সংবাদদাতা
কক্সবাজার সদরের ইসলামপুর নতুন অফিস বাজার এর উত্তর পার্শ্বে (ছাবের মৌলভীর গর্জন গাছ তলা) দীর্ঘদিন ধরে প্রতিষ্ঠিত মাদক ও জুয়ার দুইটি আস্তানা অবশেষে গুড়িয়ে দিয়েছে স্থানীয় জনতা। শুক্রবার দুপুরে নতুন অফিস ও কৈলাশেরঘোনা এলাকার অর্ধশতাধিক জনতা দুঃসাহসিক এ কাজে অংশ নেয়।
এদিকে মাদক ও জুয়ার আস্তানা গুড়িয়ে দেয়ার পরপরই নতুন অফিস বাজারে গুলি বর্ষণের মাধ্যমে পুরো এলাকায় ভীতি সঞ্চার করে স্বশস্ত্র সন্ত্রাসীরা। তাদের হামলায় আহত হয়েছে অন্তত ১০ জন। সেখানে ৩ জনের অবস্থা গুরুতর। তারা হলো- ইসলামপুর উত্তর নাপিতখালী এলাকার মনজুর আলমের ছেলে মোহাম্মদ মোস্তফা (২৮), কৈলাশেরঘোনা এলাকার ছৈয়দ আলমের ছেলে আবদুশ শুক্কুর (৩৭) ও শাহ আলমের ছেলে জসিম উদ্দিন (৩০)। তাদের মধ্যে একজনের কান ও অপরজনের হাত কেটে গেছে বলে জানা গেছে। তাদের স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। এ ঘটনায় এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে। ঈদগাঁও পুলিশ তদন্তকেন্দ্রের ইনচার্জ মো. খাইরুজ্জামান ঘটনার খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানান।
আহতরা জানায়- খুটাখালী শিয়াপাড়ার চিহ্নিত সন্ত্রাসী ইমাম শরীফ প্রকাশ টুয়াইয়া, জসিম উদ্দিন, এনাম, আবদুর রশিদ পেঠান, ফারুক, মিনহাজ, হেলাল উদ্দিন, সাহাব উদ্দিনের নেতৃত্বে ঘটনাটি ঘটে।
এলাকাবাসী জানায়, ফুলছড়ি শিয়াপাড়ার ইমাম শরীফ প্রকাশ টুয়াইয়া, পেঠান, সাহাব উদ্দিনের নেতৃত্বে নতুন অফিস বাজার এর উত্তর পার্শ্বে (ছাবের মৌলভীর গর্জন গাছ তলা) দুইটি বাসা নির্মাণ করে সেখানে মদ ও জুয়ার গড়ে তুলে। সেখানে বিক্রি হতো ইয়াবাসহ বিভিন্ন মামকদ্রব্য। তাতে জড়িত ছিল স্থানীয় জুমনগর এলাকার চিহ্নিত ১০/১২ জন ওঠতি বয়সী যুবক। আনাগুনা ছিল বিভিন্ন পুরাতন মাদক ব্যবসায়ী ও জুয়াড়ীদের। শুক্রবার দুপুরে নতুন অফিস ও কৈলাশেরঘোনা এলাকার অর্ধশতাধিক ক্ষুব্ধ জনতা ওই আস্তানা ভেঙে দেয়। এতে ক্ষুব্ধ জুয়াড়ীরা নতুন বাজারে গিয়ে হামলা ও গুলি বর্ষণের ঘটনা ঘটিয়েছে।
স্থানীয়দের মতে- আস্তানা দুইটি আরাকান সড়কের পাশে হওয়ায় খুব সহজেই চলতো মাদকদ্রব্যের বিকিকিনি। দূর দূরান্ত থেকে যেতো জুয়াড়ী ও মাদকসেবীরা। আস্তানা দুইটির নিয়ন্ত্রণকারী প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের বিরুদ্ধে কথা বলতে সাহস করেনা কেউ। শুধু তায় নয়- চিহ্নিত এই দুই আস্তানায় শুধু মদ ও জুয়ার আসর বসতোনা। এখানে অনেক তরুনী ধর্ষণের ঘটনাও ঘটেছে। এখান থেকে নিয়ন্ত্রিন হতো ডাকাতি, চুরি, অপহরণসহ নানা অপরাধকর্ম।
অভিযোগ রয়েছে- যারা এসব সমাজ বিধ্বংসী কাজের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় তাদের উপর নেমে আসে নির্যাতন, হুমকী ও মিথ্যা মামলা। স্থানীয় প্রশাসনও মাদক ব্যবসায়ীদের সাথে মাসিক মাসোহারায় কোন দৃশ্যমান পদক্ষেপ নেয়না। যে কারণে দীর্ঘদিন অক্ষত থেকে যায় ঘৃণিত এই দুইটি আস্তানা।
এদিকে দীর্ঘ দিন পরে হলেও মাদক ও জুয়ার চিহ্নিত আস্তানা গুড়িয়ে দেয়ার অভিযানে যারা ভূমিকা রেখেছে তাদের সকলকে সাধুবাদ জানিয়েছে এলাকাবাসী।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •