিল।

সর্বশেষ সংবাদ

ধর্ম প্র‌তিমন্ত্রীর রে‌ডি‌য়েন্ট ফিস ওয়ার্ল্ড প‌রিদর্শন

টেকনাফে র‍্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নাইক্ষ্যংছড়ির মাদক কারবারী নিহত

শ্রীলঙ্কায় ছয়টি ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহত ৪২, আহত ২৮০

গোশতের বাজারে মগের মুল্লুক!

কোচিং করলে মেলে অগ্রিম প্রশ্ন!

সেন্টমার্টিন বি এন স্কুলে কলেজ শাখার পাঠদানের অনুমোদন

৩০ এপ্রিলের মধ্যে শপথ না নিলে বিএনপি এমপিদের আসন শূন্য

ঈদগাঁওতে ঘন ঘন দিবারাত্রী লোডশেডিং

রাঙামাটি থেকে গ্রেফতার হলো নুসরাত হত্যা মামলার অন্যতম পরিকল্পনাকারি রানা

অসহায় প্রতিবন্ধী পরিবারের আর্তনাদে আকাশ বাতাস ভারী হয়ে উঠেছে

সামিটের এলএনজির জাহাজ এখন মহেশখালীতে

শনিবার রাত থেকে ইন্টারনেটের গতি ধীর হতে পারে

আজ পবিত্র শবে বরাত

ঈদের পর সরকারকে ১০ নম্বর হুঁশিয়ারি!

এবার খুরুশ্কুল আশ্রয়ণ প্রকল্পের সড়কের জমিতে ভবন নির্মাণ

মাতামুহুরী ব্রীজে ফের দেবে গেছে,  দূর্ঘটনার আশঙ্কা

চকরিয়ায় মাংসের মূল্য নির্ধারণ করলেন প্রশাসন

ভালুকিয়া যুব কল্যাণ সমিতির সাবেক সাধারণ সম্পাদক কাশেমের অকাল মৃত্যু

সব ধর্মের অনুসারীদের নিজ ধর্ম পালনের সমান সুযোগ নিশ্চিত করেছে সরকার-ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শহরের বায়তুশ শরফ এলাকা থেকে ৪ দিন ধরে কন্যা শিশু নিখোঁজ