আবুল আলী, টেকনাফ:

টেকনাফ পৌরসভা টর্নেডোর আঘাত দুইশতাধিক ঘরবাড়ি, দোকানপাট লন্ডভন্ড হয়ে গেছে। এতে আহত হয়েছেন অনন্ত ১০ জন।
মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে টেকনাফ পৌরসভার ৭, ৮ ও ৯ নং ওযার্ড এলাকায় টর্নেডো আঘাতের ঘটনাটি ঘটে।

সরেজমিনে দেখা যায়, টনের্ডোর আঘাতে ওই তিনটি ওয়ার্ডে অধিকাংশ ঝুপড়ি ঘর, টিনশেড ঘর, সেমিপাকা ভবন, বাড়ির ঘেরা-বেড়া, দোকানপাট, গাইড ওয়াল, বিদ্যুৎতের খুঁটি, গাছপালা ভেঙে পড়ে লন্ডভন্ড করে গেছে। ক্ষতিগ্রস্থ মানুষগুলো খোলা আকাশের নিচে রয়েছে। আহত লোকজন হলো- নুরুল আমিন (৪৫), কালাচাঁন বিবি (৪২), হামিদ হোসেন (৪০), মদিনা বেগম (৩৫), কালু মিয়া (৪০), জয়নাব খাতুন (২৬), মোরশেদ আলম (২২), আলমগীর হোসেন (১৬), সফিনা বেগম (১১) ও বদি আলম (৯)।

ক্ষতিগ্রস্থরা বলেন, ঘুণিঝড় মোরার আঘাতে ঘরবাড়ি বিধবস্ত হওয়ার পর ঘুরে দাড়াঁনোর কয়েকদিনে মধ্য (আজ) আবার টর্নেডো আঘাত হানে। এতে আমাদের সবকিছু শেষ করে দিল। মোরার আঘাতে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হলেও সরকারী ভাবে মাত্র ১০ কেজি চাল ছাড়া আর কোন ত্রাণ সহায়তা পায়নি। এ টনের্ডোটি প্রায় ৫-৪ মিনিটেরও কম সময়ের আঘাতে বিদ্যুতিক খুঁটি, গাছপালা, ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড করে গেছে। ঘরবাড়ির চালা, গাছপালা ও টিন পড়ে অনেকে আহত হয়েছেন। ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ নিধারণ করতে দুপুরের পর থেকে পৌরসভা কাজ করছে।

টেকনাফ পল্লি বিদ্যুৎ সমিতির সহকারী ব্যবস্থাপক শহিদুল ইসলাম বলেন, টনের্ডোর আঘাতে তিনটি খুটি ভেঙে গেছে। গাছপালা পড়ে অধশতাধিক সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। সেগুলো মেরামতের জন্য লোকজন পাঠানো হচ্ছে।

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে টেকনাফ পৌরসভার মেয়র মোহাম্মদ ইসলাম বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা পরিদর্শন করেছি । টনের্ডোতে তিনটি ওযার্ডে দুই শতাধিকের বেশি ঘরবাড়ি লন্ডভন্ড করে ফেলেছে।

টেকনাফ উপজেলা নিবাহী কর্মকর্তা ইউএনও মো. জাহিদ হোসেন ছিদ্দিক বলেন, ক্ষতিগ্রস্থ পরিবারগুলো যাতে দ্রুত ত্রাণ সহায়তা পায় সে ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •