সৈকতে অর্ধেক চেয়ার বিনামূল্যে উন্মুক্ত রাখার আদেশ উপেক্ষিত, প্রশাসনের অভিযান

ইমাম খাইর, সিবিএন:

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের ছাতা সম্বলিত চেয়ারের অর্ধেক (৫০ শতাংশ) বেড়াতে আসা সাধারণ পর্যটকদের জন্য বিনামূল্যে উন্মুক্ত রাখার নির্দেশ এখনো উপেক্ষিত। ছাতা, কিটকট ব্যবসায়ীরা উচ্চআদালতের আদেশকে কোন পাত্তাই দিচ্ছেনা। দেদারছে আদায় করছে টাকা।

এদিকে উচ্চআদালতের নির্দেশনা ছাতা-কিটকট মালিকরা যথাযথভাবে পালন করছে কিনা- তা খতিয়ে দেখতে সরেজমিন শুক্রবার বিকালে সৈকত এলাকায় অভিযানে নামেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল আহমেদ এবং এ.কে.এম লুৎফুর রহমান আজাদ।

এ সময় ‘নীল’ রংয়ের কিটকটে বসে থাকা এক পর্যটকের কাছ থেকে টাকা নেয়ার অভিযোগ প্রমানিত হলে ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে ওই টাকা তৎক্ষনাত ফেরত দেয়া হয় এবং এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে সে ব্যাপারে নির্দেশনা দেন।

এ ব্যাপারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল আহমেদের কাছে জানতে চাইলে বলেন, কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতের ৫০% কিটকট (বসার চেয়ার) সর্বসাধারনের জন্য ফ্রি রাখার বিষয়ে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে। নির্দেশনা প্রতিপালনের জন্য ফ্রি ৫০% কিটকটকে ‘নীল’ রং করে চিহ্নত করা এবং কিটকটে বসে থাকা পর্যটকের কাছ থেকে যেন কোনভাবেই টাকা না নেয়া হয় এ ব্যাপারে জেলা প্রসাশসনের কঠোর নির্দেশনা রয়েছে।

উচ্চআদালতের নির্দেশনা থাকার পরও যারা তা মানছেনা তাদের সতর্ক করার জন্য প্রাথমিক অভিযান চালানো হয়েছে। পর্যটক হয়রানিরোধে জেলা প্রশাসনের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

অভিযানকালে ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্য ও বীচ কর্মিরা উপস্থিত ছিলেন।

২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি শেখ হাসান আরিফের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে ছাতা সম্বলিত চেয়ারের অর্ধেক বিনামূল্যে রাখার আদেশ দেন।

আদেশে সমুদ্র সৈকতে বিদ্যমান চেয়ার-ছাতার ৫০ শতাংশ নীল রঙ চিহ্নিত করে তা সাধারণ মানুষের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত রাখতে বলা হয়।

একই সঙ্গে সৈকতের কিটকট চেয়ার-ছাতার ওপর থেকে অযৌক্তিক ভাড়া আদায় কেন অবৈধ হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

কিন্তু সেই আদেশের প্রায় ৯ মাস পার হতে চলেছে। বিনামূল্যে চেয়ার রাখা তো দূরের কথা, বরং টাকা আদায়ে প্রতিযোগিতা চলছে ছাড়া, কিটকট ব্যবসায়ীদের।

প্রসঙ্গত, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল জনস্বার্থে ২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর মামলাটি করেন।

আদালত পরে এ বিষয়ে স্বপ্রণোদিত রুল জারির পাশাপাশি ৫০ ভাগ ছাতা জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত রাখার নির্দেশ দেন।

পর্যটন সচিব, পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক, কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবং কক্সবাজার পৌরসভার মেয়রকে এই নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়।

 

 

 

 

সর্বশেষ সংবাদ

কক্সবাজার সিটি কলেজে “চ্যারিটি কর্ণার” উদ্বোধন

জবানবন্দিতে পুলিশের শেখানো কথা বলেছি, বাবাকে মিন্নি

প্রিয়া সাহার বিরুদ্ধে ব্যারিস্টার সুমনের দায়েরকৃত মামলা খারিজ

প্রিয়ার ভয়ংকর মিথ্যাচার ,মার্কিন দূতাবাসের দুরভিসন্ধি প্রকাশ পেয়েছে : সজীব ওয়াজেদ জয়

মিন্নির জামিন নামঞ্জুর

রাষ্ট্রদ্রোহিতার অভিযোগে প্রিয়ার বিরুদ্ধে দুই মামলা

গজালিয়া সাতঘরিয়া পাড়ার গ্রামীন সড়কের বেহাল দশা : দেখার কেউ নেই

জজকোর্টের জারীকারক মনির আর নেই : রোববার জুহুরের পর জানাজা

‘ফুলটাইম’ রাজনীতি করবেন চিত্রনায়ক ফেরদৌস

টেকনাফে পুলিশের সাথে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ ইয়াবাকারবারি নিহত

পকেটে থাকা আগ্নেয়াস্ত্রে ঢাবিতে ছাত্রলীগ নেতা গুলিবিদ্ধ

গোমাতলীর ছুরত হাজী আর নেই

মস্কোয় হাজারো মানুষের বিক্ষোভ

এবার ঈদের আগেই খালেদা জিয়ার মুক্তি!

দেশদ্রোহী হিসেবে প্রিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে

উদ্দেশ্য খুঁজতে প্রিয়া সাহার কল রেকর্ড-ট্রাভেল হিস্ট্রি যাচাই

২,৯৬০টি ইয়াবা নিয়ে ধরা পড়লো রোহিঙ্গা নারী

প্রথম-লঘু অপরাধে শাস্তি নয়, ‘শিক্ষানবিশ আইন’ চূড়ান্ত

চকরিয়ায় পুলিশের হাতে ইয়াবাসহ ২ পাচারকারী আটক

বদলে গেলো কক্সবাজার সদর হাসপাতালের জরুরী বিভাগের চিকিৎসা পদ্ধতি