cbn  

সংবাদদাতা:
পেকুয়ায় জমি সংক্রান্ত বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের উপর দফায় দফায় হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসময় সন্ত্রাসীরা গুলি চালিয়ে এলাকায় আতংক সৃষ্টি করেছে বলে জানা গেছে। ১৭ আগষ্ট পেকুয়া উপজেলা মগনামা ইউনিয়নের কাজী মার্কেট এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। ঘটনার সময় সন্ত্রাসীরা গাড়ী ভাংচুর ও দোকানে লুটপাট চালিয়েছে বলে জানাগেছে। ঘটনায় আহতরা হলেন, জমির মালিক শেফায়েত (৩২), আরিফ (২৮) রুহুল আমিন (৩০)। এ ঘটনায় আহতপক্ষের লোকজন পেকুয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকার লোকজনের সাথে কথা বলে জানাযায়, ওই ইউনিয়নের কোদাইল্যাদিয়া এলাকার বাসিন্দা শেফায়েত উল্লাহ মগনামা মৌজার বিএস ২৫৪৫ নং খতিয়ানের ৬৯৪১ দাগের ২ শতক জমি ১২৭২ নং দলিলমূলে মূল মালিক চান্দার পাড়া এলাকার আবদুল মালেকের কাছ থেকে ক্রয় করে তাতে একটি দোকানঘর নির্মাণ করে। এসময় স্থানীয় বহু মামলার ওয়ারেন্টভুক্ত আসামি চান্দার পাড়া এলাকার ভুট্টো ও আমিরুল কবিরের নেতৃত্বে একদল সন্ত্রাসী তাদের কাছ থেকে চাঁদা দাবি করে। তাদের দাবিকৃত চাঁদা না দেয়ায় ১৬ আগষ্ট রাতের আঁধারে দোকানঘরে লুটপাট চালায় এবং ঘরটি ভেঙ্গে চুরমার করে দেয়। পরদিন দোকান মালিক শেফায়েত বিষয়টি বাজার কমিটির লোকজনকে বিচার দিতে গেলে সন্ত্রাসীরা তার উপর অতর্কিত হামলা চালায়। এসময় বেশ কয়েক রাউন্ড গুলির শব্দ শুনা যায় বলে জানিয়েছে বাজার ব্যবসায়ী ও এলাকার লোকজন। পরে পেকুয়া থানার এসআই মাহফুজের নেতৃত্বে একদল পুলিম ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। সন্ত্রাসীরা আবারো হামলার প্রস্তুতি নেয়। শেফায়েত জানান, গতকাল ১৭ আগষ্ট সে তার লোকজন নিয়ে বাজারে আসার পথে অতর্কিত হামলা চালায় সন্ত্রাসীরা। এসময় সে কোনরকম পালিয়ে বাঁচলেও তার সাথে থাকা লোকজনকে মারধর করে গুরুতর আহত করে সন্ত্রাসীরা। এসময় তারা জনৈক তাহাজ্জুতের মালিকনাধিন একটি মাহিন্দ্রা গাড়িতেও ভাংচুর চালায় বলে জানান তিনি। এ বিষয়ে কাজী মার্কেট বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আসহাব উদ্দিন সওদাগরের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, দুপক্ষের মধ্যে একটি সামান্য জমি নিয়ে একের পর এক ঘটনা হচ্ছে। শেফায়েত গংরা জমিটি ক্রয়মূলে ও ভূট্টো গংরা কোন প্রকার কাগজপত্র ছাড়াই পূর্বের দখলমূলে দাবি করায় দুপক্ষের মধ্যে প্রতিনিয়ত সংঘর্ষ হচ্ছে। থানা পুলিশ এসে দুইপক্ষকে একটি বৈঠকের কথা বললেও তাদের মধ্যে দফায় দফায় সংঘর্ষ বেঁধে যাচ্ছে। এঘটনায় যেকোন মুহুর্তে একটি রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা রয়েছে উল্লেখ করে বিষয়টি নিয়ে আইন-শৃংখলা বাহিনীর হস্তক্ষেপ কামনা করেন তিনি। এ বিষয়ে স্থানীয় ইউপি সদস্য খোরশেদ আলমের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, পরিত্যক্ত একটি জায়গা নিয়ে দুপক্ষের মধ্যে মালিকনা দাবি করে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষে লিপ্ত হচ্ছে। ঘটনার সময় এলাকায় আতংক ছড়াতে গুলি করা হচ্ছে বলেও জানান তিনি। এ বিষয়ে পেকুয়া থানার এস আই মাহফুজের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, জমি নিয়ে মগনামার কাজী মার্কেট এলাকায় দুপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আমরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনি। এখন এলাকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে। ওই এলাকায় আইন-শৃংখলা যাতে বিঘœ না হয় সে বিষয়ে দৃষ্টি রাখা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •