ডুলাহাজারা বিট কর্মকর্তার সহযোগিতায় উজাড় হচ্ছে সেগুন বাগান

কাদের হোছাইন, ডুলাহাজারা :

কক্সবাজার উত্তর বন বিভাগের অন্তর্গত ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জের আওতাধীন ডুলাহাজারা বন বিটের ভারপ্রাপ্ত বন বিট কর্মকর্তা ও চোরাকারবারীদের জোগসাজশে ধ্বংসের পথে ডুলাহাজার সংরক্ষিত বনাঞ্চল। বন বিভাগের ডুলাহাজারার ভারপ্রাপ্ত বনবিট কর্মর্কতা জাগের আহম্মদকে ম্যানেজ করেই প্রতিনিয়ত বন থেকে মূল্যবান সেগুন গাছ কাটছে চিহ্নিত চোর সিন্ডিকেট। শুধু বন বিভাগ ও চোরাকারবারী নয় অবৈধ এ কাঠ ব্যবসার সঙ্গে জড়িত আছে সরকারি অন্যান্য দপ্তরও। এমনটাই অভিযোগ স্থানীয়দের।

সচেতন মহলের নাগরিকরা বলছেন, ভারপ্রাপ্ত এই বন বিট কর্মকর্তা টাকার বিনিময়ে চোরাকারবারীদের হাতে তুলে দিয়েছে বনাঞ্চাল।

সরেজমিনে দেখা যায়, বনটির শুরুর দিকে সবুজে ঘেরা চিত্র মুগ্ধ করে। কিন্তু একটু ভেতরের দিকে গেলেই দেখা যায়, বন উজাড়ের মহা উৎসব চলছে। হাজার হাজার গাছ কেটে নিয়েছে চোরাকারবারীরা। গত ০৮ মে দ্বিবা রাত্রে এ চিহ্নিত চোর সিন্ডিকেট আরেকটি লক্ষ টাকা দামের সেগুন গাছ কেটে পাঁচার করে দেয়। অভিযোগটির তদন্তের প্রেক্ষিতে ঘটনাস্থ ফাঁসিয়াখালী রেঞ্জ কর্মকর্তার অফিস থেকে একটু উত্তর দিকে আরাকান রোডের লাগোয়া স্থানে গিয়ে দেখা যায় সেখানে সদ্য কাটা একটি গাছে মোথা। যেটি ছিল মানুষের একমাত্র ছায়াতে ঝিরানোর বা বসার গাছ। স্থানীয় লোকজন জানায়, অনেক বন কর্মকর্তা এই কর্তনকৃত গাছের নিচে বসে নাস্তা করেছেন। গরমকালে অনেক শ্রমিক কাজ করে আসার সময় গাছটির কাছে আসলে সে গাছটির নিচে বসে ক্লান্তি দূর করে তারপর বাসায় ফিরতেন। মোথা অনুসারে গাছটি প্রস্থ ৭৫ ইঞ্চি । যার আনুমানিক মূল্য ১ লক্ষ ৭৫ হাজার টাকা। এই গাছটি কেটে ফেলার জন্য আলোচনা সমালোচনার ঝড় উঠেছে অত্র এলাকায়।

চোরাকারবারিরা ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকলেও কিছু লোককে নির্ভয়ে গাছ কাটতে দেখা যায়। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে ভয়ঙ্কর তথ্য। এলাকা মানুষের জিজ্ঞাসাবাদে, যারা গাছ কাটছেন তাদের কারও নাম প্রকাশ করেননি এলাকাবাসী। অনেক কৌশল অবলম্বনের এক পর্যায়ে তারা গুলিস্তান বাজার এলাকার মহিউদ্দীন নামে এক ব্যক্তির নাম প্রকাশ করেন।

স্থানীয়দের সহায়তায় অনুসন্ধান করে সেই মহি উদ্দীনের দেখা পাওয়া যায় বান্দরবান পার্বত্য জেলার লামা উপজেলাধীন হায়দারনাসীর ফুটেরঝিরি এলাকার বনের পাশেই।

বন উজাড় করা কাঠ কোথায় যায়, বিষয়টি অনুসন্ধান করে জানা গেল-ভ্যানে করে কাটা সেগুন গাছ ও গাছের লাকড়ি নিয়ে যায়। সেগুন গাছগুলো হায়দারনাসী গুলিস্তান বাজারের নিয়ে যায়। গুলিস্তান বাজারে গিয়ে জিজ্ঞেস করলে তারাও মহি উদ্দীনের নাম বলেন।

সচেতন মহল জানান, বর্তমান ভারপ্রাপ্ত বিট কর্মকর্তা টাকার কাছে বিক্রি হয়ে এসব দেখেও না দেখার ভান করে যাচ্ছে। তাই এলাকাবাসী বনাঞ্চল রক্ষার্থে সংশ্লিষ্ট উধ্বর্তন কর্মকর্তার হস্তক্ষেপ কামনা করেন।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

এই জনপদটি ইয়াবা নামক বিষ বৃক্ষের আবক্ষে নিম্মজ্জিত : সকলের সহযোগিতা প্রয়োজন

যুগ্মসচিব হলেন কক্সবাজারের সন্তান শফিউল আজিম : অভিনন্দন

ধর্মীয় শিক্ষা মানুষের মাঝে মূলবোধের সৃষ্টি করে-এমপি কমল

কক্সবাজার সদর মডেল থানা পুলিশের অভিযানে ১৪জন আসামী গ্রেফতার

কক্সবাজার জেলা পুলিশকে আইসিআরসির ২৫০ বডি ব্যাগ হস্তান্তর

চকরিয়ায় পল্লীবিদ্যুতের ভুতুড়ে জরিমানা নিয়ে আতঙ্ক!

ঈদগাঁওয়ে পাহাড় কাটার দায়ে এক নারীকে ১ বছর কারাদন্ড

শুধু চালককে অভিযুক্ত করে লাভ নেই আমাদেরও সচেতন হতে হবে-ইলিয়াছ কাঞ্চন

মাওলানা সিরাজুল্লাহর মৃত্যুতে জেলা জামায়াতের শোক

কক্সবাজারের ৩দিন ব্যাপী ‘প্রাথমিক চক্ষু পরিচর্যা’ কর্মশালার উদ্বোধন

‘ঘরের ছেলে’র বিদায়ে ব্যথিত পেকুয়াবাসী

শিল্পী ফাহমিদা গ্রেফতার : জামিনে মুক্ত

‘মাশরুম একটি অসীম সম্ভাবনাময় ফসল’

তথ্য প্রযুক্তি’র সেবা সাধারণের দোরগোড়ায় পৌঁছাতে সরকার বদ্ধ পরিকর : শফিউল আলম

চট্টগ্রামে জলসা মার্কেটের ছাদে ২ কিশোরী ধর্ষণ, গ্রেপ্তার ৬

কোটালীপাড়ায় নিজ জমিতে অবরুদ্ধ ৬১ পরিবার : মই বেয়ে যাদের যাতায়াত

জামায়াত নেতা শামসুল ইসলামকে গ্রেফতারের প্রতিবাদ ও মুক্তি দাবী

দুর্ঘটনারোধে সচেতনতার বিকল্প নেই : ইলিয়াস কাঞ্চন

Google looking to future after 20 years of search

ইবাদত-বন্দেগিতে মানুষ যে ভুল করে