বড়পুকুরিয়ার কয়লার ছাইয়ে অসুস্থ হচ্ছে আশপাশের মানুষ

দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের কয়লা পোড়ানো ছাইয়ের সমস্যায় ভুগছে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিসহ আশপাশের বাসিন্দারা।

১০ বছরেও ছাই অপসারণ না করায় এখন আশপাশের এলাকায় ছড়িয়ে পড়ে পরিবেশ বিপর্যয়ের আশঙ্কা করছেন ওই এলাকার বাসিন্দারা। ইতোমধ্যে দেখা দিয়েছে শ্বাসকষ্টসহ নানা প্রকার জটিলতা।

তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্র সূত্রে জানা গেছে, বর্তমানে বড়পুকুরিয়া তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রে ১২৫ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন দুটি ইউনিট চালু আছে। এতে প্রতিদিন বিদ্যুৎ উৎপাদনের জন্য ২ হাজার মে.টন থেকে ২ হাজার ২শ মে.টন কয়লা পোড়ানো হয়। ব্যবহৃত কয়লার ১২ থেকে ১৫ শতাংশ ছাই হয়ে (বর্জ্য) হিসেবে জমা হয়। এই ছাই দুটি পুকুরে জমানো হচ্ছে। কিন্তু দীর্ঘ ১০ বছরে ব্যবহৃত ছাই অন্যত্র অপসারণ না করায় এখন ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের বর্জ্য ছাই বাতাসের সঙ্গে উড়ে গিয়ে পার্শ্ববর্তী গ্রাম ফুলবাড়ী উপজেলার শিবনগর ইউনিয়নের রামভদ্রপুর, দুধিপুর, টুনির আড়াসহ আশপাশের এলাকার বাসিন্দাদের ঘর-বাড়ি আসবাবপত্রে পড়ছে। এতে তাদের শ্বাসকষ্টসহ নানা প্রকার স্বাস্থ্য সমস্যা দেখা দিয়েছে।

তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের একটি সূত্র জানায়, ২০০৬ সালে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটির বিদ্যুৎ উৎপন্ন শুরু হয়। এরপর তাপবিদ্যূৎ কেন্দ্রের ছাই দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে সিমেন্ট ফ্যাক্টরিগুলো কিনে নিয়ে যেত। এতে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি ছাই বিক্রি করে আয় করতো। কিন্তু ২০১০ সালে ছাই বিক্রির টেন্ডার নিয়ে একটি জটিলতা দেখা দেয়ায় টেন্ডারের বিরুদ্ধে উচ্চ আদালতে একটি মামলা দায়ের হয়। এতে করে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির ছাই বিক্রি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর থেকে তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ছাইগুলো একই স্থানে ডাম্পিং করা হচ্ছে। ফলে ব্যবহৃত মূল্যবান ছাই এখন পরিবেশ বিপর্যয়ের হুমকি হয়ে দাড়িয়েছে।

তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির কয়লা পোড়ানো ছাই পার্শ্ববতী দুটি পুকুরে রাখা হচ্ছে। ছাই রাখার পুকুর দুটি ইতোমধ্যেই ভরাট হয়ে গেছে। ফলে পুকুরে রাখা ছাই এখন বাতাসের সঙ্গে উড়ে যাচ্ছে। ফলে বড়পুকুরিয়া তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের পার্শ্ববর্তী ধাপের হাট, দুধিপুর, রামভদ্রপুর গ্রামে গিয়ে দেখা যায়, সেখানকার বাসিন্দারা শ্বাসকষ্টসহ নানা জটিল রোগে ভূগছে।

রামভদ্রপুর উচ্চ বিদ্যালয়ের সাবেক প্রধান শিক্ষক আব্দুল মজিদ বলেন, তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ছাই উড়ে গিয়ে তাদের আসবাবপত্রসহ ব্যবহৃত পোশাক আশাকে পড়ছে। এমনকি ফসলের ক্ষেতেও পড়ছে। এতে তাদের নানা জটিল এবং কঠিন রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

একই কথা বলেন, রামভদ্রপুর গ্রামের আব্দুল লতিফ, দুধিপুর গ্রামের আব্বাস আলী, সোবহান মিয়া, দুধিপুর গ্রামের ভ্যানচালক শুকুমার রায় বলেন, তাদের একটি ১০ বছরের কন্যা সন্তানের হাতে চর্মরোগ দেখা দিয়েছে। চিকিৎসকরা বলছেন, এটি অ্যাসিড জনিত ভাইরাসে এ আক্রান্ত হয়েছে। একই অবস্থা ওই এলাকার অন্যান্য শিশুদেরও।

এ বিষয়ে তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ব্যাবস্থপনা পরিচালক খায়রুল আমিনের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রের ছাই নিয়ে পরিবেশ বিপর্যয়ের কোনো আশঙ্কা নেই। ছাই বিক্রির বিষয়টি আদালতে ঝুলে থাকায় সে বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

সৈকত দখল ও অবৈধভাবে বালি উত্তোলন: জাপার ভাইস চেয়ারম্যান নুরুল আমিনসহ ৯ জনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারী পরোয়ানা

খালেদা জিয়া চাইলে তাকে ফের হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসার নির্দেশ হাইকোর্টের

দীপেন দেওয়ানের মনোনয়ন দাবী রাঙামাটি বিএনপির

খরুলিয়ায় সড়কের উপর গরুর হাট, ঘটছে দুর্ঘটনা

গণমাধ্যমে এমপি বদি’র মনোনয়ন বঞ্চিতের খবর ‘টক অব দা উখিয়া-টেকনাফ’

স্ত্রীর ভাগ্যে বদির নৌকা!

সোনাদিয়া প্যারাবনে বন্দুকযুদ্ধে জলদস্যু নিহত

কক্সবাজার-৩ সাইমুম সরওয়ার কমলসহ আ.লীগের ৫৪ প্রার্থীর চূড়ান্ত তালিকা

অনলাইন সংবাদের জনপ্রিয়তার প্রতি সরকারের সু-নজর জরুরী

ফ্রান্সস্থ প্রজ্ঞাবিহারের কঠিন চীবর দান উৎসব উদযাপিত

চট্টগ্রামে পাহাড়তলীতে অস্ত্রসহ যুবক আটক

পেকুয়ায় প্রশাসনের উদ্যোগে বিলবোর্ড, ব্যানার-ফেস্টুন অপসারন

গণপূর্ত বিভাগের দায়িত্বহীনতায় স্বাস্থ্য ও অপরাধ ঝুঁকিতে প্রায় তিন’শ শিক্ষার্থী

শিশু জুবায়ের’র উপর এ কেমন শাসন!

হাসিনা : এ ডটার’স টেলে বানান ভুল, ব্লকবাস্টারকে লিগ্যাল নোটিশ

ক্ষমতায় গেলে সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করবে ঐক্যফ্রন্ট

“বিড়ালের গলায় মুক্তার মালা !”

লবণ উৎপাদনে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অর্জনে গবেষণার বিকল্প নাই : বিসিক চেয়ারম্যান

চট্টগ্রামে দৈনিক কর্ণফুলী সম্পাদক আফসার উদ্দিন গ্রেফতার

চার দিনব্যাপী আয়কর মেলা সমাপ্ত, ৮০ লাখ ৫১ হাজার ৭৮০ টাকা রাজস্ব আদায়