‘লাব্বাইক’ ধ্বনিতে আরাফাত ময়দান মুখরিত হওয়ার দিন আজ

সৌদি আরবে শুরু হয়েছে হজের আনুষ্ঠানিকতা। ২৯ আগস্ট রাত থেকে মিনায় মুসল্লিদের উপস্থিতি শুরুর মধ্য দিয়ে হজের আনুষ্ঠানিকতা শুরু হয়। হজের অংশ হিসেবে মুসল্লিরা মিনা, আরাফাত ময়দান, মুজদালিফা, মক্কা ও মিনায় পাঁচদিন অবস্থান করবেন। বৃহস্পতিবার (৩১ আগস্ট) ফজরসহ পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ আদায়ের পর তারা যাবেন মিনা থেকে ১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-পূর্বে অবস্থিত আরাফাতের ময়দানের দিকে। আরাফাতে যাওয়ার দীর্ঘ পথ পাড়ি দিতে মুসল্লিরা পায়ে হেঁটে, হুইল চেয়ারে, বাসে- যে যেভাবে পারেন পৌঁছাবেন। সবার শরীর সাদা কাপড়ে ঢাকা থাকবে। তাদের ‘লাব্বাইক আল্লাহুম্মা লাব্বাইক’ ধ্বনিতে মুখরিত হবে আরাফাতের ময়দান।
সারা বিশ্বের ২০ লাখ মানুষ অংশ নিচ্ছেন হজে। বাংলাদেশ থেকে গিয়েছেন ১ লাখ ২৭ হাজার ২২৯ জন। ইসলামের মূল ৫টি স্তম্ভের মধ্যে হজ হচ্ছে পঞ্চম স্তম্ভ। হিজরি বর্ষপঞ্জীর জ্বিলহজ মাসের ৮ থেকে ১২ তারিখ হজ পালনের জন্য নির্ধারিত সময়। ইসলাম ধর্মমতে, শারীরিক ও আর্থিকভাবে সক্ষম প্রত্যেক মুসলমানের জন্য জীবনে একবার হজ পালন করা ফরজ।
হজের গুরুত্ব ও তাৎপর্য প্রসঙ্গে মুফতী আনসারুল হক ইমরান বলেন, ‘হজের তাৎপর্য ও গুরুত্ব অপরিসীম। কাবাঘরে সর্বপ্রথম হজ আদায় করেন আদম (আ.)। হজকে উত্তম ইবাদত বলা হয়। হজ পালনের প্রতিটি পদক্ষেপের মধ্য দিয়ে স্মরণ করিয়ে দেওয়া হয় আল্লাহ হুকুম ও পাপ থেকে দূরে থাকার বিষয়গুলো। যখন কোনও মুসলমান হজের জন্য এহরামের কাপড় গায়ে জড়িয়ে আত্মীয়-স্বজন ছেড়ে হজের জন্য গৃহত্যাগ করেন তখন মনে করিয়ে দেওয়া হয় আখেরাতের পথে রওয়ানা হওয়াকে। এহরামের কাপড় পরে পবিত্র হয়ে আল্লাহর ঘরে ‘লাব্বাইক’ বলে হাজির হওয়ার মনে করিয়ে দেয়, মৃত্যুর পরেও আল্লাহর দরবারে হাজির হতে হবে। স্মরণ করিয়ে দেয় এহরামের কাপড়ের মতো সাদা, পরিচ্ছন্ন অন্তর নিয়ে আল্লাহর সামনে হাজির হতে হবে।’
তিনি আরও বলেন, ‘কোরআন শরিফ ও হাদিস শরিফের হজের গুরুত্ব তুলে ধরা হয়েছে। পবিত্র কোরআনে একটি সূরা আছে যার নাম “হজ”। সঠিক পদ্ধতিতে হজ পালন করেলে মানুষ শিশুদের মতো নিষ্পাপ হয়ে যায়। রাসূল (স.) বলেছেন, ‘যে ব্যক্তি আল্লাহর সন্তুষ্টির উদ্দেশ্যে হজ করলো এবং হজ সম্পাদনকালে কোনও প্রকার অশ্লীল কথা ও কাজ কিংবা গোনাহের কাজে লিপ্ত হয়নি, সে সদ্যোজাত নিষ্পাপ শিশুর মতো প্রত্যাবর্তন করল।”
ইহরাম অবস্থায় বেশ কিছু কাজ নিষিদ্ধ উল্লেখ করে মুফতী আনসারুল হক ইমরান বলেন, ‘নিষেধ করা হয়েছে ঝগড়া করা, কথা ও কাজে কাউকে কষ্ট দেওয়া। অর্থাৎ সহনশীল জীবন যাপনে অভ্যস্ত হতে শিক্ষা দেয় হজ। শিক্ষা দেয়, মুসলানদের ঝগড়াটে না হয়ে, ক্ষমা ও ধৈর্যশীল জীবনের। হজের সময় কোনও ধরনের শিকার করা যাবে না। ক্ষতিকর নয়, এমন কোনও প্রাণী মারা যাবে না। ফল হজ আমাদের শুধু মানুষ নয়, প্রাণীদের প্রতি দয়াশীল হতেও শিক্ষা দেয়।’

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

প্লিজ ফেসবুক – তুমি মৃত্যুটাকে মিথ্যে প্রমাণ কর!

দুর্নীতির দায়ে সাবেক ইউএনও মামুনুর রশিদের ৮ বছরের কারাদণ্ড

অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক কাজি মোঃ আবদুর রহমানকে টুয়াকের বিদায় সংবর্ধনা

সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ধরে রাখার আহবান লুৎফুর রহমান কাজলের

চকরিয়ায় গরু চোর চক্রের সদস্য আটক

শহরের পূজামন্ডপ পরিদর্শনে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার

প্রথম আলো ও ডেইলী স্টারের মালিক লতিফুর রহমানকে দূদকে জিজ্ঞাসবাদ

সমুদ্র সৈকতে দেশের বৃহৎ প্রতিমা বিসর্জন শুক্রবার

পূজামন্ডপ পরিদর্শনে ইশতিয়াক আহমেদ জয়

শারদীয় দুর্গোৎসব উপলক্ষে লুৎফুর রহমান কাজলের শুভেচ্ছা বিনিময়

গর্জনিয়ায় বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ, যুবক কারাগারে

দুর্গোৎসবে প্রধানমন্ত্রীর দেয়া উপহার বিতরণে অনিয়ম-স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

পেকুয়ায় বনবিভাগের ৪ কর্মচারী বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি মামলা

ঈদগাঁওতে ২ গ্রামের সনাতন সম্প্রদায়ের হত দরিদ্ররা উপহার বঞ্চিত!

চট্টগ্রামে ওসি জসিমসহ ৬ পুলিশের বিরুদ্ধে মামলা

আকাশ আলোকিত করতে কৃত্রিম চাঁদ বানাচ্ছে চীন

নৌকা জয়ী হলে উন্নয়ন জোয়ারে ভাসবে গর্জনিয়া কচ্ছপিয়া- এমপি কমল

লামায় দু‘পক্ষের সংঘর্ষে আহত ২

চকরিয়ায় শারদৎসবে মেতে উঠেছে হিন্দু সম্প্রদায়

মাদক কারবারীদের বাসাবাড়ীতে বিশেষ অভিযান: এক জনের ৬ মাসের কারাদণ্ড