চকরিয়ায় ৭ লাখ মানুষ এখনো ঘুর্ণিঝড় আতংকে

এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া:

আজ ২৯এপ্রিল। ২৬বছর আগে ১৯৯১সালের এই দিনে কক্সবাজারের চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলাসহ উপকূলীয় অঞ্চলে নেমে আসে মহাপ্রলয়ংকারী ঘুর্ণিঝড়। সর্বনাশা ঝড়ে ধংস হয়ে যায় উপকুলের মানব সভ্যতা। মৃত্যু ঘটে হাজারো মানুষের। সেই দিনের মহাপ্লাবনে গৃহপালিত পশু, মৎস্য সহায় সম্পদসহ মাথা গুজানোর ঠাঁই ঠুকুও হারায় হাজার হাজার পরিবার। রাস্তাঘাট, বনজ সম্পদসহ নানা ক্ষেত্রে ঘটে ব্যাপক ক্ষয়-ক্ষতি।

ঘুর্ণিঝড়ের পর গেল ২৬ বছর সময় অতিক্রম হলেও জেলার ক্ষতিগ্রস্থ জনগন এখনো নিজেদের ক্ষতি পুষিয়ে উঠতে পারেননি। বছর ঘুরে দিনটি প্রতিবছর জনগনের সামনে উপস্থিত হলেও এতদিন ভাগ্য বদল হয়নি এতদাঞ্চলের মানুষের। চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলার উপকুলীয় অঞ্চলে ঘুর্ণিঝড়ে সামাজিক নিরাপত্তার অন্যতম উৎস হচ্ছে সাইক্লোন শেল্টার। গেল ২৬ বছরে এখানে নির্মিত হয়নি পর্যাপ্ত সাইক্লোন শেল্টার। এ অবস্থার কারনে দুই উপজেলার প্রায় ৭ লাখ মানুষ এখনো ঘুর্ণিঝড় আতংকে রয়েছেন।

স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা জানিয়েছেন, সাইক্লোন শেল্টারের চেয়ে উপকুলীয় অঞ্চলে সামাজিক নিরাপত্তার মুল বলয় হচ্ছে পানি উন্নয়ন বোর্ডের বেড়িবাঁধ ও উপকুলীয় বনবিভাগের প্যারাবান। কিন্তু সরকারের সংশ্লিষ্ট মহলের উদাসীনতার ঘুর্ণিঝড়ের এতবছর পরও অরক্ষিত রয়েছে উপকূলীয় অঞ্চলের রক্ষাকবচ বেড়িবাঁধের বিশাল এলাকা। যার ফলে উপকুলীয় অঞ্চলে জনগনের মাঝে এখনো আতঙ্ক তাঁড়া করে।

কক্সবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড সুত্রে জানা গেছে, কক্সবাজার পাউবোর ২১টি পোল্ডারের অধীন জেলার আট উপজেলায় ৫৯৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ রয়েছে। ১৯৯১সালের প্রলয়ংকারী ঘুর্ণিঝড়ে উপকুলীয় অঞ্চলের বেশিরভাগ বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। অনেক এলাকায় উচুঁ বেড়িবাঁধ মিশে গেছে মাটির সাথে। তবে পাউবো প্রতিবছর অধিক ঝুকিঁপুর্ণ এলাকা চিহিৃত করে প্রাপ্ত অর্থ বরাদ্দের বিপরীতে ক্ষতিগ্রস্থ বেড়িবাঁধ সংস্কারে কাজ করছেন। সুত্র জানায়, ৫৯৫ কিলোমিটার বেড়িবাঁেধর মধ্যে ইতোমধ্যে ১৮ কিলোমিটার এলাকার বেড়িবাঁধকে অধিক ঝুকিঁপুণ হিসেবে চিহিৃত করা হয়েছে। তারমধ্যে চকরিয়া উপজেলার তিনটি পোল্ডারে ৪ কিলোমিটার এলাকার বেড়িবাঁধ বেশি ঝুকিঁপুণ অবস্থায় রয়েছে।

চকরিয়া উপজেলা রেড ক্রিসেন্ট কর্মকর্তা মনির চৌধুরী বলেন, ৯১সালের ঘুর্ণিঝড়ের পর সরকারি ও বেসরকারি সাহায্য সংস্থার অনুদানে চকরিয়ায় ৮১টি ও পেকুয়া উপজেলায় ৫৩টি সাইক্লোন শেল্টার নির্মাণ করা হয়। এগুলোর বেশির ভাগ বর্তমানে ব্যবহৃত হচ্ছে বিদ্যালয় কাম সাইক্লোন শেল্টার হিসেবে। দু’উপজেলার জনসংখ্যার অনুপাতে পর্যাপ্ত সাইক্লোন শেল্টার নেই। বর্তমানে ১২টির মতো সাইক্লোন শেল্টার ব্যবহার অনুপযোগি হয়ে পড়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ

পাঁচ মে কুতুবদিয়া উপজেলা পরিষদ নির্বাচন

বান্দরবানের ৭ উপজেলার ২১ চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যানের শপথ

চট্রগ্রামে জব্বারের বলী খেলার প্রথম রাউন্ড শুরু

দুই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাঝেখানে অবৈধ করাতকল!

বাঘাইছড়িতে ইউপিডিএফ’র ২ সন্ত্রাসী অস্ত্রসহ আটক

চকরিয়া ও পেকুয়া উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যানদের শপথ

মামলা করেও আটকানো যায়নি, ভাইস চেয়ারম্যান পদে শপথ নিলেন ফেরদৌস আহমদ জমিরী

টেকনাফে যুবকের রহস্যজনক মৃত্যু!

দীর্ঘ একবছর পর কক্সবাজারের অতিরিক্ত জজের শূণ্যপদে বিচারক নিয়োগ

শপথ নিলেন কক্সবাজারের ৭ উপজেলার ২১ জন চেয়ারম্যান-ভাইস চেয়ারম্যান

চট্টগ্রামে লালদিঘীতে আজ মেলা, কাল বলীখেলা

নিউজার্সীর রাটগারস ইউনিভার্সিটিতে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত

অলিক মহাশক্তির সন্ধানেই বাউলরা প্রেম ও বিশ্বাস নিয়ে মাজার সঙ্গীত গায়

শপথ নিলেন বিএনপির জাহিদুর

চকরিয়া উপজেলা নির্বাচনে বিজয়ী সাঈদী , ছুট্টো ও জেসি শপথ নিচ্ছেন

পানি নেওয়ায় মহিলাকে পেটালেন মাদ্রাসা শিক্ষক (ভিডিও)

শিক্ষার্থীদের উপস্থিতিতে শিক্ষকদের ধূমপানে নিষেধাজ্ঞা, পুরস্কারে বন্ধ ক্রোকারিজ

চৌধুরী পাড়া রাখাইন পল্লীতে বিরল প্রজাতির প্রাণী উদ্ধার

নাইক্ষ্যংছড়িতে প্রতিপক্ষের হামলায় উখিয়ার যুবক খুন

মোমবাতির আগুনে পুড়লো ৪টি বসতবাড়ি : ৪০ লাখ টাকার ক্ষয়ক্ষতি