‘ধানবৃক্ষ’ : ড. ওয়াজেদ মিয়ার এক অপূরণীয় স্বপ্ন

আহমদ গিয়াস :

পৃথিবীর বেশিরভাগ মানুষের খাদ্য ভাত। তাই বিশ্বের ক্রমবর্ধমান মানুষের খাদ্য চাহিদা পূরণ করতে হলে ধানের উৎপাদন বাড়াতেই হবে। এ লক্ষে কাজ করে ফিলিপাইনের আন্তর্জাতিক ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট বা ‘ইরি’র মতো অনেক সফলতা দেখিয়েছে বাংলাদেশ ধান গবেষণা ইন্সটিটিউট-(ব্রি)র বিজ্ঞানীরাও। কিন্তু ড. ওয়াজেদ মিয়ার স্বপ্ন ছিল ভিন্ন। তাঁর এ স্বপ্ন যদি কোনদিন বাস্তবায়ন হয়, তাহলে বিশ্বের বৈজ্ঞানিক গবেষণার ক্ষেত্রে এক বড় ‘ভূমিকম্প’ সৃষ্টি হবে।
আজ থেকে ২৪ বছরেরও বেশি সময় আগের কথা (সম্ভবত ৯৩ সালের প্রথম দিকে)। জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সপ্তাহ উপলক্ষে ঢাকার আগাঁরগাওস্থ বিজ্ঞান জাদুঘরে বিজ্ঞান মেলার আয়োজন করা হয়েছিল। ওইদিন সকালে জাদুঘর প্রাঙ্গণে তৎকালীন রাষ্ট্রপতি আবদুর রহমান বিশ্বাস মেলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণার পর দুপুরে একটি কক্ষে বিজ্ঞান বিষয়ক এক সেমিনারের আয়োজন করা হয়। সেখানেই আলোচক ছিলেন পরমাণু শক্তি কমিশনের তৎকালীন সদস্য ড. মোহাম্মদ আবদুল ওয়াজেদ মিয়া। অনুষ্ঠানে ড. এম শমসের আলীসহ আরো কয়েকজন বিজ্ঞানী আলোচনা করেন। তবে ওই সময়ের এক নগণ্য বিজ্ঞানকর্মী হিসাবে আমার মনে তাঁর একটি স্বপ্নের কথা এখনও তাড়িয়ে বেড়ায়।
ড. ওয়াজেদ মিয়া আলোচনা করছিলেন আর, ভবিষ্যতে বড় বিজ্ঞানী হয়ে বাংলাদেশী হিসাবে বিশ্বকে কাঁপিয়ে দেব এমন স্বপ্নে বিভোর এক তরুণ যুবা আমি নিবিষ্ট মনে শুনছিলাম তাঁর কথা। এতদিনে কোন কথাই মনে নেই, তাঁর ‘ধানবৃক্ষ’র স্বপ্নটি ছাড়া। তিনি বলছিলেন, যদি আমরা জিন প্রযুক্তির মাধ্যমে ধানের ডিএনএ-তে পরিবর্তন এনে বৃক্ষে রূপান্তর করতে পারি, তাহলে প্রতিবছর কয়েকবার করে ধানের চারা রোপন বা এত যতœ-আত্তি করে খাদ্য উৎপাদন করতে হবে না। অন্যান্য বৃক্ষের চারার মতোই একবার ধানের চারা রোপন করলে সেটা ধীরে ধীরে বেড়ে ওঠবে এবং বৃক্ষে পরিণত হয়ে বছরের পর বছর ধরে ফলন দেবে। বৃক্ষের বয়স যত বাড়বে, উৎপাদনও তত বাড়বে। এভাবে, বাংলাদেশতো বটেই বিশ্বের ক্রমবর্ধমান মানুষের খাদ্য চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হবে। ড. ওয়াজেদ মিয়ার এই স্বপ্ন নিয়ে দেশে কোথাও আলোচনা হয়েছে বলে শুনিনি। তাঁর এই বক্তব্যটি কি সবাই একটি ‘পাগলামি’ হিসাবে ধরে নিয়েছে? তাঁর আলোচনাকালে অনুষ্ঠানে উপস্থিত বিজ্ঞানী-গবেষকদের কাউকে তাচ্ছিল্যের হাসি হাসতে তো দেখিনি? তাহলে কি এটা অসম্ভব? আপাতত তাই। একদিন আকাশে উড়ার স্বপ্নও দেখেছিল মানুষ কল্পনাতে।

০৯ মে, ২০১৭ ইং

সর্বশেষ সংবাদ

চট্টগ্রামে এবার হাজতির কাছে মিললো ৩৫০ পিস ইয়াবা

একটি সাদা কাফনের সফর নামা – (৫ম পর্ব)

একসঙ্গে ৩ বোন উধাও

যেভাবে গ্রেফতার হলেন দাড়ি-গোঁফওয়ালা ওসি মোয়াজ্জেম

ভারতের কাছে পাত্তাই পেলো না পাকিস্তান

কতদূর এগোলো জামায়াতের নতুন সংগঠনের কাজ?

বাহারছড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভা অনুষ্ঠিত

ঈদগাঁও নদীর অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদে ব্যারিস্টার আজিমের আইনি নোটিশ

চকরিয়ায় এক মাসে ৭ খুন

ভারুয়াখালী ওয়েলফেয়ার ফাউন্ডেশনের কমিটি গঠিত

চুমু দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রীর ইনফেকশন চিকিৎসা!

এনজিও চাকরির মেলা নিয়ে প্রশাসনের ধোয়াসা, হতাশ স্থানিয়রা

সাংবাদিক রাশেদের উপর হামলার তীব্র নিন্দা : অবিলম্বে সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের গ্রেফতার করুন

কক্সবাজার জেলা কারাগারে দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে দুদক 

আমার প্যারালাইজড আক্রান্ত বাবা

ঈদগড়ে উদ্ধার লাশ কক্সবাজার পৌরসভার কাউন্সিলর প্রার্থী রফিকের

রামুতে সংখ্যালঘু পরিবারের দোকান জবর-দখলের অভিযোগ

পিতা-মাতার পরকীয়ায় দু’কূল হারালো তিন শিশু!

বন্দুকযুদ্ধে নাইক্ষ‌্যংছড়ি ছাত্রলীগ নেতা সৌরভ নিহত

হ্নীলায় ইয়াবা ব্যবসায়ী জালালের অত্যাচারে অতিষ্ঠ এলাকাবাসী