উখিয়ায় পাকিস্তান ও ভারত ফাইনাল ঘিরে লাখ লাখ টাকার জুয়ার প্রস্তুতি

শহিদ রুবেল, উখিয়া:
ক্রিকেট বিশ্বের সবচেয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতাপূর্ণ ম্যাচ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির ফাইনালে পাকিস্তান ও ভারতের জমজমাট লড়াইকে কেন্দ্র করে উখিয়ার জুয়াড়ি সিন্ডিকেট লক্ষ লক্ষ টাকার জুয়ার মিশনে নেমেছে বলে খবর পাওয়া গেছে। আজ রবিবার ১০ বছর পর আইসিসির কোনো বড় টুর্নামেন্টের ফাইনালে মুখোমুখি হচ্ছে ধারাবাহিক দল ভারত এবং আনপ্রেডিক্টেবল পাকিস্তান। ঈদের আগে মোক্ষম এই সুযোগ কাজে লাগাতে ফাইনালের আগের দিন থেকে বাজির রেট  নির্ধারণ এবং জুয়ায় নেমে পড়েছে শক্তিশালী জুয়া সিন্ডিকেট । ফলে আইন শৃংঙ্খলা পরিস্থিতির চরম অবনতির আশংকা বিরাজ করছে।
অনুসন্ধানে জানা যায়, উপজেলার উখিয়া সদর, কোটবাজার, মরিচ্যা, সোনারপাড়া, কুতুপালং, বালুখালী, পালংখালীসহ বিভিন্ন এলাকায়  চিহ্নিত কয়েকজন জুয়াড়ীর মধ্যস্থতায় লক্ষ লক্ষ টাকা লেনদেন করা হচ্ছে। সাধারণ মানুষকে প্রলোভনে ফেলে কয়েকটি শক্তিশালী জুয়াড়ী সিন্ডিকেট এইসব টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে। উপজেলার  বিভিন্ন চায়ের দোকান, সেলুনসহ বিভিন্ন স্থান থেকে মোবাইল থেকে জুয়া নিয়ন্ত্রণে করে জুয়াড়ী সিন্ডিকেট। এই সিন্ডিকেটে রয়েছে স্থানীয় ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে ড্রাইভার এমনকি শ্রমজীবিও। এদিকে সিন্ডিকেটটি মুলত বিভিন্ন দেশের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট, টি টোয়েন্টি আসর, এমনকি ঘরোয়া লীগ ও বাদ যাচ্ছে না জুয়াড়িদের কবল থেকে। শক্তিশালী দলের পক্ষে জয়-পরাজয়ের পাশাপাশি প্রতি ওভারে ওভারে ধরা হয় বাজি। এই জুয়ার শ্রুতে টাকার পাশাপাশি হারাচ্ছে নিজস্ব ব্যবহৃত জিনিসপত্রও। ইতিপূর্বে  অনেকে স্ট্যাম্পে স্বাক্ষর দিয়ে ধার-দেনা করে জুয়া খেলায় মেতে উঠেছে। পরে ওই টাকা পরিশোধ করতে না পারায় নানান বিশৃংখল ঘটনার সৃষ্টি হচ্ছে। অনেকে আবার ধারের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে পালিয়ে বেড়াচ্ছে বলে জানা গেছে।
উপজেলার কয়েকজন ব্যবসায়ীর সাথে কথা বলে জানা যায়, আসন্ন ঈদ উপলক্ষে ব্যবসায়ীক ব্যস্ততার পরিমাণ বেড়ে গেছে। এদিকে সিন্ডিকেট ভিত্তিক জুয়াড়ির লাখ লাখ টাকার জুয়ায় মেতে উঠায় প্রতিনিয়ত ছোট ছোট হাতাহাতির ঘটনা ঘটে। এইদিকে ফাইনাল ভারত-পাকিস্তানের ফাইনাল খেলায় জুয়াড়ি সিন্ডিকেট আরো বেপরোয়া হয়ে উঠায় আইন শৃংঙ্খলা পরিস্থিতির অবনতির আশংকা রয়েছে।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উখিয়া ডিগ্রি কলেজের এক ছাত্র জানায়, লোভের ফাদে পড়ে নিজের সব টাকা হারিয়েছি। এমনকি পরিবারের জিনিসপত্র চুরি করে বিক্রি করে দিয়েছি জুয়ার কারণে। ক্রিকেট জুয়া এমন এক মারাত্মক জিনিস টাকা হারিয়ে ফেললে পাওয়ার আশায় আবারো জড়িয়ে একেবারে সব শেষ হয়ে যায়।
স্থানীয় পালং আদর্শ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষক খাইরুল বাশার বলেন, সব ধরনের জুয়া এক ধরনের মানসিক বিকৃতি ঘটায়। এইটা পরিবার এবং সমাজের জন্য বিপদজনক।
স্থানীয় এনজিও হেলপ কক্সবাজারের নির্বাহী পরিচালক আবুল কাসেম জানান, ক্রিকেট জুয়ায় সব পেশার মানুষ জড়িয়ে পড়ায় বেড়ে যাচ্ছে নানান বিশৃঙ্খল ঘটনার। জুয়ার নেশায় পারিবারিক সহিংসতা, নির্যাতনও পাল্লা দিয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে। অবিলম্বে ক্রিকেট জুয়ার বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।
এই ব্যাপারে উখিয়া থানার কর্মকর্তা আবুল খায়ের জানান, উখিয়ার কোন খেলা নিয়ে জুয়া হলে কঠোর হাতে দমন করা হবে।

সর্বশেষ সংবাদ

সমাজসেবায় মাদার তেরেসা স্বর্ণ পদক পেলেন কামরুল হাসান

পরিচালকের যৌনতার অভিযোগে প্রিন্সিপ্যালের পদত্যাগ

ফেঁসে গেলো খরুলিয়ার ভূমিদস্যু শফিক, ১২ জনের বিরুদ্ধে মামলা

বসতভিটা রক্ষার চেষ্টাই কাল হলো তাদের

বর্তমান শাসনামলে খেলাপি ঋণ সবচেয়ে বেশি বেড়েছে: মেনন

সকল মানুষের কাছে চিরকাল স্মরণীয় হয়ে থাকবেন কবি আল মাহমুদ

নুসরাত হত্যাকারিদের দ্রুত শাস্তি দাবী পূজা উদযাপন পরিষদের

খরুলিয়ার জমি সংক্রান্ত বিরোধের ঘটনাস্থল পরিদর্শনে এমপি কমল

চকরিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় এনজিও কর্মী নিহত

পেকুয়ায় কাছারীমোড়া সাহিত্যকেন্দ্রের উদ্বোধন

বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির দেশ হিসেবে দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে -ধর্ম প্রতিমন্ত্রী

শৃংখলা মেনে চললে যানজটের ও দুর্ঘটনাও কমে আসবে – ভারপ্রাপ্ত পুলিশ সুপার

শ্রীলঙ্কা হামলায় আইএসের বুনো উল্লাস

শ্রীলঙ্কায় হামলার পেছনে ‘ন্যাশনাল তৌহিদ জামাত’

চট্টগ্রামে আসামি ধরতে গিয়ে গোলাগুলিতে আহত ৬ পুলিশ

মক্কা থেকে হারিয়ে গেল কক্সবাজারের সাদ

আল্লাহর কসম খেয়ে বলছি মাদকের সাথে আমি জড়িত নই- দিদার বলী

জিন তাড়ানোর বাহানায় যৌন সম্পর্ক গড়তো সেই পিয়ার

নুসরাত হত্যাকাণ্ডে অভিযুক্ত রুহুল আমিনের উত্থানের নেপথ্যে

বেনাপোল বন্দরের নির্মান কাজের চুরি যাওয়া রড উদ্ধার