অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দিয়ে স্বর্ণের দোকান বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করেছে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি। এর আগে বৃহস্পতিবার (১৮ মে)  সন্ধ্যায় আপন জুয়েলার্সের শো-রুমে অভিযানের নামে শুল্ক গোয়েন্দারা হয়রানি করছেন, এমন অভিযোগ তুলে অনির্দিষ্টকালের জন্য ধর্মঘটের ডাক দেয় সংগঠনটি। বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতির সভাপতি গঙ্গাচরণ মালাকার বাংলা ট্রিবিউনবেকে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, ‘আমাদের ভুল বোঝানো হয়েছিল। ধর্মঘট প্রত্যাহার করেছি। আপন জুয়েলার্সের মতো আমিন জুয়েলার্সেও গোয়েন্দরা তল্লাশি চালানো হচ্ছে এমনটা জেনে ধর্মঘট আহ্বান করা হয়েছিল। আমাদের এই ধর্মঘট দেওয়া ঠিক ছিল না। তাই প্রত্যাহার করেছি।’

গঙ্গাচরণ মালাকার আরও বলেন, ‘আমরা ধর্ষণের শাস্তি চাই, তাই বলে আমরা কোনও জুয়েলারির বিপক্ষে নই।’

সম্প্রতি শুল্ক গোয়েন্দা অধিদফতর আপন জুয়েলার্সের বিভিন্ন শোরুমে অভিযান চালিয়ে সোনা ও হীরা উদ্ধার করে শুল্ক গোয়েন্দারা। বন্ধ করে দেয় রাজধানীর পাঁচটি শো-রুম। এই ঘটনার পর আপন জুয়েলার্সের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে তালা ঝুলিয়ে বন্ধ করে দেওয়ার অভিযোগ তুলে প্রতিবাদ জানায় বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি। গত ১৫ মে বায়তুল মোকাররমে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সমিতির এক জরুরি সভা করে সংগঠনটি।

ওইদিন গণমাধ্যমে প্রেস বিজ্ঞপ্তি দিয়ে সংগঠনটি বিনা নোটিশে আপন জুয়েলার্সের ৫টি শোরুম বন্ধ করে দেওয়ার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। সমিতির সভাপতি গঙ্গা চরণ মালাকার ও সাধারণ সম্পাদক দিলীপ কুমার আগারওয়ালা স্বাক্ষরিত ওই প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অবিলম্বে হয়রানিমূলক এ অভিযান বন্ধ করে আপন জুয়েলার্সের ৫টি বন্ধ শো-রুম অবিলম্বে খুলে দেওয়ার দাবি জানানো হয়।

এই ঘটনার জের ধরেই আজ সন্ধায় জরুরি বৈঠক ডেকে বাংলাদেশ জুয়েলার্স সমিতি অনির্দিষ্টকালের জন্য স্বর্ণের দোকান বন্ধে ধর্মঘট ডাকে। তবে পরে রাতে তা আবার প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •