আমি কুদরত উল্লাহ সিকদার,সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক,ঝিলংজা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এবং ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ড়ের এম ইউ পি।আমি দীর্ঘদিন যাবত আওয়ামীলীগ রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত রয়েছি।আমি অত্র এলাকার গরিব দুঃখি মানুষের পাশে সবসময় ছিলাম,তাই অত্র এলাকার জনগন আমাকে অত্র এলাকার প্রতিনিধি নির্বাচিত করেছেন। গত ২১ শে জুন কক্সবাজার নিউজ ডট কমে আমার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি অভিযোগ আনা হয়,যা সম্পূর্ন ভিত্তিহীন এবং বানোয়াট। অত্র এলাকার কুখ্যাত জামায়াত শিবির সন্ত্রাসি তাহের আহমদ সিকদার আমার সুনাম ক্ষুন্ন করার উদ্দেশ্যে আমার বিরুদ্ধে উঠে পরে লেগেছে।তাছাড়া আমি ২১ শে জুন, কক্সবাজার উপজেলা নির্বাহি অফিসারের নেতৃত্বে ঝিলংজার লিংকরোডস্থ বিসিক এলাকায় ঝুকিপূর্ন পাহাড়ে বসবাসকারীদের নিরাপদ স্থানে স্থানান্তরকরণ অভিযানে, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি হিসেবে অংশগ্রহন করেছিলাম,ঐদিন ঐ অভিযানে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান, ঝিলংজা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সহ উপস্থিত ছিল।উক্ত প্রতিবেদনে উল্লেক্ষিত আব্দু সালাম এবং লাইনম্যান মুসা দীর্ঘক্ষণ ধরে বেপরোয়া ভাবে রাস্তার যানজট সৃষ্টি করে রেখেছিল,তাই লিংকরোড যানজট নিরসনের লক্ষ্যে হাইওয়ে পুলিশের সাথে আলোচনা সাপেক্ষে দুজন কমিউনিটি পুলিশ নিয়োগ করা হয়, তারা যানজট নিরসনের লক্ষ্যে আব্দু সালাম এবং মুছার যানবাহনকে রাস্তা থেকে সরিয়ে দেয়,তখন তাহের আহমদ সিকদার ঐ সুযোগে তাদেরকে উস্কানি দিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যে অভিযোগ প্রকাশে বাধ্য করে। তাহের আহমদ সিকদার এলাকার কুখ্যাত সন্ত্রাসি,তার বিরুদ্ধে অজস্র অপরাধের অভিযোগ রয়েছে।সে কক্সবাজার সরকারি কলেজের জামায়াত শিবির কতৃক ছাত্রলীগ নেতার উপর বর্বরোচিত হামলায় এবং কক্সবাজার পলিটেকনিক্যাল ইনিস্টিটিউট এ ছাত্রলীগের উপর হামলায় প্রত্যক্ষ নেতৃত্ব দানকারী।তাছাড়া তাহের  আহমদ ঝিলংজার লার পাড়ার আওয়ামীলীগ নেতা শাহ আলমকে অতর্কিত হামলা করে, ঐ হামলার কিছুদিন পরে শাহ আলম মৃত্যু বরণ করে।তাহের আহমদ সিকদার দীর্ঘদিন ধরে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করছে।এবং এলাকায় প্রভাব বিস্তার করার লক্ষ্যে বিভিন্ন সন্ত্রাসিমূলক কর্মকান্ড় করে যাচ্ছে। তাই , এহেন মিথ্যা সংবাদে কাউকে বিভ্রান্ত না হওয়ার জন্য অনুরোধ করছি।

কুদরত উল্লাহ সিকদার

কক্সবাজার সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সাধারন সম্পাদক,

ঝিলংজা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক

ঝিলংজা ইউনিয়ন পরিষদের ৪নং ওয়ার্ড় এম ইউ পি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •