চৌফলদন্ডি ইসলামপুর ও পোকখালীতে ২ হাজার কাঁচা বাড়ীঘর বিধ্বস্ত

খাদ্য ও পানীয় জলের তীব্র সংকট

সেলিম উদ্দিন, ঈদগাঁও (কক্সবাজার) : মোরা’র প্রভাবে কক্সবাজার সদরের উপকূলীয় ইউনিয়ন চৌফলদন্ডি, ইসলামপুর ও পোকখালীর গোমাতলীতে হাজার হাজার মানুষ নিদারুন দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। ক্ষতিগ্রস্থ এলাকায় খাদ্য, পানীয়জল এবং বিদ্যুত সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। চুলা জ¦ালাতে না পেরে ক্ষতিগ্রস্থরা সেহেরী না খেয়ে পানি খেয়ে রোজা রাখছেন।

পোকখালীর চেয়ারম্যান রফিক আহমদ জানান, তার ইউনিয়নের ৭, ৮ এবং ৯ ওয়ার্ড গত ২ দিন ধরে জোয়ারের পানি বেড়ে যাওয়াতে উত্তর, পূর্ব ও পশ্চিম গোমাতলীসহ বিশালকার এলাকা ৩/৪ ফুট ধরে পানির নিচে তলিয়ে গেছে। ইউনিয়নের পশ্চিম গোমাতলীর হামিজ্জিঘোনা, দক্ষিন ঘোনা, সোজার ঘোনা, বিরাশি ঘোনা, বোরাকঘোনা, কাটাঘোনা, মেজর ঘোনা, আব্দুল্লাখানের ঘোনা, এ ব্লক, ডি ব্লক, ও সি ব্লক ঘোনা জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। ভেঙ্গে গেছে বাড়ি ঘর, গাছপালা। পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছে ২-৩ হাজার মানুষ।

চৌফলদন্ডির ইউনিয়নের ওয়াজ করিম বাবুল জানান, তার ইউনিয়নের নি¤œাঞ্চল এখন ৩/৪ ফুট পানির নিচে রয়েছে। দূর্ভোগে পড়েছে ইউনিয়নের ২/৩ হাজার মানুষ।

ইসলামুপর ইউনিয়নের মেম্বার কবির আহমদ জানিয়েছেন তার ইউনিয়নের পশ্চিম, উত্তর ও দক্ষিন খান ঘোনার সব চিংড়িঘের জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। পানি বন্দি হয়ে আছে মানুষ।

ঈদগাঁও ইউপি চেয়ারম্যান ছৈয়দ আলম জানিয়েছেন ঘূর্ণিঝড় মোরার প্রভাবে কুলাল পাড়া, শিয়া পাড়া, দরগাহ পাড়া, কালিরছড়ার পূর্ব ভূতিয়ারপাড়া, মাছুয়াখালী, উত্তর ও মধ্যম মাইজপাড়া এবং জাগিরপাড়া ভীষণভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। লন্ডভন্ড হয়ে গেছে রাস্তাঘাট, উপড়ে গেছে গাছপালা ও বৈদ্যুতিক খুঁটি, মরে গেছে হাঁস-মুরগী। ইসলামাবাদে গাছ পড়ে এক কন্যা শিশুর মৃত্যু হয়েছে।

গোমাতলীর ৬ নং স্লুইস গেইট পয়েন্টের ভাঙ্গা দিয়ে জোয়ারের পানিতে বেশ কয়েক স্থানে ভেঙ্গে গেছে বেঁড়ী বাঁধ। বেড়ী বাঁধের ভাঙ্গা অংশ দিয়ে জোয়ারের পানি প্রবেশ করে বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত হয়েছে। পানিবন্দী হয়ে পড়েছে ৩-৪ হাজার মানুষ। রাতদিন জোয়ার ভাটার প্রভাবে ঘরে ফিরতে পারছেনা মানুষ। ভেসে গেছে কয়েকশ একর চিংড়ি ঘের। পানিবন্দী মানুষ আশ্রয় নিয়েছে স্কুল, মাদ্রাসা এবং মসজিদে। লন্ডভন্ড হয়ে গেছে রাস্তা-ঘাট। ইউনিয়নের বিস্তীর্ণ এলাকা জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে। ইসলামপুরে ভেসে গেছে কয়েকটি চিংড়ি ঘের, বিধ্বস্ত হয়েছে কয়েকশ কাঁচাবাড়ীঘর। বিদ্যুত না থাকাতে তথ্য আদান প্রদানে ব্যাঘাত এবং পুরো এলাকা গত ২ দিন ধরে অন্ধকারে নিমজ্জিত রয়েছে। এলাকায় পানীয় জলের সংকট তীব্র আকার ধারণ করেছে। সরকারী সাহায্য প্রয়োজনের তুলনায় নিতান্ত অপ্রতুল হওয়াতে দুর্গত এলাকার জনগণ ত্রাণের পরিমান বাড়ানোর জন্য সরকারের প্রতি আবেদন জানিয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

‘নিয়ম ছিল না বলেই বদি আমন্ত্রণ পাননি’

দায়িত্বশীল ছাড়া কারও ডাকে সাড়া নয়

দেশের কোন গোয়েন্দা সংস্থার কী কাজ

কাশ্মিরে নিরাপত্তা বাহিনীর ওপর আবারও হামলা, সেনা কর্মকর্তাসহ নিহত ৬

ই-ফাইলিং এ কক্সবাজার জেলা প্রশাসন সারাদেশে দ্বিতীয়

নাফে মাছ ধরার অনুমতি ও ইয়াবা বন্ধে সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া দিন : এমপি শাহীন আক্তার

সিবিএন এর প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে সৌদি প্রবাসী বিএনপি নেতা ফরিদের শুভেচ্ছা

এমপি বদি’র সাথে ইউএই টেকনাফ সমিতি’র সৌজন্য সাক্ষাৎ

চাকরিচ্যুতির ভয় দেখিয়ে উপজাতি এনজিও কর্মীকে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগ 

বন্ধ হলো অনলাইনে জুয়া খেলার ১৭৬ সাইট

শাজাহান খানকে সংসদে বেশি কথা বলতে দেয়ায় প্রতিবাদ

যুদ্ধ বিমানের প্রহরায় পাকিস্তানে নামলেন সৌদি যুবরাজ

অনুমোদন পেল আরও তিন ব্যাংক

আ’লীগের ভাবমুর্তি উজ্জ্বল করতে জনগনের সমর্থন চাই : ফজলুল করিম সাঈদী

তিন দিনের সফর শেষে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কক্সবাজার ত্যাগ

শহরে দুর্বৃত্তদের হামলায় অন্তঃসত্ত্বাসহ ৯ নারী আহত

কৈয়ারবিল আইডিয়াল হাই স্কুলে অভিভাবক সমাবেশ অনুষ্ঠিত

কুতুবদিয়ায় মাহিন্দ্রা গাড়ী দূর্ঘটনায় স্কুল ছাত্র আহত

নির্বাচিত হলে শাসক নয়, সেবক হয়েই কাজ করবো- গিয়াসউদ্দিন চৌধুরী

রামুতে রেল লাইনে যাচ্ছে ব্যক্তি মালিকানাধিন জমির বালি