সৈকতে অর্ধেক চেয়ার বিনামূল্যে উন্মুক্ত রাখার আদেশ উপেক্ষিত, প্রশাসনের অভিযান

ইমাম খাইর, সিবিএন:

কক্সবাজার সমুদ্র সৈকতের ছাতা সম্বলিত চেয়ারের অর্ধেক (৫০ শতাংশ) বেড়াতে আসা সাধারণ পর্যটকদের জন্য বিনামূল্যে উন্মুক্ত রাখার নির্দেশ এখনো উপেক্ষিত। ছাতা, কিটকট ব্যবসায়ীরা উচ্চআদালতের আদেশকে কোন পাত্তাই দিচ্ছেনা। দেদারছে আদায় করছে টাকা।

এদিকে উচ্চআদালতের নির্দেশনা ছাতা-কিটকট মালিকরা যথাযথভাবে পালন করছে কিনা- তা খতিয়ে দেখতে সরেজমিন শুক্রবার বিকালে সৈকত এলাকায় অভিযানে নামেন জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল আহমেদ এবং এ.কে.এম লুৎফুর রহমান আজাদ।

এ সময় ‘নীল’ রংয়ের কিটকটে বসে থাকা এক পর্যটকের কাছ থেকে টাকা নেয়ার অভিযোগ প্রমানিত হলে ম্যাজিস্ট্রেটের নির্দেশে ওই টাকা তৎক্ষনাত ফেরত দেয়া হয় এবং এই ঘটনার পুনরাবৃত্তি যেন না ঘটে সে ব্যাপারে নির্দেশনা দেন।

এ ব্যাপারে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট জুয়েল আহমেদের কাছে জানতে চাইলে বলেন, কক্সবাজারের সমুদ্র সৈকতের ৫০% কিটকট (বসার চেয়ার) সর্বসাধারনের জন্য ফ্রি রাখার বিষয়ে মহামান্য হাইকোর্টের নির্দেশনা রয়েছে। নির্দেশনা প্রতিপালনের জন্য ফ্রি ৫০% কিটকটকে ‘নীল’ রং করে চিহ্নত করা এবং কিটকটে বসে থাকা পর্যটকের কাছ থেকে যেন কোনভাবেই টাকা না নেয়া হয় এ ব্যাপারে জেলা প্রসাশসনের কঠোর নির্দেশনা রয়েছে।

উচ্চআদালতের নির্দেশনা থাকার পরও যারা তা মানছেনা তাদের সতর্ক করার জন্য প্রাথমিক অভিযান চালানো হয়েছে। পর্যটক হয়রানিরোধে জেলা প্রশাসনের এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

অভিযানকালে ট্যুরিস্ট পুলিশের সদস্য ও বীচ কর্মিরা উপস্থিত ছিলেন।

২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর বিচারপতি কামরুল ইসলাম সিদ্দিকী ও বিচারপতি শেখ হাসান আরিফের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ স্বতঃপ্রণোদিত হয়ে ছাতা সম্বলিত চেয়ারের অর্ধেক বিনামূল্যে রাখার আদেশ দেন।

আদেশে সমুদ্র সৈকতে বিদ্যমান চেয়ার-ছাতার ৫০ শতাংশ নীল রঙ চিহ্নিত করে তা সাধারণ মানুষের ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত রাখতে বলা হয়।

একই সঙ্গে সৈকতের কিটকট চেয়ার-ছাতার ওপর থেকে অযৌক্তিক ভাড়া আদায় কেন অবৈধ হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

কিন্তু সেই আদেশের প্রায় ৯ মাস পার হতে চলেছে। বিনামূল্যে চেয়ার রাখা তো দূরের কথা, বরং টাকা আদায়ে প্রতিযোগিতা চলছে ছাড়া, কিটকট ব্যবসায়ীদের।

প্রসঙ্গত, সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল জনস্বার্থে ২০১৬ সালের ৩০ নভেম্বর মামলাটি করেন।

আদালত পরে এ বিষয়ে স্বপ্রণোদিত রুল জারির পাশাপাশি ৫০ ভাগ ছাতা জনসাধারণের জন্য উন্মুক্ত রাখার নির্দেশ দেন।

পর্যটন সচিব, পর্যটন করপোরেশনের চেয়ারম্যান, কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক, কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবং কক্সবাজার পৌরসভার মেয়রকে এই নির্দেশ বাস্তবায়ন করতে বলা হয়।

 

 

 

 

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

বিএনপি নেতা হাবিব-উন-নবী খান সোহেল গ্রেফতার

রামুর গর্জনিয়ায় বজ্রপাতে একই পরিবারের নারীসহ আহত ৫

কক্সবাজারে প্রথম নির্মিত হচ্ছে সি,আই কোম্পানি ইন্ডাস্ট্রি

মহেশখালী পৌর ছাত্রদলের আংশিক কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা

এসপি মাসুদ হোসাইনের কক্সবাজারে যোগদান, ডিসি’র সাথে সৌজন্য সাক্ষাত

জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে দূর্যোগ ব্যবস্থাপনার জন্য ইওসি স্থাপন

পেকুয়ায় প্রবাহমান খালে মাটি ভরাট করলেন প্রভাবশালী

কোনাখালীতে দোকান পুড়ে ছাই

বুবলীর সঙ্গে শাকিবের বিয়ে, গুঞ্জন নাকি সত্যি?

সাবেক ডিসি ও ইউএনওসহ তিনজনের কারাদণ্ড

ইয়াবাসহ আইন মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা আটক

চকরিয়া উগ্রবাদ ও সহিংসতা প্রতিরোধে দক্ষতা উন্নয়ন প্রশিক্ষণ

চকরিয়ায় কথিত চিকিৎসকের ভূল চিকিৎসার শিকার বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী

রামুর গর্জনিয়ায় বজ্রপাতে একই পরিবারের নারীসহ আহত ৫

মালুমঘাটে প্রভাবশালীর সহযোগিতায় চলছে বাল্য বিবাহ!

চট্টগ্রাম কলেজে ছাত্রলীগের কমিটি নিয়ে দফায় দফায় সংঘর্ষ

নিরাপদ সড়ক চাই: নিজে বাঁচব, অপরকে বাঁচাব

বিএনপির ১৭৩ প্রার্থী প্রায় চূড়ান্ত

চবি উপাচার্যের সাথে মিশর আল আযহার বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিনিধি দলের সাক্ষাৎ

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে সংবর্ধনা