সংকট নাকি সৃষ্ট দুর্ভোগ?

তানভির রিপন :
বাংলাদেশে বর্তমান মোট জনসংখ্যা ক’জন?মোট ১৬ কোটি জনেরো বেশি প্রায় সতেরো কোটি।এই বাংলাদেশের ২১ টি জেলায় চলতি বছরে বন্যা কবলিত হয়েছে।এই বন্যায় সরকারি হিশেব মতে মারা গেলো ১১৭ জন তন্মধ্যে নির্মমভাবে নিহত হয়েছেন এক মা তার সন্তানকে পিটে নিয়েও শেষ পর্যন্ত বাঁচাতে চেয়েও পারলেন না,ছবিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বেশ ছড়িয়ে ছিটিয়ে সবার কাছে পৌছুলো।এতো নির্মম মৃত্যু?পুরো দেশের এই ২১ জেলায় ত্রান মন্ত্রণালয়েরর হিশেব মতে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে ৩২ লাখ ৮৭ হাজার জন।বন্যার কারনে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় প্রয়োজনীয় জিনিসপত্তর তো পাওয়া যাচ্ছে না,যা সংগ্রহ করতে হচ্ছে তা সবের আকাশচুম্বী মূল্য। এই বন্যা হওয়ার পেছনে মূলত দ্বায়ী অবশ্যই সরকার নয়,ঐ জেলাগুলোর জন প্রতিনিধিগন,আমলাগনই দ্বায়ী । বিশেষত তারা সরকার সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীকে বলে এবং সংসদে তারা গলা ফাটিয়ে নিজ আসনের সমস্যার কথা বলে বাজেট বা প্রস্তাবনা গুলোর বাস্তবায়ন করেন ঠিকই।কিন্তু তারা পুরানো রাস্তায় পুরানো মাল মশলাদি আবার ব্যবহার করে কোনমতে মেরামত করে খালাস।তারপর ঝুকিপূর্ণ এলাকায় আবার সংকট তৈরী হয়।এইসব সরকারের দোষ নয়,তবে সরকার এই দোষীদের কাছ থেকে হিশাব না নেওয়াটায় বড় ধরনের ভুল,শাস্তির আওতায় না আনার ফলে এসব বাড়ছে,বাড়বেও।
কক্সবাজার শহর প্রসঙ্গ:
প্রতিবছর দুবার কি তিনবার করে সীমান্ত হয়ে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ করে।কিন্তু বিজিবির মানবিক মাত্রা এতো বেশি হয়ে যায় যে তারা টহলে থাকা সত্যেও লাখ লাখ রোহিঙ্গার অনুপ্রবেশ ঘটে।এদের জায়গা দিয়ে,জন্ম নিবন্ধন,ভোটার আইডিকার্ড তৈরী করে দিয়ে বিশাল ব্যবসা পাতেন।এসবের জন্য সরাসরি দোষ দেওয়া যাবে না কেনো স্থানীয় জনপ্রতিনিধি বা এসব অপরাধের সাথে সম্পৃক্তদের?রোহিঙ্গা বাড়ার ফলে কয়েকবছরে অতিমাত্রায় টমটম (ইজিবাইক) বেড়ে গেলো।কোন প্রশিক্ষন ছাড়া টমটম চালায়,প্রতিবছরই লাশের সারি বাড়ে।পৌরসভার বা সড়ক বিভাগের কোন মনোযোগ নেই শহরের প্রধান সড়ক এতো জঘন্যরকম হয়েছে, এই ছোট শহরে সারাদিন জ্যামে আটকে থাকতে হয়।আমি নিজেও একটা দুর্ঘটনার ক্ষত বহন করছি, দুর্ভোগের শেষ নেই।এই টমটমগুলো চালাতে হয় চার্জ করে,এই কারনে শহরের ভেতরে কতোগুলো অবৈধ বিদ্যুৎ লাইন বেড়েছে।এসবের বৃদ্ধির কারনটা বিদ্যুৎ বিতরন বিভাগের আলসেমির কারন।যার কারনে লোডশেডিং এ ভোগতে হচ্ছে।
“যতো চোর, ততো টমটমের ড্রাইভার, ততো ইয়াবা সাংবাদিক।”আরো কতজন কক্সবাজার শহরে বিভিন্ন পত্রিকার পরিচয় পত্রদ্বারী সাংবাদিক দেখবো?মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর এবং মায়ানমার মাদক নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তর এর একটি দ্বিপক্ষীয় সভা মায়ানমারে শেষ হয়েছে আজ।ঢাকা অফিস, ৪৯ ইয়াবা ল্যাব এর নাম ঘোষনা করবেন সাংবাদিক সম্মেলনে।কক্সবাজার শহরের নাম উঠে আসবে।সেখানে সাংবাদিক জড়ি থাকার কথাও থাকবে,জরিপে উঠেও আসতে পারো আরো সাংবাদিকের নাম।তো এসব ইয়াবা সাংবাদিক পালিত হয় কার পশ্রয়ে?ইতি টানুন।রাষ্ট্রকে ক্ষমা করুণ,প্রজন্মকে শান্তি দিন।পেশাটাকে কলঙ্কিত করা থেকে দূরেরে থাকুন।আগামী সময় কিন্তু কঠিন হয়ে দাড়াবে!
লেখকঃ ছাত্র-সম্প্রচার প্রকৌশল ও গণ সাংবাদিকতা বিভাগ/পোর্ট সিটি ইন্টারন্যাশনাল ইয়ুনিভার্সিটি, চট্টগ্রাম।
cbn
কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

সিইসির কাছে হেলিকপ্টার চাইলেন কক্সবাজারের ডিসি

শেখ হাসিনার যোগ্য নেতৃত্বে বিশ্বে বাংলাদেশের মর্যাদা বেড়েছে- জাফর আলম

ভারত সরকারের ত্রানের বিপুল পরিমান কম্বল বেনাপোল বন্দরে প্রবেশ

বদরখালীতে স্কুলের জমি ও রাস্তা-নালা দখলে বাধা, হামলায় আহত ৪

নির্বাচনের দিন রোহিঙ্গা ক্যাম্প সিল করে দেয়া হবে: ইসি সচিব

উখিয়া-টেকনাফে ধানের শীষের পথসভায় বাধা ও মিথ্যা মামলায় গ্রেফতারের অভিযোগ

বান্দরবানে বীর বাহাদুরের জন্য ভোট চাইলেন শেখ হাসিনা

অফিস ভাংচুর ও পোস্টার ছিঁড়ে জনপ্রিয় হওয়া যায় না- লুৎফুর রহমান কাজল

মিডিয়া কাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের সফল সমাপ্তি

খরুলিয়ায় ৯ নং ওয়ার্ড আ’লীগের নির্বাচনী মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত

উখিয়ায় পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় পুলিশ কর্মকর্তাসহ আহত ২  

বায়তুশ শরফ আত্মশুদ্ধি ও মানব সেবার  অনন্য প্রতিষ্ঠান- আল্লামা কুতুব উদ্দীন

হাটহাজারীতে নির্বাচনী লেভেল প্লেয়িং ফিল্ড নেই : সৈয়দ মুহাম্মদ ইবরাহিম

সাংবাদিক জাবেদের বড় ভাই জাহাঙ্গীরের মৃত্যুতে টেকনাফ পৌর প্রেসক্লাবের শোক

কক্সবাজার পৌরসভার ৭ নং ওয়ার্ডে ধানের শীষের সমর্থনে সভা অনুষ্ঠিত

পেকুয়ায় জমি জবরদখল ও স্থাপনা নির্মাণ চেষ্টা

পেকুয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১

কক্সবাজারের ডিজিটাল জনসভাকে জনসমুদ্রে পরিনত করার আহবান

শেখ হাসিনাকে পুনরায় ক্ষমতায় নেয়া আমার প্রধান লক্ষ্য- ড. আনসারুল করিম

মহেশখালীতে আনসার ও ভিডিপি সমাবেশ অনুষ্টিত