ঈদগাঁওতে কুপি বাতি নিয়ে ২০ পরিবারের বসবাস

রেজাউল করিম :

ঈদগাঁওতে কুপি বাতি নিয়ে জীবন যাপনে বাধ্য হচ্ছেন ২০ পরিবারের ২ শতাধিক লোক। আবেদনের ৬ বছরেও বিদ্যুৎ সংযোগ না পাওয়ায় সভ্যতা ও বিজ্ঞানের উৎকর্ষের এ যুগেও তারা এমন জীবন যাপন করতে বাধ্য হচ্ছেন। কক্সবাজার জেলা প্রশাসক বরাবর এক ভূক্তভোগীর দাখিলকৃত আবেদন সূত্রে এ তথ্য জানা গেছে। আবেদনকারী হচ্ছেন ঈদগাঁও মেহেরঘোনা কলেজ গেইট এলাকার মৃত মৌলভী মাহফুজুল করিমের পুত্র মো. সলিম উল্লাহ। তিনি তার অভিযোগ পত্রে উল্লেখ করেন, কলেজ গেইট এলাকায় প্রায় ২০টি পরিবারের ২ শতাধিক লোকের বসবাস। এ এলাকায় বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে সরকারের আদেশ রয়েছে। তিনি পল্লীবিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের নির্দেশমতে বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে ২১/৩/১২ইং তারিখে কক্সবাজার পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির সদর দপ্তর অফিসে সমীক্ষা ফি বাবদ নগদ দেড় হাজার টাকা জমা করেন। যার পে স্লিপ নং হচ্ছে ২৫২৪৯৫। উল্লেখিত তারিখে উক্ত অফিসের আমেনা আক্তার কর্তৃক স্বাক্ষরিত স্লিপটি তাকে দেয়া হয়। পরে উক্ত এলাকার আশেপাশের বিদ্যুৎ সংযোগ দেয়া হলেও তিনিও অপরাপর লোকজন দীর্ঘ ৬ বছরেও বিদ্যুৎ সংযোগ থেকে বঞ্চিত রয়েছেন। বিদ্যুৎ সুবিধা না থাকায় এলাকার বিপুল সংখ্যক লোক সভ্যতার এ যুগেও কুপি বাতি নিয়ে জীবন যাপনে বাধ্য হচ্ছেন। সলিম উল্লাহর অভিযোগ, স্থানীয় পল্লী বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষ অবৈধ এলাকায় ঘুষের বিনিময়ে বিদ্যুৎ সংযোগ প্রদান অব্যাহত রাখলেও তিনিও তার এলাকার লোকজনকে সংযোগ আজ দেবে, কাল দেবে বলে নানা তালবাহানা ও কালক্ষেপণ করছে। এ এলাকায় পল্লী বিদ্যুৎ কেন্দ্রিক দালালের উৎপাত চরমভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। তাদের অত্যাচারে সাধারণ লোকজন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছেন। দালালের তালিকায় কোন কোন জন প্রতিনিধিও রয়েছে। ফায়দালোভী এসব দালালরা এলাকার লোকজনের মধ্যে ঝগড়া বিবাদ জিইয়ে রেখে ব্যক্তিগত স্বার্থ চরিতার্থ করছে। তারা অনেকের কাছ থেকে বিদ্যুৎ সংযোগ পাইয়ে দেয়ার নামে ২/৩ হাজার টাকা করে আদায় করছে। তিনি বৈধভাবে সরকারী নিয়মে বন্দোবস্তি গ্রহণের মাধ্যমে দীর্ঘ কয়েক যুগ যাবত উক্ত এলাকায় স্বপরিবারে বসবাস করে আসছেন। এখানকার প্রায় এক দোন পরিমাণ জমি সরকারীভাবে বন্দোবস্তি দেয়া হয়েছে। বছরের পর বছর বিদ্যুৎ না পাওয়ায় এ এলাকার সাধারণ লোকজন, মসজিদগামী মুসল্লী ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানমুখী ছাত্রছাত্রীদের পড়ালেখা, ধর্মকর্ম পালন ও প্রাত্যহিক কাজ সারতে নানা দূর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। তিনি অভিযোগে উল্লেখ করেন, পল্লী বিদ্যুতের ঈদগাঁও বিলিং অফিসের কতিপয় অসাধু কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের কারণে প্রান্তিক জনগোষ্ঠিকে ভোগান্তির শিকার হতে হচ্ছে। তাদের চাহিদা পূরণ না করলে তারা যা ইচ্ছা তাই করার চেষ্টা করে। তবে এ ব্যাপারে স্থানীয় বিদ্যুৎ কর্তৃপক্ষের দায়িত্বশীল কোন কর্মকর্তার বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

সর্বশেষ সংবাদ

১০৩ টাকা খরচে পুলিশের কনস্টেবল নিয়োগ আজ

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১০ শতাংশও ব্যবহার হচ্ছেনা ল্যাপটপ প্রজেক্টর

মহেশখালীতে মাদকদ্রব্যের অপব্যবহার ও অবৈধ পাচার বিরোধী আন্তর্জাতিক দিবস পালন

নির্বাচনে জিততে হিন্দু হওয়ার খবর চেপে গিয়েছিলেন নুসরাত!

একজন রিক্সাওয়ালার সততা!

নজরুল চেয়ারম্যানের ছোট ভাই কাজল আর নেই

মাতারবাড়ী রাজঘাটের বৃদ্ধা আলম শাইরের ভাগ্য খুলে যেতে পারে!

ছবিটি তোলার পর ফোটোগ্রাফারের আত্মহত্যা!

ইংলিশদের হারিয়ে সেমিফাইনালে অস্ট্রেলিয়া

৩০ জুনের মধ্যে অবিতরণকৃত এনআইডি বিতরণের নির্দেশ

হজের ১ম ফ্লাইট বাংলাদেশ থেকেই, যাত্রা শুরু ৪ জুলাই

ইফা ডিজির ক্ষমতা খর্ব, স্বস্তিতে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা

রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে বেইজিং গঠনমূলক ভূমিকা রাখবে: প্রধানমন্ত্রীকে চীনের রাষ্ট্রদূত

এইচএসসি ও সমমানের ফল প্রকাশ জুলাইয়ের তৃতীয় সপ্তাহে

ডিআইজি মিজান সাময়িক বরখাস্ত

কক্সবাজারে ভারতীয় দূতাবাসের উদ্যোগে ৫ম আন্তর্জাতিক ইয়োগা দিবস পালিত

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের ৭৫ কোটি টাকার জমি উদ্ধার

পছন্দের কবরস্থানে চিরনিদ্রায় শায়িত এডভোকেট আমজাদ হোসেন

চট্টগ্রাম বিভাগকে ফিস্টুলামুক্ত করার দায়িত্ব পেলো হোপ ফাউন্ডেশন

ডুলাহাজারায় চলন্ত বাসে আগুন!