অস্তিত্বহীন লবণ মিলের নামে সিন্ডিকেট, আমদানির পারমিট পেতে তদবির

ইমাম খাইর, সিবিএন:
সরকারের লবণ আমদানির সিদ্ধান্তের সুযোগে কেবল কাগজ-কলম সর্বস্ব অস্তিত্বহীন লবণ মিলের নামে লবণ আমদানির অনুমতি পেতে উঠেপড়ে লেগেছেন ভুয়া লবণ মিল মালিকেরা। ইতোমধ্যে ‘পারমিট’ নিশ্চিত করতে বিসিকের কক্সবাজার ও ঢাকা অফিসের কয়েক কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করা হয়েছে বলে জানা গেছে। কোনো ধরনের লবণ উৎপাদনে নেই, বছরের বেশির ভাগ সময় বন্ধ থাকে এমনকি বিসিকের তালিকায় নেই আবেদনের শেষ দিনে এমন মিলের নামেও আবেদন জমা পড়েছে বলে একটি সূত্রে জানা গেছে। এতে প্রকৃত মিলাররা হতাশ।
অভিযোগ রয়েছে, কক্সবাজারের মহেশখালীর মাতারবাড়ীর এক ব্যক্তি ও শিল্প মন্ত্রণালয়েরর এক যুগ্মসচিব বিসিককে পাশ কাটিয়ে নিজস্ব পছন্দের ৩০-৪০ মিল নিয়ে সিন্ডিকেট করেছেন। পারমিট নিশ্চিত করতে প্রতি মিল থেকে তারা নিয়েছেন ন্যূনতম দেড় লাখ টাকা।
প্রকৃত মিল মালিকদের অভিযোগ- ভুয়া লবণ মিল মালিকদের প্রত্যয়ন ও ফাইল প্রসেসিং কাজে বিসিক লবণ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্পের উপমহাব্যবস্থাপক মো: আবছার উদ্দিন ও মনিটরিং অফিসার নিতাই চন্দ্র রায় সরাসরি জড়িত রয়েছেন। তারা অস্তিত্বহীন মিলের নামে আনুষঙ্গিক ডকুমেন্ট তৈরি করে দিয়েছেন।
অন্য একটি সূত্রের দাবি, বিসিককে সম্পূর্ণ অন্ধকারে রেখে লবণ আমদানির আবেদন ফাইল সংশ্লিষ্ট দফতরে জমা করেছেন অস্তিত্বহীন লবণ মিল মালিকেরা।
কক্সবাজার লবণ মিল মালিক সমিতির সভাপতি সামশুল আলম আজাদ বলেন, আমরা শুনেছি অস্তিত্বহীন কিছু লবণ মিলের নামে ফাইল জমা পড়েছে। কারা এ জালিয়াতির সাথে জড়িত তা তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া দরকার; তা না হলে প্রকৃত মিলাররা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন।
প্রকৃত লবণ মিলের প্রসঙ্গে জানতে চাইলে বিসিক লবণ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্পের উপমহাব্যবস্থাপক মো: আবছার উদ্দিন বলেন, ‘আমার অফিসে কোনো তালিকা নেই। এ বিষয়ে কিছুই জানি না। মনিটরিং অফিসার নিতাই চন্দ্র রায় জানবেন। সম্ভবত তার মাধ্যমে সব করা হয়েছে।’
বিসিক কক্সবাজারের একজন সর্বোচ্চ কর্তা হয়ে কেন কিছুই জানেন না? জিজ্ঞেস করলে তিনি প্রশ্ন এড়িয়ে যান।
সূত্র জানায়, দেশে লবণের সরবরাহ ও বাজার স্বাভাবিক রাখতে গত জুনে শিল্প মন্ত্রণালয়ে খাত সংশ্লিষ্টদের নিয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠকে তিন লাখ টন লবণ আমদানির সিদ্ধান্ত হয়। কিন্তু বাণিজ্য মন্ত্রণালয় অনুমতি দিয়েছে পাঁচ লাখ টন লবণ আমদানির।
বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) কক্সবাজারের লবণ শিল্প উন্নয়ন প্রকল্প কার্যালয় সূত্র জানায়, চলতি বছরে দেশে লবণের চাহিদা ১৫ দশমিক ৭৬ লাখ টন। এর বিপরীতে গত জুনে শেষ হওয়া মওসুমে উৎপাদন হয়েছে ১৩ দশমিক ৬৪ লাখ টন। এ হিসাবে চাহিদার চেয়ে লবণের ঘাটতি আছে দুই লাখ ১২ হাজার টন। কক্সবাজার ও চট্টগ্রামের বাঁশখালী (আংশিক) অঞ্চলের ৬৫ হাজার একর জমিতে লবণ উৎপাদন হয়।
কক্সবাজার সদরের বিসিক শিল্পনগরী ইসলামপুরকেন্দ্রিক ৩৫টিসহ জেলায় ছোট-বড় মিলিয়ে গড়ে উঠেছে অন্তত ৫০টি লবণ কারখানা।

সর্বশেষ সংবাদ

যমজ তিন বোন এক সঙ্গে নিখোঁজ, একজন উদ্ধার

৩৮০০ ইযাবা, ১লাখ ৮১হাজার টাকাসহ দুই মাদক কারবারি আটক

শহরে আবাসিক হোটেলে আটকিয়ে কিশোরী ধর্ষণ, আটক ১

টেকনাফে ১০ হাজার ইয়াবাসহ কারবারি আটক

চকরিয়ায় আইনশৃঙ্খলা বিষয়ক অবহিতকরণ সভা

বঙ্গবন্ধু সাফারি পার্কের গেইট ইজারায় অনিয়মের সত্যতা পেলো দুদক টিম, ফাইল জব্দ

‘ভেজাল শুধু খাদ্যে নয় কাপড় এবং ওষুধের দোকানেও‘

বালিশ কেনার দায়িত্বে থাকা কর্মকর্তা ছাত্রদলের নেতা ছিলেন: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা মেডিকেলে শিশু সাকিবের অপারেশন ১৮ জুন

আজ আমার ভাগ্নে, কাল হয়তো আপনার ভাই-সন্তান : সোহেল তাজ

খাইছে ধরা, খাইবে ধরাঃ সাধু সাবধান!

রেকর্ড গড়ে ঐতিহাসিক জয় বাংলাদেশের

অকালেই চলে গেল কলেজ ছাত্রী রামিসা

মিশরের সাবেক প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মুরসি মারা গেছেন

ভারত থেকে বেনাপোল দিয়ে দেশে ফিরল বাংলাদেশি ৬ নারী

পেকুয়ায় জলমহাল নিয়ে অভিযোগ তদন্তে ইউএনও

আবু তাহের মাসুদের মৃত্যুতে শোকসভা ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত

বাংলাদেশী সেজে পাসপোর্ট করতে গিয়ে ধরা পড়লো রোহিঙ্গা নারী, ৬ মাসের কারাদন্ড

মহেশখালী ফকিরাঘোনার ফরিদের বিরুদ্ধে জাল জালিয়াতি ও আত্মসাৎসহ অভিযোগের পাহাড় 

হ্নীলা উচ্চ বিদ্যালয়ে কোস্ট ট্রাস্টের বিতর্ক ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা