বন্যায় সতর্কতা

ডেস্ক নিউজ:

দেশের বিস্তীর্ণ অঞ্চল বিশেষ করে নিম্নাঞ্চলে দেখা দিয়েছে বন্যা। বন্যার পানি বাড়িঘরে ওঠার পর এবং পানি নেমে যাওয়ার সাথে সাথে পানিবাহিত নানা রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়। বিশুদ্ধ পানির অভাবে দেখা দেয় পানিবাহিত নানা রোগ যেমন- ডায়রিয়া, কলেরা, আমাশয়, টাইফয়েড, পেটের পীড়া, কৃমির সংক্রমণ, চর্মরোগ প্রভৃতি। একটু স্বাস্থ্য সচেতন হলেই এসব সংক্রমণ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব।
বন্যা শুরুর আগে থেকেই বিশুদ্ধ পানির ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে। বিশুদ্ধ পানি না পাওয়া গেলে পানি ভালোমতো ফুটিয়ে পান করতে হবে। দৈনন্দিন ব্যবহারিক কাজেও টিউবওয়েলের পানি ব্যবহার করতে হবে। বন্যার সময় টিউবওয়েলের উপরি ভাগের পানি চেপে ফেলে দিয়ে ব্যবহার করতে হবে। পানি ফুটানো ছাড়াও ফিটকারি অথবা ব্লিচিং পাউডার মিশিয়ে পানি বিশুদ্ধ করা যায়।
বন্যা পরবর্তী প্রধান স্বাস্থ্য সমস্যা হলো ডায়রিয়া। ডায়রিয়া প্রতিরোধের জন্য খাবার আগে সাবান বা ছাই দিয়ে নিরাপদ পানির সাহায্যে ভালোভাবে হাত ধুয়ে নিতে হবে। প্রতিবার মলত্যাগের পরে হাত ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে। স্যানিটারি বা স্বাস্থ্যসম্মত টয়লেট ব্যবহার করতে হবে। ডায়রিয়া বা পাতলা পায়খানা শুরু হলে নিয়মিত খাবার স্যালাইন খেতে হবে। বন্যার সময়ে খাবার স্যালাইনের সঙ্কট দেখা দেয়, এজন্য আগে থেকেই খাবার স্যালাইন সংগ্রহ করে রাখা ভালো। খাবার স্যালাইন না থাকলে বিকল্প হিসেবে বাড়িতে প্রস্তুত লবণ-গুড়ের তৈরি স্যালাইন খাওয়ানো যেতে পারে। পাশাপাশি ডায়রিয়া আক্রান্ত রোগীকে স্যালাইনের পাশাপাশি ভাতের মাড়, চিঁড়ার পানি, ডাবের পানি, গুড়ের শরবত দেয়া যেতে পারে। এ সময় যাতে শিশুর পুষ্টিহীনতা না হয়, সেদিকে লক্ষ রাখতে হবে। ডায়রিয়া হলে রোগীর স্বাস্থ্যের অবনতি হতে থাকলে দ্রুত হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। এ ক্ষেত্রে অবহেলা করা কোনোভাবেই উচিত হবে না। বন্যার সময় মলমূত্রত্যাগে সতর্কতা অবলম্বন করা খুবই জরুরি একটি বিষয়। যেখানে সেখানে মলত্যাগ করার ফলে পেটের পীড়া তো রয়েছেই, উপরন্তু কৃমির সংক্রমণ বেড়ে যায়। বন্যার সময় আকস্মিক দুর্ঘটনা থেকে সাবধান থাকতে হবে।
বন্যার কারণে যেমন রোগের বিস্তার বৃদ্ধি পায় তেমনি দেখা দেয় আকস্মিক কিছু দুর্ঘটনা। কেবল একটু সতর্কতার মাধ্যমে এসব দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। বন্যায় সাধারণত বৈদ্যুতিক দুর্ঘটনা, পানিতে ডুবে যাওয়া, সাপ ও পোকামাকড়ের কামড়ের ঘটনাগুলো বেশি ঘটে থাকে। পানিতে ডুবে যাওয়া ও সাপের কামড়ে আক্রান্ত ব্যক্তিকে দ্রুত হাসপাতালে নেয়ার ব্যবস্থা করতে হেেব। বন্যার সময় শিশুদের প্রতি বাড়তি নজর রাখতে হবে। এ সময় শিশুদের চোখের আড়াল করা যাবে না। অভিভাবকদের অসচেতনতার দরুণ বন্যার পানি থেকে শিশুদের দুর্ঘটনাও ঘটতে পারে। একটু বাড়তি নজর রাখলেই এ ধরনের দুর্ঘটনা থেকে শিশুরা রক্ষা পেতে পারে।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

ড. কামালের আসল চেহারা উন্মোচিত: সজীব ওয়াজেদ জয়

গণমাধ্যমকর্মী আইন : যেসব সুবিধা পাবেন সাংবাদিকরা

৮ হাজার রোহিঙ্গাকে ‘স্বীকার’ করেছে মিয়ানমার

মালুমঘাট ডুলাহাজারা খুটাখালীতে পথসভায় ইলিয়াছ এমপি

চকরিয়ায় পুজা মন্ডপ পরির্দশনে জেলা প্রশাসক ও উপজেলা চেয়ারম্যান

রাষ্ট্র পরিবর্তনে আমার দু-কথা

বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে এবার তথ্য চুরি

চকরিয়ায় অণ্ডকোষ চেপে কেড়ে নিল ছাত্রের প্রাণ

২ লাখ ৬ হাজার ৯২০ পিস বার্মিজ সিগারেটসহ মাদক ব্যবসায়ী আটক

কুতুবদিয়ায় অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার নেই

সেন্টমার্টিন দ্বীপে পর্যটন সীমিত করণ প্রত্যাহারের দাবীতে প্রধানমন্ত্রীর কাছে টুয়াকের স্মারকলিপি 

১১ দল নিয়ে জেলা ফুটবল লীগ শুরু হচ্ছে ২৬ অক্টোবর

রামুতে দু’জন আটক : ২৫ হাজার টাকা জরিমানা আদায়

উন্নয়নশীল দেশ গঠনে আওয়ামী লীগের বিকল্প নেই- কমল এমপি

কক্সবাজারের পেকুয়ায় ‘গায়েবী মামলা’য় ১৬ বিএনপি নেতা-কর্মী আসামি

প্রথম আলোর বিতর্ক উৎসব ২৯ অক্টোবর 

চেয়ারম্যানের উদ্যোগে ৫’শ শিক্ষার্থী পেল একবেলা খাবার

সনাতন ধর্মালম্বীদের পুলিশ সুপার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন

কক্সবাজার-৪ আসনে ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের প্রার্থী মাওলানা মোহাম্মদ শোয়াইব

পেকুয়ায় ছিনতাইয়ের শিকার চীনা নাগরিক