রেইনট্রি হোটেলে ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন আরও দুই তরুণী

ডেস্ক নিউজ:

বনানী থানায় দায়ের করা মামলার বাদী দুই শিক্ষার্থী ছাড়া আরও দুই তরুণী রেইন ট্রি হোটেলে ধর্ষণের শিকার হয়েছিলেন বলে তথ্য পেয়েছে পুলিশ। অভিযোগকারী দুই শিক্ষার্থীর মতোই অন্য দুই তরুণীকেও একই সময়ে হোটেলে আনা হয়েছিল। সাত দিন রিমান্ডের চতুর্থ দিনে মামলার আসামি নাঈম আশরাফ ওরফে হালিম তদন্তকারী কর্মকর্তাদের এই তথ্য জানিয়েছে। গোয়েন্দা পুলিশের একাধিক টিম ধর্ষণের শিকার অন্য দুই তরুণীর বিষয়ে খোঁজ নেওয়া শুরু করেছে। পুলিশের দায়িত্বশীল একজন কর্মকর্তা বাংলা ট্রিবিউনকে এ তথ্য জানান।

পুলিশের ওই কর্মকর্তা বলেন, ‘ধর্ষণের শিকার অন্য দুই তরুণীর পরিচয় ও অবস্থান জানা গেছে। বিভিন্ন সূত্রের মাধ্যমে তরুণীদের কাছ থেকে তথ্য জোগাড় করা হচ্ছে। তদন্তের প্রয়োজনেই আরও তথ্য নেওয়ার জন্য মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে তাদের ডেকে এনে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। যদিও ধর্ষণের শিকার হয়ে তারা মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। মান-সম্মান ও প্রাণের ভয়ে নিজেদের গুটিয়ে রেখেছেন। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমও তাদের কাছে আতঙ্কের নাম হয়ে উঠেছে। এ কারণে তারা ভয় পেয়ে নিজেদের এক রকম লুকিয়ে রেখেছেন।’

ধর্ষণের শিকার ওই দুই তরুণীর পারিবারিক ও সামাজিক সম্মান যেন ক্ষুণ্ন না হয়, সেদিক বিবেচনা করেই ভিকটিম সাপোর্ট সেন্টারের নারী কর্মকর্তাদের মাধ্যমে বিষয়টির তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের জনসংযোগ বিভাগের উপ-কমিশনার মো. মাসুদুর রহমান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, ‘মামলার দুই নম্বর আসামি নাঈম আশরাফ ওরফে হালিমকে জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে পাওয়া তথ্য যাচাই-বাছাই করা হচ্ছে। তদন্তের স্বার্থে যাকে প্রয়োজন, তাকেই জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।’

তদন্তে সংশ্লিষ্টরা জানান, নাঈম আশরাফের নিপীড়ন-নির্যাতনের হাত থেকে বাঁচার জন্য একজন শিক্ষার্থী সারা রাতই কান্নাকাটি করেছিলেন। ছেড়ে দেওয়ার জন্য নাঈমের পা ধরেছিলেন। একপর্যায়ে নিজেকে বাঁচানোর জন্য চিৎকার করে, হোটেলের লোকজনের সাহায্য চেয়েছিলেন। কিন্তু হোটেলের সবাই পরিচিত হওয়ায় ওই তরুণীকে উদ্ধার করতে কেউ এগিয়ে যাননি। উপরন্তু নির্যাতনের কথা গোপন রাখার জন্য ওই তরুণীসহ অন্যদের ভয়-ভীতি দেখানো হয়েছে।

এদিকে মামলার প্রধান আসামি সাফাত আহমেদের গাড়িচালক বিল্লাল হোসেন রবিবার ঢাকা মুখ্য মহানগর হাকিমের আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা জানান, আদালতের কাছে দেওয়া বিল্লালের জবানবন্দিতে ধর্ষণের শিকার তরুণীদের ভিডিওধারণ ছাড়াও ভয়-ভীতি দেখানোর তথ্য উঠে এসেছে। তবে নিজে ধর্ষণের ভিডিও ধারণের কথা অস্বীকার করে আদালতকে জানিয়েছে, সে ইয়াবা সেবনের ভিডিও করেছিল। জবানবন্দিতে বিল্লাল জানায়, গাড়ি চালানো অবস্থায় সে যা শুনেছে, তাতে তার কাছে মনে হয়েছে ধর্ষণের শিকার তরুণীদের সঙ্গে বিভিন্ন কৌশলে আপস করতে বাধ্য করার চেষ্টা করা হয়েছে। কখনও ভয় দেখানো হয়েছে, কখনো টাকার প্রলোভন দিয়ে চুপ থাকতে বলা হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

শ্রীলঙ্কায় বোমা হামলায় শেখ সেলিমের নাতি নিহত, জামাতা আহত

শেখ সেলিমের মেয়ের পরিবার শ্রীলংকায় বোমা হামলার শিকার হয়েছে: প্রধানমন্ত্রী

শ্রীলঙ্কায় ধারাবাহিক বিস্ফোরণে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ২১৫

কলেজে ভর্তি কার্যক্রম শুরু ১২ মে

বলী খেলার নামে জুয়ার আসর বসাতে মরিয়া প্রভাবশালী মহল!

পেকুয়ায় ৪’শ কৃষকদের মাঝে বিনামূল্যের বীজ ও সার বিতরণ

শ্যালিকাকে ঢিল ছোড়ার প্রতিবাদ করায় বোন জামাইয়ের বাড়িতে বখাটের হামলা

পটিয়ার কেলিশহরে আন্তঃধর্মীয় সম্মেলন

হালিশহরে অজ্ঞাত বস্তাবন্দী লাশ উদ্ধার

মাহফুজউল্লাহ মারা যাননি, জানাল বিএনপি

সৌদি আরবেও ভয়াবহ সন্ত্রাসী হামলা : চার হামলাকারী নিহত

রমজানের পবিত্রতা রক্ষায় অসামাজিক কার্যকলাপ প্রতিরোধ কমিটির ৮ দফা দাবি

‘মিথ্যা’ মামলায় খরুলিয়ার মা-মেয়ে কারাগারে:  এএসপির ঘটনাস্থল পরিদর্শন

সাতকানিয়ায় ৪ হাজার পিস ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার ২

নতুন কমিটি পেয়ে সৌদিআরব প্রবাসী কক্সবাজার জেলা শ্রমিক দলের মিষ্টি বিতরণ

শ্রীলঙ্কায় ছয় বিস্ফোরণে নিহত ১৫৬

আমরা বর্বর, আমরা জ্ঞানপাপী!!

ধর্ম প্র‌তিমন্ত্রীর রে‌ডি‌য়েন্ট ফিস ওয়ার্ল্ড প‌রিদর্শন

টেকনাফে র‍্যাবের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে নাইক্ষ্যংছড়ির মাদক কারবারী নিহত

শ্রীলঙ্কায় ছয়টি ভয়াবহ বিস্ফোরণে নিহত ৪২, আহত ২৮০