এম.জিয়াবুল হক, চকরিয়া:

চকরিয়া উপজেলার হারবাং এলাকায় চালককে বেধড়ক মারধর করে মুরগী ভর্তি একটি পিকআপ গাড়ি ছিনতাই করেছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনার সময় দুর্বৃত্তরা ওই গাড়িতে থাকা প্রায় ৭শত মুরগী ও চালকের কাছ থেকে আমদানি বাবত রক্ষিত ১লাখ ২০ হাজার টাকা লুটে নিয়ে গেছে। বুধবার রাত দশটার দিকে মহাসড়কের হারবাং নয়াবাজার মাজার গেইট এলাকায় ঘটেছে এ ঘটনা।

এদিকে মুরগী ভর্তি গাড়ি ছিনতাইয়ের ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকালে পোর্ল্টি ফার্ম মালিক আজিজনগর উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত আবদুল কুদ্দুছের ছেলে আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল চকরিয়া থানায় চারজনকে আসামি করে একটি এজাহার দায়ের করেছেন।

এজাহারে আসামি করা হয়েছে হারবাং ইউনিয়নের সাবানঘাটা এলাকার সাকির আহমদের ছেলে নাছির উদ্দিন, অজি উল্লাহ’র ছেলে নুরুস ছফা, সাকির আহমদের ছেলে জামাল উদ্দিন ও ইদ্রিছ আহমদ।

এজাহারে বাদি আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল জানান, তিনি একজন পোর্ল্টি ব্যবসায়ী। ঘটনার দিন তাঁর ব্যবহৃত পিকআপ গাড়ি (নং চট্টমেট্রো-ন ১১৪৫২৩) যোগে বিভিন্ন ফার্ম থেকে মুরগী সংগ্রহ করে দোকানে দোকানে সরবরাহ করছিলেন। ওইসময় রাত দশটার দিকে গাড়িটি মুরগী নিয়ে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের নয়াবাজার মাজার গেইট এলাকা অতিক্রমকালে অভিযুক্তরা গতিরোধ করে চালককে পিটিয়ে মুরগীসহ গাড়িটি নিয়ে পালিয়ে যায়। এজাহারে বাদি দাবি করেন, ঘটনার সময় অভিযুক্তরা চালকের কাছে থাকা আমদানি বাবত ১লাখ ২০ হাজার লুট করে নেয়।

বাদি আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল জানান, বৃহস্পতিবার সকালে অনুসন্ধান করে দেখেন ছিনতাই করা তাঁর গাড়িটি এক নম্বর আসামি নাছির উদ্দিনের বাড়ির উঠানে রয়েছে। ওইসময় তিনি গাড়িটি নিয়ে আসতে চাইলে হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান বাঁধা দেন বলে অভিযোগ করেন বাদি আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল।চকরিয়ায় চালককে পিটিয়ে মুরগী ভর্তি পিকআপ গাড়ি ও নগদ টাকা ছিনতাই!

এম.জিয়াবুল হক,চকরিয়া:

চকরিয়া উপজেলার হারবাং এলাকায় চালককে বেধড়ক মারধর করে মুরগী ভর্তি একটি পিকআপ গাড়ি ছিনতাই করেছে দুর্বৃত্তরা। ঘটনার সময় দুর্বৃত্তরা ওই গাড়িতে থাকা প্রায় ৭শত মুরগী ও চালকের কাছ থেকে আমদানি বাবত রক্ষিত ১লাখ ২০ হাজার টাকা লুটে নিয়ে গেছে। বুধবার রাত দশটার দিকে মহাসড়কের হারবাং নয়াবাজার মাজার গেইট এলাকায় ঘটেছে এ ঘটনা।

এদিকে মুরগী ভর্তি গাড়ি ছিনতাইয়ের ঘটনায় বৃহস্পতিবার বিকালে পোর্ল্টি ফার্ম মালিক আজিজনগর উত্তরপাড়া গ্রামের মৃত আবদুল কুদ্দুছের ছেলে আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল চকরিয়া থানায় চারজনকে আসামি করে একটি এজাহার দায়ের করেছেন।

এজাহারে আসামি করা হয়েছে হারবাং ইউনিয়নের সাবানঘাটা এলাকার সাকির আহমদের ছেলে নাছির উদ্দিন, অজি উল্লাহ’র ছেলে নুরুস ছফা, সাকির আহমদের ছেলে জামাল উদ্দিন ও ইদ্রিছ আহমদ।

এজাহারে বাদি আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল জানান, তিনি একজন পোর্ল্টি ব্যবসায়ী। ঘটনার দিন তাঁর ব্যবহৃত পিকআপ গাড়ি (নং চট্টমেট্রো-ন ১১৪৫২৩) যোগে বিভিন্ন ফার্ম থেকে মুরগী সংগ্রহ করে দোকানে দোকানে সরবরাহ করছিলেন। ওইসময় রাত দশটার দিকে গাড়িটি মুরগী নিয়ে কক্সবাজার-চট্টগ্রাম মহাসড়কের চকরিয়া উপজেলার হারবাং ইউনিয়নের নয়াবাজার মাজার গেইট এলাকা অতিক্রমকালে অভিযুক্তরা গতিরোধ করে চালককে পিটিয়ে মুরগীসহ গাড়িটি নিয়ে পালিয়ে যায়। এজাহারে বাদি দাবি করেন, ঘটনার সময় অভিযুক্তরা চালকের কাছে থাকা আমদানি বাবত ১লাখ ২০ হাজার লুট করে নেয়।

বাদি আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল জানান, বৃহস্পতিবার সকালে অনুসন্ধান করে দেখেন ছিনতাই করা তাঁর গাড়িটি এক নম্বর আসামি নাছির উদ্দিনের বাড়ির উঠানে রয়েছে। ওইসময় তিনি গাড়িটি নিয়ে আসতে চাইলে হারবাং ইউপি চেয়ারম্যান বাঁধা দেন বলে অভিযোগ করেন বাদি আবু বক্কর ছিদ্দিকী বাবুল।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •