ব্যাংকে টাকা রাখাই বিপদ

– শেখ শাফায়াত হোসেন
ব্যাংকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত জমা বা উত্তোলনের ওপর থেকে কোনো ধরনের এক্সাইজ ডিউটি বা আবগারি শুল্ক নেবে না সরকার। তবে বছরের যেকোনো সময় যেকোনো ব্যাংক হিসাবে এক লাখ এক থেকে ১০ লাখ পর্যন্ত যেকোনো অঙ্কের টাকা জমা বা তোলা হলে বছর শেষে ওই হিসাব থেকে আবগারি শুল্ক বাবদ ৮০০ টাকা কাটা হবে। প্রতিবছর ৩১ ডিসেম্বর এই শুল্ক কর্তন করে সরকারি কোষাগারে জমা দেয় ব্যাংকগুলো। সারা বছরে কোনো ব্যাংক অ্যাকাউন্টধারী যদি একবারও এমন লেনদেন না করে ৩০ ডিসেম্বর একবারের জন্য এমন অঙ্কের লেনদেন করেন তাহলেও নির্ধারিত হারে আবগারি শুল্ক দিতে হবে। আগামী ১ জুলাই শুরু হওয়া ২০১৭-১৮ অর্থবছর থেকে নতুন এই আবগারি শুল্ক হার কার্যকর করার প্রস্তাব করেছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

চলতি অর্থবছরের (২০১৬-১৭) বাজেটে এক লাখ এক থেকে ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেনের ওপর আবগারি শুল্ক ধার্য আছে ৫০০ টাকা। নতুন অর্থবছরে সেটি বাড়িয়ে ৮০০ টাকা করার প্রস্তাব রেখেছেন অর্থমন্ত্রী। তবে এক লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেন হলে কোনো আবগারি শুল্ক দিতে হবে না গ্রাহককে। চলতি অর্থবছরের বাজেটে ২০ হাজার টাকা পর্যন্ত লেনদেন আবগারি শুল্কমুক্ত রাখা আছে। আর ২০ হাজার এক টাকা থেকে এক লাখ টাকা পর্যন্ত জমা ও তোলার ওপর আবগারি শুল্ক ধার্য আছে ১৫০ টাকা।

নতুন অর্থবছরের বাজেটে ১০ লাখ এক টাকা থেকে এক কোটি টাকা পর্যন্ত লেনদেনের ওপর দুই হাজার ৫০০ টাকা আবগারি শুল্ক আরোপ করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে। বর্তমানে একই অঙ্কের ওপর এক হাজার ৫০০ টাকা নিচ্ছে সরকার।

আগামী অর্থবছরে এক কোটি এক টাকা থেকে পাঁচ কোটি টাকা পর্যন্ত লেনদেনের ওপর ১২ হাজার টাকা আবগারি শুল্ক প্রস্তাব করা হয়েছে। একই অঙ্কের লেনদেনের ওপর চলতি অর্থবছরে সাত হাজার ৫০০ টাকা আবগারি শুল্ক দিতে হচ্ছে। আগামী অর্থবছরে পাঁচ কোটি এক টাকা থেকে এর ওপরে যেকোনো অঙ্কের লেনদেনে ২৫ হাজার টাকা আবগারি শুল্ক আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে। বর্তমানে একই অঙ্কের লেনদেনে আবগারি শুল্ক বাবদ দিতে হচ্ছে ১৫ হাজার টাকা।

গতকাল বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে বাজেট বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী বলেছেন, সরকারের অন্তর্ভুক্তিমূলক দৃষ্টিভঙ্গি এবং সামগ্রিক ব্যবসা-বাণিজ্যের সম্প্রসারণের ফলে ব্যাংকিং লেনদেন দিন দিন বাড়ছে। এই পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে তিনি সরকারের রাজস্ব আদায় বাড়ানোর লক্ষ্যে দি এক্সাইজ অ্যান্ড সল্ট অ্যাক্ট, ১৯৪৪ বাস্তবায়নে কিছু পরিবর্তন আনার প্রস্তাব করেন।

জানতে চাইলে মেঘনা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ নুরুল আমিন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘শোনা যাচ্ছিল ১০ লাখ টাকা পর্যন্ত লেনদেনে ১০০০ টাকা এক্সাইজ ডিউটি আরোপ করা হবে। কিন্তু অর্থমন্ত্রী ৮০০ টাকার প্রস্তাব করায় কিছুটা স্বস্তি পাওয়া গেল। ’
-কালের কণ্ঠ

cbn

সর্বশেষ সংবাদ

লোহাগাড়ায় ইয়াবা ও চোলাই মদসহ আটক ২

এখন সরকার ‘অব দ্য লুটেরাস, বাই দ্য লুটেরাস, ফর দ্য লুটেরাস’ : মির্জা ফখরুল

কক্সবাজার প্রেসক্লাব সভাপতি মাহবুবের ছোট ভাই মিতুলের জানাজা ও দাফন সম্পন্ন

ইসলামিক ফাউন্ডেশনের জাতীয় হিফজুল কুরআন প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণ

চট্টগ্রামে কুকুরের মুখ হতে নবজাতক উদ্ধার করলে এসআই 

ডেঙ্গুতে যারা বেঁচে যাচ্ছে, তাদের আল্লাহই বাঁচাচ্ছে- হাইকোর্ট

টানা ৬ ঘণ্টা ধরে অনলাইনে গেইম খেলে কিশোরের মৃত্যু

বেনাপোলে ৩টি পিস্তল, ৬৬ রাউন্ড গুলি, ৩টি ম্যাগজিন ও ১কেজি গান পাউডার সহ গ্রেপ্তার-১

একটি রাত

চট্টগ্রামে ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১

জাকির নায়েকের বক্তব্য দেয়া নিষিদ্ধ করল মালয়েশিয়া

অপরাধীদের শাস্তি দ্রুত নিশ্চিত না করায় ধর্ষণ বেড়েছে: হাইকোর্ট

প্রত্যাবাসনের তালিকাভুক্ত রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার শুরু আজ

নবম ওয়েজবোর্ডের গেজেট প্রকাশে বাধা নেই

ডেঙ্গু রোগীরা ছয়মাস পর্যন্ত কাউকে রক্ত দিতে পারবেন না

পেকুয়ায় বন্দুকযুদ্ধে উপকূলের শীর্ষ জলদস্যু বাদশা নিহত, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার

কর্ণফুলীতে বীরদর্পে ছুরি উচিয়ে চাঁদা দাবি, থানায় অভিযোগ

হাটহাজারীতে গৃহবধুর ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

কর্ণফুলীতে বিক্ষুব্ধ জনতার পুলিশ বক্স ভাংচুর , টিয়ার গ্যাস নিক্ষেপ

ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী জয়শঙ্কর ৩দিনের সফরে ঢাকায়