সিবিএন

রামু ও নাইক্ষ্যংছড়ি এলাকা থেকে বিভিন্ন সময় উদ্ধার হওয়া ১ কোটি ৬১ লাখ ৩০ হাজার ৫০ টাকা মূল্যের বিভিন্ন প্রকার মাদকদ্রব্য ধংস করেছে বিজিবি। মঙ্গলবার সকালে ৫০ বিজিবি ব্যাটালিয়ন দপ্তরে মাদকদ্রব্যগুলো আনুষ্ঠানিকভাবে ধংস করা হয়।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, রামু ৫০ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের (সিও) লে. কর্নেল গোলাম মনজুর ছিদ্দিকী, রামু উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোঃ শাহজাহান আলি, রামু উপজেলা সহকারি কমিশনার ভূমি মোঃ নিকারুজ্জামান, রামু মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার নুরুল হক, সমাজ সেবা কর্মকর্তা বিল্লাল হোসেন খন্দকার, রাজারকুল চেয়ারম্যান মুফিজুর রহমান, রামুর সিনিয়র সাংবাদিক যথাক্রমে নুরুল ইসলাম সেলিম, খালেদ শহীদ, নীতিশ বড়–য়া, খালেদ হোসেন টাপু, আবদুল মালেক সিকদার, আবু বক্করসহ প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার নেতৃবৃন্দ, মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিপ্তরের প্রতিনিধি, রামু থানা পুলিশ, জনপ্রতিনিধি ও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ ।

৫০ বিজিবি ২২ জুলাই ২০১৬ থেকে ৮ এপ্রিল পর্যন্ত বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে বিপুল পরিমান মাদকদ্রব্য জব্দ করতে সক্ষম হয়। ধ্বংস করা মাদকের মধ্যে ছিল রাম মদ ৬৪২ বোতল, ডিষ্ট্রিলারী রাম মদ ১২০, কান্ট্রি ডাইজিং মদ ২৮৪, হুইসকি ১২ বোতল, ইয়াবা ৩৮ হাজার ৪৬২ পিস, ডায়াব্লো সুপার ষ্ট্রং বিয়ার ৮২৭, বার্মিজ মার্বেল সিগারেট ২১ হাজার ৪৬৬ প্যাকেট, গাঁজা ৫০০ গ্রাম, এবং বাংলা মদ ২ হাজার ১৬৪ লিটার। যার মূল্য ১ কোটি ৬১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকা। এছাড়া মালিক ও পাচারকারিসহ ৫৮৬ পিস ইয়াবা, ৪ হাজার ৫০০ প্যাকেট মার্বেল সিগারেট এবং ১২ বোতল কান্ট্রি ডাইজিন মদ আটক করা হয়।

রামু ৫০ বর্ডার গার্ড ব্যাটালিয়নের (সিও) লে. কর্নেল গোলাম মনজুর ছিদ্দিকী জানান, বিভিন্ন সময় মিয়ানমার থেকে চোরাইপথে আসা ১ কোটি ৬১ লক্ষ ৩০ হাজার টাকার এসব মাদক আটক করা হয়।

উল্লেখ্য, গত ৯ মাসে রামু ও নাইক্ষ্যংছড়ি এলাকা থেকে ২৫ কোটি ২৪ লাখ ২ হাজার ৩০০ টাকা মূল্যের বিভিন্ন চোরাচালানী মাদকদ্রব্য উদ্ধার করে ৫০ বিজিবি।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •  
  •