দুই মামলায় ২০ বছরের সাজা রাম রহিমের

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
দু’জন নারী ভক্তকে ধর্ষণের দায়ে পৃথক দুই মামলায় ভারতের বিতর্কিত ধর্মগুরু গুরমিত রাম রহিম সিংকে ১০ বছর করে মোট ২০ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন দেশটির আদালত। সোমবার হরিয়ানার রোহতক কারাগারে গিয়ে দেশটির কেন্দ্রীয় তদন্ত ব্যুরোর (সিবিআই) বিশেষ আদালতের বিচারক জগদ্বীপ সিং ওই রায় ঘোষণা করেন।

প্রাথমিকভাবে গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, রাম রহিম সিংয়ের কারাদণ্ড হয়েছে ১০ বছরের। তবে ২০০২ সালের ওই জোড়া ধর্ষণের দায়ে ধর্ষক ধর্মগুরুর আলাদাভাবে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দেন আদালতের বিচারক। এতে করে রাম রহিমকে ১০ বছর নয়, সাজা ভোগ করতে হবে মোট ২০ বছর।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী এসকে জর্জ নরওয়ানা জানান, দুটি মামলায় দোষী সাব্যস্ত হওয়ায় ধর্মগুরুকে আলাদাভাবে ১০ বছর করে মোট ২০ বছর কারাদণ্ড ভোগ করতে হবে।

এছাড়া বিচারক জগদ্বীপ সিং রাম রহিমকে প্রত্যেক মামলায় আলাদাভাবে ১৫ লাখ রুপি করে জরিমানা করেন। এতে করে রাম রহিমের অর্থদণ্ডের পরিমাণ হয়েছে ৩০ লাখ রুপি। এই ৩০ লাখ রুপির মধ্যে আলাদাভাবে ১৪ লাখ করে মোট ২৮ লাখ রুপি প্রদান করা হবে ধর্ষিত দুই নারীকে।

রামদেব বার্তা সংস্থা এএনআই’কে বলেন, এটা একটা উদাহরণ হয়ে থাকল যে মানুষ যতোই ক্ষমতাধর হোক, কোনোভাবেই আদালত এবং আইনের হাত থেকে রেহাই পাবে না।

তিনি আরও বলেন, ধর্মের নামে অবৈধ কার্যকলাপ করা একেবারেই অনুচিত। বিচার দেরিতে হতে পারে, তা থেকে রেহাই পাওয়া যাবে না। এখন আমাদের বিচার ব্যবস্থা অনেক শক্তিশালী হয়েছে। সে কারণে অপরাধ করে কারও পার পাওয়ার কোনো উপায় নেই।

আদালত সেটাই করে দেখিয়েছে। এই ঘটনা থেকে ক্ষমতাবান লোকদের শিক্ষা নেয়া উচিত। যদি আপনি অপরাধী হয়ে থাকেন; শাস্তি অাপনাকে পেতেই হবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

গত শুক্রবার ১৫ বছর আগের মামলায় দোষী সাব্যস্ত হন ৫০ বছর বয়সী রাম রহিম সিং। গুরমিত রাম রহিমের সর্বোচ্চ সাজার আবেদন করেছিল সিবিআই। অন্যদিকে, রাম রহিমের আইনজীবী লঘু শাস্তির আবেদন করেন।

অাইনজীবীর যুক্তি, যেহেতু বহু সামাজিক কাজে জড়িয়ে আছে রাম রহিমের নাম; সেকারণে লঘু শাস্তি দেয়া উচিত।

বিচারকের সামনে ক্ষমাও চান রাম রহিম। রাম রহিম হাত জোড় করে বলেন, ‘আমার ভুল হয়ে গেছে। আমাকে ক্ষমা করে দিন।’ কথাগুলো বলার সময় তিনি কেঁদেও ফেলেন।

শুক্রবার রাম রহিমকে দোষী সাব্যস্ত করার কয়েক মিনিটের মধ্যেই তার শিষ্যরা তাণ্ডব শুরু করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সঙ্গে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। এতে ৩৮ জন নিহত এবং ২৫০ জন আহত হয়। ৩২ জন পঞ্চকুলায় এবং সিরসায় ৬ জন নিহত হয়।

ঝামেলা এড়াতে রোহতকের কারাগারে বিচারক জগদীপ সিংকে হেলিকপ্টারে করে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই গ্রন্থাগারের মধ্যে আদালত বসে এবং সাজা ঘোষণা করেন বিচারক।

সূত্র : দ্য হিন্দু, এনডিটিভি

cbn

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার- ২৭

পেকুয়ায় সংগ্রামের জুমে চলছে বালি উত্তোলন

B a n g a b a n d h u : The epic poet of politics

সদর উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতির উপর হামলার প্রতিবাদে জেলা ছাত্রলীগের মিছিল-সমাবেশ

দৈনিক সৈকত সম্পাদকের পিতা হাবিবুর রহমানের ৩৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

কক্সবাজার জেলা জয় বাংলা তথ্য-প্রযুক্তি লীগের আহবায়ক তুহিনের বিবৃতি

আজ শুভ জন্মাষ্টমী: কক্সবাজারে নানা আয়োজন

কক্সবাজার ইনার হুইল ক্লাবের শিক্ষা উপকরণ বিতরণ

টেকনাফে যুবককে তুলে নিয়ে হত্যা করলো রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীরা

সব ধরনের মতামত প্রকাশের নিরাপত্তা আছে?

চীন বলেছে মধ্যস্থতার দায়িত্ব নিয়েছি : মায়ানমার কিন্তু মুখ খুলছেনা

যে মসজিদ নির্মাণে কাজ করে ২ লাখ ১০ হাজার শ্রমিক

সুশিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দেশের জন্য কাজ করতে হবে

জেলা আ.লীগের চিকিৎসা ক্যাম্প শুক্রবার, চিকিৎসা পাবে ৫হাজার মানুষ

চকরিয়ায় দুই হাজার মিটার নিষিদ্ধ কারেন্ট জাল আগুনে পুড়ে ধ্বংস

নিরহঙ্কার জীবন : মানবিক উৎকর্ষের চাবিকাঠি

JOB VACANCY ANNOUNCEMENT – HumaniTerra International (HTI)

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

বিদ্যুৎস্পৃষ্টে সদ্যবিবাহিত যুবকের মৃত্যু ইসলামাবাদে

আগামী ১০ বছরে আপনি মারা যাবেন কিনা জানা যাবে ব্লাড টেস্টে!