উখিয়ার সাথে পার্বত্য অঞ্চলের সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন

শফিক আজাদ,উখিয়া :

প্রবল বর্ষনে উখিয়া উপজেলার পাশর্^বর্তী পার্বত্য সীমান্তের বৃহত্তর রেজু মৌজা এলাকার ৭,৮ ও ৯নং ওয়ার্ডের সাথে উখিয়ার যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে প্রায় দেড় মাস। বিশেষ করে রেজুপাড়া বিওপি’ ক্যাম্পের পশ্চিম পাশের্^র ঢালায় সড়কের উপর পাহাড়ী ধ্বসে মাটির স্তুপ হয়ে থাকায় ওই এলাকার বসবাসকারী ১০হাজারের অধিক পাহাড়ী-বাঙ্গালীর চলাচল মারাত্মক বাধাগ্রস্থ হয়ে দাড়িয়েছে। সড়ক বিচ্ছিন্ন হওয়ার কারনে সেখানকার উৎপাদিত কৃষিপণ্য বাজারজাত করতে না পেরে ক্ষতির সম্মূখীন হয়ে পড়েছে অনেক পরিবার। যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়ায় স্কুল,কলেজ,মাদ্রাসা পড়ুয়া ছাত্র/ছাত্রীরা পড়ালেখায় ব্যাঘাত হচ্ছে মারাত্মক ভাবে। এনিয়ে ধারাবাহিক রিপোর্ট প্রকাশ করা হয় কক্সবাজারের বহুল প্রচারিত দৈনিক আজকের দেশবিদেশ পত্রিকায়। এর টনক নড়ে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী প্রকৌশলীর। যার প্রেক্ষিতে গতকাল শুক্রবার দুপুরে স্থানীয় সমাজসেবক বিশিষ্ট্য ব্যবসায়ী হায়দার আলীকে সাথে নিয়ে বিচ্ছিন্ন সড়ক পরিদর্শন করেছেন নাইক্ষ্যংছড়ি এলজিইডি সহকারী প্রকৌশলী সহ অন্যান্যরা।

সরজমিন রেজুপাড়া বিওপি ক্যাম্প সংলগ্ন ঢালা ঘুরে রেজু ফাত্রাঝিরি এলাকা বসবাসকারীদের সাথে কথা জানা গেছে, স্বাধীনতার পরবর্তী সময় থেকে তাঁদের একটি দাবী ছিল এ সড়কটি চালু করার। এলাকাবাসির প্রচেষ্টায় অনেক কষ্টের বিনিময়ে দীর্ঘ ১ যুগ পূর্বে তৎকালীন সরকারের আমলে সড়কটি কাজ শুরু হয়। প্রতিমধ্যে উখিয়া ও নাইক্ষ্যংছড়ি দু’উপজেলার সীমান্ত টানাটানি নিয়ে কাজটি বন্ধ হয়ে যায়। পরে তখনকার ঘুমধুম ইউনিয়নের চেয়ারম্যান দীপক বড়ুয়ার প্রচেষ্টা সড়ক কার্পেটিং করা হয়। সম্প্রতি প্রাকৃতিক বন্যা ও পাহাড় ধ্বসে সড়কে বিশাল মাটি স্তুপ হয়ে যাতায়াত বন্ধ হয়ে গেলেও দীর্ঘ সময় ধরে সরকারি,বেসরকারি সাহায্য বা কোন জনপ্রতিনিধি, বিত্তশালী এগিয়ে আসেনি।

স্থানীয় বাসিন্দা ও ব্যবসায়ী হায়দার আলী বলেন, পাহাড়ী মাটি এসে সড়কটি ইতিপূর্বে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিল একাধিক বার। তখনকার চেয়ারম্যান,মেম্বার এবং স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতা চালু করা হলেও এবার বড় ধরনের পাহাড় ধ্বসের কারনে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। এতে বিভিন্ন সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে স্থানীয় লোকজন ও সীমান্তে নিরাপত্তায় নিয়োজিত বিজিবি’ সদস্যদের।

ঘুমধুম ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বাবুল কান্তি চাকমা বলেন, জীবন-জীবিকার তাগিদে অনেক কষ্ট করে আমরা স্থানীয় লোকজন বর্তমানে যাতায়াত করছি। কিভাবে যাতায়াত করছি, রাস্তাটি যোগাযোগ স্বচল হয়েছে কি না? দীর্ঘ দেড় মাস হয়ে গেলেও কেউ খবর নেয়নি। এখানকার কৃষিপণ্য বিক্রয় করে জীবিকা নির্বাহকারী পরিবার গুলো চরম কষ্টে মধ্যে দিনাতিপাত করছে। সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে যাওয়ার কারনে অনেকের কাঁচা তরি-তরকারি নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আমরা সরকারের কাছে দাবী জানাচ্ছি যে, দ্রুত সময়ের মধ্যে আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থা চালু করে দেওয়ার জন্য।

এদিকে বিচ্ছিন্ন সড়কটি সংস্কারের জন্য সরেজমিন পরিদর্শন করেছে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা সহকারী প্রকৌশলী রেজাউল করিম। তিনি এসময় বলেন, বৃহত্তর রেজুবাসির কষ্ট লাঘবের জন্য দ্রুত সময়ের মধ্যে রাস্তাটি যোগাযোগ স্বচল করার হবে।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

প্রকৃত নেতা মাত্রই পল্টিবাজ : ইমরান খান

ক্যারিবীয়দের বিপক্ষে অধিনায়ক সাকিব, ফিরেছেন সৌম্য

বিজয় ফুল তৈরী প্রতিযোগিতায় চট্টগ্রাম বিভাগে প্রথম উখিয়ার নওশিন

চকরিয়ার রুবেল বাঁচতে চায়

দূর্নীতির দায়ে চট্টগ্রামের কারা ডিআইজি প্রিজন ও জেল সুপারের বদলী

মহেশখালী উন্নয়ন পরিষদের নির্বাচন সম্পন্ন

রোহিঙ্গা শিবিরে কলেরা টিকা ক্যাম্পেইন শুরু

শহর পরিচ্ছন্নতায় নামলেন কক্সবাজার পৌর মেয়র

‘বাবা লাগবে? সবুজ গোলাপি লাল সব আছে’

সংসদ নির্বাচনে কেন আসতে চাচ্ছে না বিদেশী পর্যবেক্ষকেরা?

জোট করা ছাড়া কি এবার জয় সম্ভব নয়?

বাংলাদেশের নির্বাচন : কেন কৌশল পাল্টাল ভারত?

কক্সবাজার সদর-রামু আসনে নৌকা পাচ্ছেন কে?

ভারতের রাজনীতিতে যেভাবে প্রভাব ফেলবে বাংলাদেশের নির্বাচন

চার পয়েন্টকে গুরুত্ব দিয়ে তৈরি হচ্ছে আ.লীগের ইশতেহার

মহেশখালীতে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার

দলের সিদ্ধান্ত কতটুকু মানবেন বিএনপির মনোনয়ন প্রত্যাশীরা?

মওলানা ভাসানীর ৪২তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

বিয়ের আগেই ৪৫০ কোটি টাকার বাংলো উপহার

ভারতের তামিলনাডুতে ‘গাজা’র আঘাতে প্রাণ গেল ৩০ জনের