‘কক্সবাজার পৌরসভার সচিবকে পেঠালেন বিতর্কিত কাউন্সিলর নোবেল’-সংবাদের বিষয়ে কাউন্সিলরদের বক্তব্য ও প্রতিবাদ

আমরা নিম্ন স্বাক্ষরকারীগণ কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচিত ওয়ার্ড কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত মহিলা আসনের কাউন্সিলর হই। অদ্য ১০/০৪/২০১৭ইং তারিখ কক্সবাজার হতে প্রকাশিত ও প্রচারিত স্থানীয় দৈনিক বাঁকখালী ও রুপসীগ্রাম পত্রিকায় উপরোক্ত শিরোনামের সংবাদটি আমাদের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। সংবাদটি পড়ে আমরা হতবাক, আশ্চর্য্য ও মর্মাহত হয়েছি। কারণ সংবাদটি ঐতিহ্যবাহী কক্সবাজার পৌরসভার ভাবমূর্তি ও মর্যাদাহানীকর, বিধায় এই বিষয়ে যাছাই-বাছাই পূর্বক আমাদের বক্তব্য প্রকাশ করছি।

বক্তব্য: বর্তমান পৌর সচিব কক্সবাজার পৌরসভায় যোগদানের পর হইতে মনগড়া কিছু নিয়ম কানুন তৈরী করে তাহা অধস্থন কর্মকর্তা/ কর্মচারী/ ঠিকাদারদের উপর চাপিয়ে প্রতিমাসে বড় অংকের আর্থিক অনিয়ম করিয়া আসিতেছিলেন। যেমন- ১) পৌরসভা কর্তৃক পরিচালিত মোবাইল কোর্ট সমূহে সাধারণ ভাবে পৌরসভার ১২টি ওয়ার্ডের পরিচ্ছন্ন কর্মীদের শ্রমিক হিসেবে ব্যবহার করা হয়। বাহিরের কোন শ্রমিক নেয়ার বিষয়ে আমরা অবগত নয়। অথচ প্রতিটি মোবাইল কোর্টে শ্রমিক নিয়োগ দেখিয়ে ২০-৪০ হাজার টাকা মিথ্যা বিল তৈরী করে উত্তোলন করে। যাহা তদন্তে প্রমাণিত হবে। ২) যোগদানের পর হতে সচিব কনজার্ভেন্সী বিভাগে সুপারভাইজার ও লেবার/সুইপারদের কাছে মাথাপিছু ০৪/০৫শ টাকা দাবী করে আসছিল। বিনিময়ে কর্মে হাজির থাকা না থাকার বিষয়টি তিনি দেখবেন বলে ঘোষণা দিয়েছিলেন। এতে রাজি না হওয়ায় এই বিভাগে চাকুরীরতদের উপর পরিচালনা শুরু করেন নানা হয়রানী ও আক্রোশ। চাকুরী বিধি নীতিমালা লংঘন করে কনজার্ভেন্সী পরিদর্শকের কাছ থেকে স্টাফ হাজিরা খাতা কেড়ে নেন এবং তাহার দপ্তরে এসে হাজিরা দেওয়ার নিয়ম জারি করেন। যাকে ইচ্ছা হাজিরা দেন, যাকে ইচ্ছা গরহাজির দেখান। ওয়ার্ড কাউন্সিলররা হাজির আছেন মর্মে প্রত্যয়ন দিলেও তাহা আমলে নেয় না। ফলে পুরো শহরের পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা কাজের গতি হারিয়ে শহরটি ময়লা-আবর্জনার শহরে পরিণত হয়েছে। ৩) ঠিকাদারদের বিল প্রদান, খুচরা মালামাল ক্রয়, অস্থায়ী কর্মচারী নিয়োগ, টিএ/ডিএ সহ নানা আর্থিক খাতে বর্তমান সচিব অনিয়মের এক স্বর্গরাজ্য তৈরী করেছে। যাহা পৌরসভা সংশ্লিষ্ট সকলেরই জানা। ইতিমধ্যে ১০নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর সহ আরো অনেকেই বিষয় সমূহ নিয়ে প্রতিবাদ মুখর ভুমিকা নেওয়া শুরু করেন। আগামী পরিষদ সভায় সকল বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করার জন্য নীতিগত প্রস্তুতি গ্রহণ করেন। বিষয় সমূহ জানতে পেরে দুর্নীতিবাজ, অহংকারী, নারী লোভী, স্বেচ্ছাচারী বর্তমান পৌর সচিব তাহার অনিয়মের সিন্ডিকেট সদস্যদের পরামর্শে আকাম ও কু-কর্ম ঢাকতে সু-কৌশলে কক্সবাজার পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডের জনপ্রিয় কাউন্সিলর ও পৌর আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জননেতা জাবেদ মোহাম্মদ কায়ছার নোবেল এর বিরুদ্ধে সাজানো, নাটকীয় ও আক্রোশমূলক মামলা দায়ের করেন। উক্ত সাজানো ঘটনাটি টাকার বিনিময়ে পত্রিকায় প্রকাশ করে পৌরসভার জনপ্রতিনিধিদের মর্যাদাহানী করার চেষ্টা করেন।

আমরা কাউন্সিলরগণ এই সমস্ত কর্মকান্ডের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি এবং আগামী ৪৮ ঘন্টার মধ্যে স্ব-উদ্যোগে মিথ্যা মামলাটি প্রত্যাহার করে পৌরবাসীর কাছে নিঃশর্ত ক্ষমা চাওয়ার জন্য দায়ী পৌর সচিব রাসেল চৌধুরীর প্রতি অনুরোধ জানাচ্ছি। পাশাপাশি সচিব রাসেল চৌধুরীকে অবিলম্বে শাস্তিমূলক বদলী করার জন্য মাননীয় স্থানীয় সরকার সচিব বরাবরে আবেদন করছি। অন্যথায় পরবর্তীতে সকল পৌর কাউন্সিলরগণ কর্ম বিরতি সহ বৃহত্তর আন্দোলনের কর্মসূচী ঘোষণা করতে বাধ্য হবো।

কক্সবাজার নিউজ সিবিএন’এ প্রকাশিত কোনও সংবাদ, কলাম, তথ্য, ছবি, পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার দণ্ডনীয় অপরাধ।

সর্বশেষ সংবাদ

তাহলে কী জাফর-আশেক-কানিজ-বদি পাচ্ছেন নৌকার টিকেট!

ইসলামাবাদে যাত্রীবাহী বাসের ধাক্কায় যুবক নিহত

‘নেতানিয়াহু, ট্রাম্প ও বিন সালমান শয়তানের ৩ অক্ষশক্তি’

উখিয়ায় অপহৃত যুবক উদ্ধার, দুই অপহরণকারী আটক

চ্যানেল কর্ণফুলীর কক্সবাজার প্রতিনিধি সেলিম উদ্দীন

‘পারস্পরিক কল্যাণকামিতার মাধ্যমেই সমৃদ্ধ রাষ্ট্র গঠন সম্ভব’

ধানের শীষে নির্বাচন করবে জামায়াত!

কুতুবদিয়ায় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিষয়ক মহড়া অনুষ্ঠিত

কক্সবাজারে আয়কর মেলা, তিনদিনে ৫৯ লাখ টাকা রাজস্ব আদায়

পোকখালীতে চিংড়ি ঘেরে ডাকাতির চেষ্টা, মালিককে কুপিয়ে জখম

মহেশখালীতে ৩দিন ব্যাপী কঠিন চীবর দানোৎসব শুরু

ইন্টারনেট সুবিধার আওতায় কক্সবাজার প্রেসক্লাব

আওয়ামীলীগ ভাওতাবাজিতে চ্যাম্পিয়ন : ড. কামাল

সত্য বলায় এসকে সিনহাকে জোর করে বিদেশ পাঠানো হয়েছে: মির্জা ফখরুল

সাতকানিয়ায় মাদকসহ আটক ২

কক্সবাজারে হোটেল থেকে বন্দী ঢাকার তরুণী উদ্ধার

৩০০ আসনে প্রার্থী চূড়ান্ত ইসলামী আন্দোলনের

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে খেলনা বেলুনের সিলিন্ডার বিস্ফোরণে আহত ৯

চকরিয়া আসছেন পুলিশের আইজি, উদ্বোধন করবেন থানার নতুন ভবন

না ফেরার দেশে গর্জনিয়ার জমিদার পরিবারের দুই মহিয়সী নারী