ডেস্ক নিউজ:
সাম্প্রতিক বছরগুলোতে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে বিবাহ বিচ্ছেদের ঘটনা বাড়ছে আশঙ্কাজনকভাবে। তবে কোন ধরনের পরিবারে বেশি বিচ্ছেদ ঘটছে তা নিয়ে রয়েছে প্রশ্ন। ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে জমা পড়া তালাকের তথ্য উপাত্ত বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, মূলত উচ্চ ও নিম্নবিত্ত পরিবারে বিচ্ছেদ বেশি হচ্ছে।

সিটি করপোরেশন সূত্রে জানা গেছে, গত ৬ বছরে দুই সিটি এলাকায় বিচ্ছেদের নোটিশ জমা পড়েছে ৩৬ হাজার ৩৭১টি। এর মধ্যে কার্যকর হয়েছে ৩০ হাজার ৮৫৫টি ও বিচ্ছেদের অপেক্ষায় আছে ৫ হাজার ৫১৬টি। আর স্বামীকে তালাকের নোটিশ ২৪ হাজার ৮০৩টি বা ৬৮ দশমিক ১৯ শতাংশ এবং স্ত্রীকে তালাকের নোটিশ ১২ হাজার ১৮টি বা ৩৩ দশমিক ০৪ শতাংশ। যাদের অধিকাংশের বয়স ৩০/৩৫ বছরের মধ্যে এবং যারা উচ্চ ও নিম্নবিত্ত পরিবারের সদস্য। আর বিয়ের এক বছর না যেতেই তারা বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. নেহাল করিম বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘সাধারণত উচ্চবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের মধ্যে বিচ্ছেদ প্রবণতা বেশি দেখা যায়। তবে মধ্যবিত্ত পরিবারে এমন প্রবণতা অনেকটাই কম।’

বিচ্ছেদের কারণ উল্লেখ করতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘উচ্চবিত্ত ও নিম্নবিত্ত পরিবারের কেউ কারও কথা শুনতে চান না। তারা যে যার কথা মতো চলেন। উচ্চবিত্ত পরিবারের সদস্যরা মনে করেন, নিজেদের অঢেল অর্থ সম্পদ রয়েছে, তাই বিচ্ছেদ হলে সমস্যা হবে না। আর নিম্নবিত্ত পরিবারে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির ফারাক থাকে বেশি। বেশিরভাগ পরিবারের নারীরা চাহিদা অনুযায়ী অনেককিছুই পাননা, অভাব অনটন লেগেই থাকে। ফলে ঝগড়া বিবাদ সৃষ্টি হয়। আর মধ্যব্ত্তি পরিবারের সদস্যরা লোকলজ্জায় ঘর ভাঙতে রাজি হন না।’

বর্তমানে আমাদের দেশে বিচ্ছেদ বেশি হচ্ছে উল্লেখ করে ড. নেহাল করিম বলেন, ‘মূলত নারীর স্বাধীনতা, সচেতনা এবং উপার্জন ক্ষমতা বাড়ায় তারা খুব সহজেই বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নিচ্ছেন।’

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পারস্পরিক বোঝাপড়ার অভাব, ব্যক্তিত্বের সংঘাত, সামাজিক অস্থিরতা, যৌতুক দাবি, নির্যাতন, তথ্য প্রযুক্তি ও আকাশ সংস্কৃতির প্রভাব, দৃষ্টিভঙ্গি, অর্থনৈতিক অস্বচ্ছলতা, পারিবারিক কলহ, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, মাদকাসক্তি, পরকীয়া, সন্দেহপ্রবণতা, ধর্মীয় অনুশাসন মেনে না চলা, নারীর পুরুষ নির্ভরশীলতা কমা, নারীর আত্মমর্যাদা বৃদ্ধিসহ নানা কারণে বিচ্ছেদ ঘটছে। এক্ষেত্রে পুরুষের চেয়ে নারীরাই এগিয়ে।

এ বিষয়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খান মো. বিলাল বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘বিচ্ছেদ একটা সামাজিক বিষয়। সামাজিকভাবে নারীদের আত্মমর্যাদা ও কর্মপরিধি বেড়েছে। অনেক ক্ষেত্রে তারা নিজেরাই স্বয়ংসম্পূর্ণ। স্বামীর ওপর ভরসা করতে চান না তারা। এ জন্য পারিবারে সমস্যা সমস্যা সৃষ্টি হলে তারা বিচ্ছেদের দিকে যাচ্ছেন। তবে নির্যাতন, আচরণগত সমস্যা এবং সামাজিক অস্থিরতাও বিচ্ছেদের একটি বড় কারণ।’

সাম্প্রতিক সময়ে বিনোদন জগতে বেশ কয়েকটি জুটির তালাকের ঘটনা বেশ আলোচিত। যাদের মধ্যে সঙ্গীত ও অভিনয়শিল্পী তাহসান-মিথিলা, কণ্ঠশিল্পী সালমা-শিবলী সাদিক (দিনাজপুর-৬ আসনের সংসদ সদস্য), হাবিব ওয়াহিদ-রেহান, হৃদয় খান-সুজানা এবং মাহিয়া মাহি-শাহরিয়ার ইসলাম শাওনের ঘটনা খুবই আলোচিত। মূলত বিনোদন জগতের আলোচিত ও প্রভাবশালী হওয়ায় এ পরিবারগুলোর ঘর-সংসারের খবর সবাই জানতে পেরেছেন। তবে মিডিয়ার চোখে কখনও ধরা পড়েন না, এমন পরিবারেও বিচ্ছেদের ঘটনা কম নয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •